ট্রাইব্যুনালের রায়: মুন্সীগঞ্জে বিভিন্ন মানুষের প্রতিক্রিয়া

মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায়ে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের কাছে নানা রকম প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে। কাদের মোল্লার ‍বিরুদ্ধে ৬টির মধ্যে ৫টি অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার পরও ফাঁসির রায় না দিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়ায় বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে।

এ রায় দেশের মানুষের প্রত্যাশিত নয় বলে মনে করছেন জেলার অধিকাংশ মানুষ। জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে বর্তমান সরকারের গোপন যোগসাজশে এ অপ্রত্যাশিত রায় ঘোষণা করা হয়েছে বলে রাজনীতিক, সংস্কৃতি কর্মী, গণমাধ্যম কর্মী, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ তাদের প্রতিক্রিয়ায় এমন অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘‘এই রায়ে হতাশ হয়েছি। প্রত্যাশা ছিল ফাঁসি হবে, কিন্তু তা না হওয়ায় আশা আকাঙ্খা অপূর্ণতা রয়ে গেল।’’


জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতোয়ার হোসেন বাবুল প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, ‘‘যে অপরাধে প্রথম রায়ে ফাঁসি দেওয়া হল, দ্বিতীয় রায়ে সেই এক অপরাধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠছে। এমনিতেই গঠিত ট্রাইব্যুনাল আদালত নিয়েই প্রশ্ন ছিল।’’

মুন্সীগঞ্জ প্রেসকাবের সভাপতি শহীদ ই হাসান তুহিন তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘‘এ রায় জাতির প্রত্যাশিত নয়। এটা প্রহসন ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত। এর দায় বর্তমান সরকারও এড়াতে পারবে না।’’

জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাবেক সদস্য সচিব আরিফ উল ইসলাম বলেন, ‘‘এ রায় মানুষকে হতাশ করেছে। এ রায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে হয়েছে কিনা সেটাও এখন ভাবার বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে।’’


জেলা সম্মিলত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম খোকা বলেন, ‘‘এ রায়ে জাতি খুশি হতে পারেনি। এছাড়া জাতির প্রত্যাশিত আশা-আকাঙ্খার প্রতিফলন হয়নি এ রায়ে।’’

জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার সাইফুল ইসলাম খোকন তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘‘ফাসিঁর রায় ঘোষণা করা হলে খুশি হতাম। রায় প্রত্যাশিত হয়নি।

ব্যবসায়ী আনিছুজ্জামান রুমি বলেন, ‘‘কুখ্যাত এ রাজাকারকে ফাঁসি দেওয়া উচিত ছিল।’’

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply