বিসিসিআইজের সাধারণ সভা : রাষ্ট্রদূতকে সংবর্ধনা

rm09রাহমান মনি
বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ইন জাপান (বিসিসিআইজে) বা বাংলাদেশ বণিক সমিতি জাপান-এর পক্ষ থেকে জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাসে নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনকে সংগঠনের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। পদাধিকার বলে এবং গঠনতন্ত্র অনুযায়ী রাষ্ট্রদূত সংগঠনের প্রধান পৃষ্ঠপোষক এবং সাধারণ সভার প্রধান অতিথি।

১৪ ডিসেম্বর শুক্রবার শিনাগাওয়া গুস হোটেলে রাত ৭টায় এক সাধারণ ও মতবিনিময় সভায় এ সংবর্ধনা দেয়া হয়। সাধারণ সভায় অর্ধশত ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ছাড়াও সংবাদকর্মী এবং দূতাবাস কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

সারোয়ার সানী এবং সুখেন ব্রহ্ম’র সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভার শুরুতে সাম্প্রতিক তাজরীন গার্মেন্টসে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত এবং ১৯৭১ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন শেষে চিফ পেট্রোলকে সংগঠন থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে বরণ করে নেয়া হয়।

বিসিসিআইজের আহ্বায়ক জিয়াউল ইসলামের সভাপতিত্বে সভার প্রথমেই ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ রাষ্ট্রদূত মহোদয়ের কাছে স্ব স্ব পরিচয় প্রদান করেন। পরিচিতি পর্ব শেষে আহ্বায়ক জিয়াউল ইসলাম বিগত দিনে সংগঠনের কার্যক্রম তুলে ধরে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। এই সময় বিভিন্ন অপারগতা তুলে ধরে সদস্যদের কাছে বিগত দিনে কোনো ভুলত্রুটি থেকে থাকলে তার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

২০০৬ সালের ১৬ ডিসেম্বর ১১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি নিয়ে বিসিসিআইজে যাত্রা শুরু করে। জিয়াউল ইসলামকে আহ্বায়ক করে ৬ মাস সময় বেঁধে দেয়া হয় পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার জন্য। সেই থেকে ২০১২ ডিসেম্বর ১৪ অর্থাৎ পুরো ৬ বছর। এর মধ্যে বার বার উদ্যোগ নিয়েও আহ্বায়ক কমিটি নির্বাচন আয়োজনে ব্যর্থ হয়। সর্বশেষ ২৮ জানুয়ারি টোকিওর মিনাতো-কু গ্রান্ডপার্ক তামাচি হাইটস-এ নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। নির্বাচন হওয়ার সমস্ত প্রস্তুতিও ছিল। তিন সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে সেই নির্বাচনও সম্ভব হয়নি। একটি মহল নির্বাচন হতে বাধা সৃষ্টি করে। উক্ত মহলটি এর আগেও বাধা সৃষ্টি করেছিল নির্বাচন আয়োজনে। দূতাবাসও অসহযোগিতা করেছে নির্বাচন আয়োজনে। একাধিক সূত্র জানায়, সংগঠনের গঠনতন্ত্রে দূতাবাসকে সংযুক্ত করায় গঠনতন্ত্র ত্রুটিযুক্ত ছিল। তাই দূতাবাসের অযাচিত হস্তক্ষেপ যেন না হয় সে জন্য সবার আগে গঠনতন্ত্রের পরিবর্তন আনা উচিত।

এত কিছুর পরও বর্তমান স্টিয়ারিং কমিটি সবচেয়ে বড় সাফল্য অল্প সময়ের মধ্যে তারা সংগঠনটিকে জাপান সরকারের নিবন্ধন করতে সক্ষম হয়েছে। জিয়াউল ইসলামের নেতৃত্ব বর্তমান কমিটি এই কাজটি করাতে সক্ষম হন।

গঠনতন্ত্র পরিবর্তন করার কাজটি সহজ করে দিয়েছেন রাষ্ট্রদূত স্বয়ং। সংবর্ধনার জবাবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি দৃঢ় কণ্ঠে বলেন, ‘আমাকে যদি আপনারা বদলি করার ব্যবস্থা নেন এবং চাকরি ছেড়ে যদি চলেও যেতে হয় তবু দূতাবাস আমি থাকা অবস্থায় নির্বাচনের কোনো ব্যবস্থা নিবে না। বিসিসিআইজে আপনাদের সংগঠন। কাজেই নির্বাচন বা যে কোনো সিদ্ধান্ত আপনাদের নিতে হবে। দূতাবাস নিবে না। আপনারা দূতাবাসকে ডাকেন, পরামর্শ চান সেই ক্ষেত্রে দূতাবাস আপনাদের পার্শ্বে থাকবে। তবে কাজগুলো করতে হবে কিন্তু আপনাদেরই। নেতৃত্ব বেছে নিতে হবে নিজেদেরকেই।’ রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, দূতাবাস ডিক্টেটর হিসেবে কাজ করবে না। ডিক্টেটর হিসেবে কাজ করলে ফল ভালো হয় না। রাষ্ট্রদূত বলেন, সব কাজেই দূতাবাসকে না জড়ানোই ভালো। কম জড়ানো আপনাদের জন্য ভালো, দূতাবাসের জন্য ভালো এবং তা দেশের জন্যও ভালো। কারণ দূতাবাস দেশের প্রতিনিধিত্ব করে। সব বিতর্কের ঊর্ধ্বে রাখাই ভালো।

নির্বাচন নিয়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, সংগঠনের শুরুতে নির্বাচনে না গিয়ে সিলেকশনের মাধ্যমে কমিটি করা যায় কিনা সেদিকে চিন্তা করা যেতে পারে। একটা ভিত গড়ার পর নির্বাচন হতে পারে এবং নির্দিষ্ট মেয়াদ পর ক্ষমতা হস্তান্তরের বিধান থাকতে পারে। তিনি বলেন, পুরনোদের সঙ্গে নতুনদের সংমিশ্রণ করে এক বছরের জন্য একটি এডহক কমিটি করে তাদের দায়িত্ব দেয়া যেতে পারে। যাদের অন্যতম দায়িত্ব হবে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের আয়োজন করে নতুনদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করা। তবে সবকিছুই করতে হবে আপনাদের থেকেই। দূতাবাস কিছুই করে দিবে না। দূতাবাসকে সবকিছুর ঊর্ধ্বে রাখতে হবে।

মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন দাবি-দাওয়া, প্রস্তাব এবং পরামর্শ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন এজাজুল হোসেন তালুকদার, আজিজুল ইসলাম, মীর জাফরুল ইসলাম, মোবারক হোসেন হৃদয়, খোকন নন্দী, জাকির হোসেন মাছুম, এমডি এস ইসলাম নান্নু, শহিদুল ইসলাম হিরা, সাকুরা সাবের, মীর রেজাউল করিম রেজা, কাজী মাফুজুল হক লাল, বাদল চাকলাদার প্রমুখ।

বক্তারা সর্বশেষ আকাবানে সভায় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নবায়নকৃত সদস্যদের মধ্যে নির্বাচনের আহ্বান জানান। ১৮২ সদস্যবিশিষ্ট বিসিসিআইজের মাত্র ৩৪ জন ২০,০০০ ইয়েন ফি দিয়ে সদস্য নবায়ন করেন বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে। বক্তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বর্তমান স্টিয়ারিং কমিটির একাধিক সদস্য নবায়ন ফি জমা দেননি। নৈতিকভাবে তারা নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় জড়িত কিংবা অংশ নিতে পারেন না।

বক্তারা আরও বলেন, ১৮২ সদস্যের অনেকেই ভুয়া। কেউ কেউ ব্যবসা গুটিয়েছেন, কেউ দেশে চলে গেছেন। আবার কেউ বা পরপারে চলে গেছেন। এখানে এখনও সদস্য আছেন যোগাযোগ ঠিকানায় খোঁজ নিলে তাদের পাওয়া যাবে না। টাকার বিনিময়ে ভিনদেশি লোকের কোম্পানির নাম কিনে বিভিন্ন পদ দেখিয়ে সদস্য হয়েছেন। বক্তারা প্রকৃত ব্যবসায়ী এবং নিয়মিত, কেবল তাদেরই ভোটার করার জোর দাবি জানান। তারা বলেন, এই জন্য আহামরি কোনো বেগ পেতে হবে না। স্থানীয় প্রশাসন বা সিটি অফিস থেকে একটি সনদ নিলেই বোঝা যাবে। তারা বলেন এই প্রক্রিয়ায় এক-তৃতীয়াংশ ভোটার থাকবে কিনা সন্দেহ আছে।

তারা বলেন, এটা অন্য দশটা সামাজিক-সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক কিংবা আঞ্চলিক সংগঠনের মতো নয়। এটা ব্যবসায়ীদের সংগঠন। এখানে কাজ করার সুযোগ আছে। বাংলাদেশে বিনিয়োগে ব্যবসায়ীরাই পারে সবচেয়ে বেশি কাজ করতে। টোকিওসহ জাপানের বিভিন্ন স্থানে সেমিনার/ সিম্পোজিয়াম করে জাপানি ব্যবসায়ী প্রতিনিধি দলসহ অন্যান্য দেশের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় করে বাংলাদেশে বিনিয়োগ ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করতে পারে একমাত্র বণিক সমিতি।

তারা বলেন, কেবলমাত্র নেইম কার্ড বানিয়ে সকলের মাঝে বিলিয়ে নিজ পরিচিতির মানসিকতা ত্যাগ করে যারা কাজ করতে পারবেন তাদেরই নেতৃত্বে আসা উচিত।

এরপর স্বেচ্ছায় কাজ করতে আগ্রহীদের নাম চাওয়া হলে অনেকেই হুমড়ি খেয়ে পড়ে নিজের নামটি লেখানোর জন্য। কেউ কেউ আবার তার পছন্দের নামটিও অন্তর্ভুক্ত করান। এভাবে ২৭টি নাম তালিকাভুক্ত হয় ১৪ ডিসেম্বর সাধারণ সভায়। এর আগে ২০০৬ সালে ১১ সদস্যবিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির একজন সদস্য হিমু উদ্দিন স্বেচ্ছায় কমিটি থেকে সরে দাঁড়ান ব্যবসায়িক ব্যস্ততায় পর্যাপ্ত সময় দিতে পারবে না বলে। এ ছাড়াও আরও দুজন সদস্য নিষ্ক্রিয় হয়ে যান। অবশিষ্ট ৮ সদস্য এবং নতুন ২৭ জন মিলে ৩৫ সদস্যের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয় নির্বাচনী কাজ ত্বরান্বিত করার জন্য।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় ৩৫ জন সদস্যের নাম অন্তর্ভুক্ত থাকলেও এদের মধ্যে যারা নিয়মিত করে আসছে তাদেরকে কমিটিতে রাখা হবে। এছাড়া জাপান আইনে সদস্য সংখ্যা (কমিটির) বাধ্যবাধকতা থাকলে তাও খতিয়ে দেখা হবে। সবকিছুই করতে হবে স্থানীয় আইন মেনে।

কমিটিতে সদস্য সংখ্যা যতজনই হোক না কেন বিসিসিআইজে একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি যাত্রা শুরু করে জাপান বণিক সমিতিতে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করুক এটাই সকলের প্রত্যাশা।

১৪ ডিসেম্বর ’১২ সাধারণ সভায় স্থানীয় প্রবাসী সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। সবশেষে নৈশভোজে সকলে মিলিত হন।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply