টঙ্গিবাড়ী উপজেলা যুবদলের দুই নেতার বিরুদ্ধে শোকজ

জেলার লৌহজংয়ে বিএনপিদলীয় সাবেক প্রতিমন্ত্রী মিজানুর রহমান সিনহার বাসভবনে সংঘর্ষ, হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ির ঘটনায় টঙ্গিবাড়ী উপজেলা যুবদল সভাপতি শামীম মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক মো. আলমগীরকে অভিযুক্ত করে রোববার সাত সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। একই সঙ্গে যুবদল সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। জেলা যুবদলের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে ওই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।


টঙ্গিবাড়ী উপজেলার আবদুল্লাহপুর, বেতকা, যশলং, সোনারং-টঙ্গিবাড়ী, আড়িয়ল-বালিগাঁও, দিঘীরপাড়, হাসাইলসহ ১২ ইউনিয়নে যুবদলের কমিটি গঠনে উপজেলা যুবদলের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন পদবঞ্চিত তৃণমূল পর্যায়ের ত্যাগী নেতাকর্মীরা। পদবঞ্চিত ত্যাগী নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেন, টঙ্গিবাড়ীর বেশিরভাগ ইউনিয়নে যুবদলের কমিটি গঠনে টাকার লেনদেন হয়েছে। উপজেলা যুবদল সভাপতি শামীম মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক আলমগীর অনৈতিকভাবে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। তৃণমূল নেতাকর্মীর কাছ থেকে ওই দুই নেতার টাকা হাতানোর ঘটনার জেরে সিনহার বাসভবনে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে রোববার সারাদিন জেলার টঙ্গিবাড়ী উপজেলাজুড়ে বিএনপি-যুবদল ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে তোলপাড় চলে।


এদিকে জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সম্রাট জানান, সংঘর্ষ, হাতাহাতি ও চেয়ার ছোড়াছুড়ি এবং কমিটি গঠনে টাকা লেনদেনের ঘটনা খতিয়ে দেখতে জেলা যুবদল সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকুলকে প্রধান করে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী সাত দিনের মধ্যে সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহার কাছে কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন পেশ করা হবে। রোববার দুপুরে যুবদলের জেলা নেতৃবৃন্দ তদন্ত কমিটি গঠনের পাশাপাশি অর্থ লেনদেনের ঘটনায় টঙ্গিবাড়ী উপজেলা যুবদল সভাপতি শামীম মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক মো. আলমগীরের কাছে জবাব চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠিয়েছেন। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে তাদের শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

সমকাল

Leave a Reply