স্বাস্থ্যসেবায় রোবর্টীয় প্রযুক্তি

রাহমান মনি
রোবর্টীয় এই যুগে ভবিষ্যতে জটিল সব স্বাস্থ্যসেবা নিয়ন্ত্রণ করবে রোবর্টীয় পদ্ধতি। একদল জাপানি গবেষকদের গবেষণার ফলাফলে অন্তত তাই বলে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে নতুন নতুন সব জটিল রোগের নাম যেমন জানা যাচ্ছে, তেমনি আবিষ্কার হচ্ছে রোগ প্রতিরোধে চিকিৎসা পদ্ধতি। বড় বড় কোম্পানির পৃষ্ঠপোষকতায় তা হচ্ছে, মিডিয়ার কল্যাণে আমরা জানতে পারছি প্রায়শই।

৮ জানুয়ারি মঙ্গলবার তেমনি একটি খবর জানা গেল টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল তরুণ গবেষকের সম্প্রতি গবেষণার ফলাফল প্রকাশনা আয়োজন থেকে। The University of Tokyo Public Relation Division কর্তৃক সংগঠিত টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তরুণ গবেষকদের অসাধারণ এক কৃতিত্বের ফলাফল আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হয়। ‘Todai Research, On Site’ নামক প্রোগ্রামে দেশবিদেশের নামিদামি সব সাংবাদিক এবং বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আগত গবেষকদের উপস্থিতিতে গবেষণা ফলাফল উপস্থাপন করা হয়।


প্রফেসর য়োশিমুরা শিনোবু, পিএইচডি (Department of Systems Innovation) এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট এগাওয়া মাসাকো, পিএইচডি। গবেষণাপত্র উপস্থাপন করেন, প্রফেসর সাকুমা ইচিরো পিএইচডি (Department of Precision Engineering) এবং ওনো মিনোরু, পিএইচডি (Department of Surgical Sciences)। এরপর উভয়ে বিভিন্ন গবেষক এবং সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। বিস্তারিত জানার জন্য http://www.atre.t.u-tokyo.ac.jp
এরপর আগতদের দুইটি দলে ভাগ করে গবেষণাগার ঘুরিয়ে দেখানো হয়। অধ্যাপক মামোরু মিতসুইশি এবং সহযোগী অধ্যাপক সুগিতা নাওহিকো রোবর্টের সহযোগিতায় কিভাবে চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ন্ত্রণ করা হবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত অবগত করেন। রোবর্টের সহযোগিতায় গজও, ঈঞ স্ক্যানসহ আধুনিক পদ্ধতিগুলো দ্রুত এবং সঠিক নির্ণয়ের মাধ্যমে একই পদ্ধতিতে সূক্ষ্মভাবে চিকিৎসা সেবা দেয়ার পদ্ধতি দেখান আগতদের। তারা বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।


সহযোগী অধ্যাপক নাকাজিমা য়োশিকাজু এবং সহযোগী অধ্যাপক মাসামুনে কেন কম্পিউটারের সহযোগিতায় ভবিষ্যৎ চিকিৎসা পদ্ধতিতে শল্য চিকিৎসায় জটিল অপারেশনগুলো স্বল্প খতের মাধ্যমে সঠিক চিকিৎসা সেবা প্রদান সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করেন।

সহযোগী অধ্যাপক আজুমা তাকাশি রোবর্টিং পদ্ধতিতে নারীদের স্তন ক্যানসার নির্ধারণ করে স্বল্প মূল্যে চিকিৎসা প্রদানের সুবিধা বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, এই রোগে প্রতি বছর পৃথিবী থেকে অনেক নারীর বিদায় নিতে হয়। কেবল জাপানেই প্রতি বছর ৫০ হাজার নারী এই রোগে আক্রান্ত হয়। আমাদের উদ্যোগ হলো অল্প খরচে এবং সঠিক পদ্ধতিতে এই সেবা নারীদের দোরগোড়ায় পৌঁছানো। মায়ের জাতিরা যেন বিনা ভীতিতে এবং স্বল্প মূল্যে চিকিৎসা সেবা পেতে পারেন।

দিনব্যাপী প্রোগ্রাম শেষে অনানুষ্ঠানিক এক নৈশভোজে প্রোগ্রাম সম্পর্কে অধ্যাপক মাৎসুমোতো য়োইচিরো বলেন, আমাদের লক্ষ্য বন্ধুত্বসুলভ, স্বল্প খরচ এবং সঠিক চিকিৎসা সেবা প্রদান। আমরা প্রথমবারের মতো এই উদ্যোগ নিয়েছি। ভবিষ্যতেও এই ধারা অব্যাহত থাকবে। এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসিডেন্টের সিনিয়র উপদেষ্টা স্টিফেন নোরিন বলেন, আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি তার কারণ আমরা চাই আমাদের কাজগুলো বিশ্ব মিডিয়া জানুক। এতে করে অন্যদের সঙ্গে আমাদের একটা যোগসূত্র তৈরি হবে। চিকিৎসা বিজ্ঞান লাভবান হবে। লাভবান হবে সৃষ্টিকুল।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply