কোনো আসামির নাম বললেন না সাক্ষীরা : হুমায়ুন আজাদ হত্যা মামলা

Humayun-azad-sm20130117094746ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক ড. হুমায়ুন আজাদ হত্যা মামলার সাক্ষীরা কোনো আসামির নাম বলেননি। বৃহস্পতিবার মামলার দুই সাক্ষী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এইচএম শফিকুল ইসলাম আশিক ও আগামী প্রকাশনীর স্বত্ত্বাধিকারী ওসমান গণি আদালতে সাক্ষ্য দেন।

এর আগে গত ১ জানুয়ারি মামলার প্রধান সাক্ষী নিহত ড. হুমায়ুন আজাদের ভাই মঞ্জুর কবির আদালতে সাক্ষ্য দেন। তিনিও কোনো আসামির নাম বলেননি।

আদালতে শফিকুল ইসলাম বলেন, “টিভিতে আমি হুমায়ুন আজাদ গুরুতর আহত হওয়ার সংবাদ পাই। এরপর তাকে রক্ত দেওয়ার জন্য প্রথমে আমি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে সিএমএইচে (সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল) যাই।”

আগামী প্রকাশনীর স্বত্ত্বাধিকারী ওসমান গণি বলেন, “হুমায়ুন আজাদের ‘পাক সার জমিন সাদ বাদ’ বইটি আমার প্রকাশনী থেকে বের হয়। ঘটনার সময় আমি ২১ ফেব্রুয়ারির বই মেলায় বসা ছিলাম। সেখানেই আমি সংবাদ পাই। পরে হুমায়ুন আজাদের সঙ্গে প্রথমে সিএমএইচে ও পরে থাইল্যান্ডের ব্যাংককের বামরুদগ্রাদ হাসপাতালে যাই।”

তিনি আদালতকে জানান, মৌলবাদীরা ড. হুমায়ুন আজাদকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে।

এদিকে, সাক্ষীরা কোনো আসামির নাম উল্লেখ না করায় আসামি পক্ষের আইনজীবীরা তাদের জেরা করেননি।

হত্যাকাণ্ডের প্রায় ৮ বছরেরও বেশি সময় পর গত ১ জানুয়ারি মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মো. হাবিবুর রহমান জিন্নাহর আদালতে মামলাটির বিচার চলছে।


আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য দিন ধার্য করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণের সময় কারাগারে আটক মামলার ৪ আসামি জেএমবির সূরা সদস্য মিজানুর রহমান ওরফে মিনহাজ ওরফে শফিক, আনোয়ার আলম ওরফে ভাগ্নে শহিদ, সালেহীন ওরফে সালাহউদ্দিন ও হাফিজ মাহমুদকে আদালতে হাজির করা হয়।

অপর আসামি নুর মোহাম্মদ ওরফে সাবু পলাতক রয়েছেন।

উল্লেখ্য, ২০০৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি অমর একুশে বইমেলা থেকে বাসায় ফেরার পথে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের সামনে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন ড. হুমায়ুন আজাদ।

ঘটনার পর পরই তাকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে সিএমএইচে নেওয়া হয়।

সিএমএইচে প্রায় ২৫ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য ড. হুমায়ুন আজাদকে থাইল্যান্ডের ব্যাংককে বামরুদগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়। সেখানে ৪৭ দিন চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে ওঠেন তিনি ।

এর পর পেন ইন্টারন্যাশনালের আমন্ত্রণে ২০০৪ সালের ৮ আগস্ট জার্মানির মিউনিখে ড. হুমায়ুন। সেখানেই ১২ আগস্ট তিনি মারা যান।

গত ৩০ এপ্রিল সিআইডি-র পরিদর্শক লুৎফর রহমান ওই ৫ আসামিকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করেন।


চার্জশিট দাখিলের মাধ্যমে হত্যাকাণ্ডের ৮ বছর ৩ মাস পর হুমায়ুন আজাদ হত্যা মামলার বিচার শুরু হওয়ার পথ সুগম হয়।

এদিকে, হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীসহ ৫ জন মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

এ মামলায় চার্জশিট দেওয়ার আগেই অন্য একটি মামলায় ফাঁসির রায় কার্যকর হওয়ায় ৫ জনকে এ মামলার চার্জশিট থেকে নাম বাদ দেওয়া হয়।

তারা হলেন- আসামি শায়খ আব্দুর রহমান, আতাউর রহমান সানি, আব্দুল আওয়াল, সিদ্দিকুল ইসলাম ‘বাংলাভাই’ ও খালেদ সাইফুল্লাহ।

২০০৭ সালের ৩০ মার্চ ঝালকাঠির একটি বিচারক হত্যা মামলায় ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

অপরদিকে, অভিযোগ প্রমাণিত হলেও চার্জশিট দাখিলের আগেই মারা যান জনৈক নুরুল্লাহ ওরফে হাফিজ। তাকেও মামলার চার্জশিট থেকে নাম বাদ দেওয়া হয়েছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply