২০১২-বিদায়ী: মুন্সীগঞ্জের মেঘনার লঞ্চডুবিতে ১৪৭ জনের প্রাণহানি

fire dekhaবিদায়ী বছরের আলোচিত ঘটনার মধ্যে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার নয়ানগর গ্রাম সংলগ্ন মেঘনার লঞ্চডুবিতে ও ব্যাপক প্রাণহানির ঘটনা ছিল অন্যতম। গত বছরের ১২ মার্চ মধ্যরাতে এ লঞ্চডুবিতে ১৪৭ জনের প্রাণহানি ঘটে। এ সময় ওই রাত্রিতে শরীয়তপুরের সুরেশ্বর লঞ্চ টার্মিনাল থেকে প্রায় ৩ শতাধিক যাত্রীবোঝাই করে লঞ্চটি ঢাকার সদরঘাটের উদ্দেশে রওনা হয়। পথিমধ্যে দিবাগত রাত ১২ টার দিকে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার মেঘনা নদীতে এমটি সিটি-১ নামের জাহাজের ধাক্কায় এমভি শরীয়তপুর-১ লঞ্চটি মেঘনা নদীতে ডুবে যায়। খবর পেয়ে পরদিন সকালে বিআইডব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তম নিমজ্জিত লঞ্চ উদ্ধার ও উদ্ধারকর্মীরা উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। মেঘনা নদীতে লঞ্চটি শনাক্ত করতে দুপুর পেরিয়ে সন্ধা হয়ে যায়। এর মধ্যে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত— প্রথম দিনের ডুবুরি ও স্থানীয় এলাকাসীদের তৎপরতায় উদ্ধার হয় ৩৭ টি মরদেহ। এদিকে উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তমের একার পে নিমজ্জিত লঞ্চটি উদ্ধার অসম্ভব হয়ে ওঠে। পরে ডাকা হয় দেশের আরেক উদ্ধারকারী জাহাজ হামজাকে। এ দিন সর্বাধিক ৭৫ লাশ উদ্ধারের মধ্য দিয়ে নিমজ্জিত এমভি শরীয়তপুর-১ লঞ্চ উদ্ধার করা হয়। এর পর তৃতীয় দিনে ২৭ টি, চতুর্থ দিনে ৬ টি ও পঞ্চম দিনে আরও ২ লাশ উদ্ধারের মধ্য দিয়ে মেঘনার লঞ্চডুবিতে প্রাণহানির তালিকা দীর্ঘ হতে থাকে। ষষ্ঠ দিনে মেঘনার নয়ানগর গ্রাম থেকে শুরু করে পার্শ্ববর্তী চাঁদপুরের মতলব উপজেলার ষাটনল পর্যন্ত লাশের খোঁজে নামে পুলিশ-প্রশাসন। এ দিন কোনো লাশ পায়নি পুলিশ। এরই মধ্য দিয়ে লঞ্চডুবির লাশ উদ্ধারের তৎপরতার ইতি টানা হয়।

লঞ্চডুবির ঠিক ৬৫ ঘণ্টা পর ১৫ মার্চ দিবাগত রাত ৮টার দিকে জেলার গজারিয়া থানায় এসআই হায়দার আলী বাদী হয়ে ঘাতক জাহাজের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।


লঞ্চডুবির-দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা জানান, রাতে লঞ্চের ডেক ও কেবিনের ভেতর অধিকাংশ যাত্রীই গভীর নিদ্রায়। দিবাগত গভীর রাতে হঠাৎ বিকট শব্দ শুনতে পেয়ে যাত্রীদের ঘুম ভেঙে গেলেও কিছু বুঝে ওঠার আগেই এমভি শরীয়তপুর-১ লঞ্চটি মেঘনা নদীর প্রায় ৮০ ফুট পানির নিচে তলিয়ে যায়। এ সময় সাধারণ যাত্রীরা তাৎণিক বুঝতে পারে, যে বড় ধরনের কোনো এক নৌযান লঞ্চটির সাথে প্রচণ্ড গতিতে ধাক্কা লেগেছে। কিছু বুঝে উঠার আগেই লঞ্চের পেছনের অংশ মেঘনা নদীতে ডুবতে শুরু করে। তখনই শুরু হয়ে যায় যাত্রীদের নিজ প্রান বাঁচানোর প্রতিযোগিতায়। কেউ কেউ লাফিয়ে ও পানির সঙ্গে যুদ্ধ করে মেঘনা পাড়ে সাঁতরিয়ে উঠতে সম হয়। কিন্তু অধিকাংশ যাত্রীই লঞ্চডুবিতে নিখোঁজ হয়। এরপর থেকে মেঘনাপাড়ে শুরু হয় স্বজনদের আহাজারি সৃিষ্ট হয় এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের। স্বজনদের আহাজারিতে মেঘনার বাতাস ভারি হয়ে উঠে। মুন্সীগঞ্জ-মেঘনাপাড়ের ও শরিয়তপুরের মানুষ আজও ভুলতে পারেনি সেই লঞ্চডুবির হৃদয়বিদারক ঘটনা। লঞ্চডুবিতে এতো বেশি প্রাণহানির স্মৃতি তাদের তাড়িয়ে বেড়ায় আজও। মুন্সীগঞ্জ-মেঘনাপাড়ে ছিল লাশের মিছিল। ছিল কারও মা-বাবা, কারও ভাই-বোন কিংবা কারও স্বামী-স্ত্রী।
fire dekha
যেভাবে আটক করা হয় ঘাতক নৌযানটিকে :– মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার মেঘনার লঞ্চডুবি ঘটনার ৩৫ দিন পর ৩৬ দিনে ঘাতক জাহাজ এমটি সিটি-১ চাঁদপুরের মতলব উপজেলার ষাটনল এলাকার মেঘনা নদী থেকে আটক করে পুলিশ। এ সময় গ্রেফতার করা হয় জাহাজের ১২ কর্মচারীকেও। বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান খন্দকার শামসুজ্জোহার নেতৃত্বে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ১ হাজার ২১৪ টন ধারণ মতাসম্পন্ন এ জাহাজটিকে লঞ্চডুবির ঘটনায় ঘাতক হিসেবে চিহ্নিত করে আটক করা হয়।

এছাড়া লঞ্চডুবির ঘটনায় সে সময় গঠিত হয় ৩টি তদন্ত কমিটি। ওই কমিটিগুলো পরে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপরে কাছে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। কিন্তু ঘাতক নৌযানের মালিকপরে বিরুদ্ধে শাস্তি দেওয়া হলো কিনা এবং যারা প্রিয়জনদের হারিয়েছেন সেই সব স্বজনের খোঁজও নেয়নি কেউ। গজারিয়া থানায় নৌযানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার ভবিষ্যত এখনো রয়েছে অন্ধকারে। নিঃসন্দেহে লঞ্চডুবির ঘটনাটি বেদনার। স্ত্রী পান্না চৌধুরী ২ বছরের শিশুপুত্র নাহিনকে নিয়ে নিজ গ্রামের বাড়ি থেকে রাজধানী ঢাকায় ওই লঞ্চে ফিরছিলেন বেসরকারি টিভি চ্যানেল বাংলাভিশনের সিনিয়র ক্যামেরাম্যান মাসুক চৌধুরীকেও হারাতে হয় এ লঞ্চডুবির ঘটনায়। এ ছাড়াও বর-কনেসহ ১২ বরযাত্রী নিহত হওয়ার ঘটনা এখনো সবাইকে কাঁদায়।

রাখে আল্লাহ মারে কে ?
মেঘনার লঞ্চডুবিতে ১৪৭ জনের প্রাণহানি ঘটলেও আশ্চর্যজনক ভাবে বেঁচে যায় ২ শিশুর প্রান। লঞ্চে থাকা মরিচের বস্তার উপর বসে থেকে ভেসে ভেসে লঞ্চযাত্রী আবদুুল গনির ২ শিশু প্রানে বেঁচে যায়। তাই একেই বুঝি বলে-“রাখে আল্লাহ মারে কে”।

টাইমস্ আই বেঙ্গলী

Leave a Reply