কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে রায়ে অসন্তুষ্ট মুন্সীগঞ্জবাসী

জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালের যাবজ্জীবন কারাদ-ের রায় নিয়ে মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন পেশা-শ্রেণীর মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তারা বলেছেন, এটি সরকারের কৌশল ও সমঝোতার রায়। কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন কারাদ-ের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের যাবজ্জীবন কারাদ- হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ও তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ বলেন, যেখানে কুখ্যাত রাজাকার কাদের মোল্লা এতোগুলো মানুষ হত্যা করলো এবং ৫টি মামলার অভিযোগ প্রমানিত হলো সেখানে এ রায় যাবজ্জীবন হয় কিভাবে। ফাঁসির রায়ের বিকল্প নেই বলে তিনি মত প্রকাশ করেন।

মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান বলেছেন, এ রায় আমরা মানি না। ফাঁসির রায় হলে জাতির আশা-আকাঙ্খার পরিপূর্ণতা পেত।

জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আতোয়ার হোসেন বাবুল বলেন, ট্রাইব্যুনাল ও রায় দুটি’ই প্রশ্নবিদ্ধ। এটি সমঝোতার রায় হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি শহীদ-ই হাসান তুহিন বলেন, এটি অপ্রত্যাশিত রায়। গণহত্যা প্রমাণিত হলে সে বিচারের রায় যাবজ্জীবন হতে পারে না, মৃত্যুদ- হয়। কুখ্যাত এ হত্যাকারীকে যাবজ্জীবন দিয়ে ট্রাইব্যুনাল জাতিকে হতাশ করেছে।


মুন্সীগঞ্জ ওয়েবজার্নালের সভাপতি আনোয়ার হোসেন আনু বলেন, এটি সমঝোতার রায়। কসাই কাদের মোল্লার যাবজ্জীবন কারাদ-ের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের যাবজ্জীবন কারাদ- হয়েছে।

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-মুন্সীগঞ্জ জেলা শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদিকা হামিদা খাতুন মনে করেন, কুখ্যাত এ রাজাকারের ফাঁসি রায় দেওয়া উচিত ছিল। এটি সরকারের একটি কৌশল বলে মনে করেন।

কবি যাকির সাইদ বলেন, সরকার ও ট্রাইব্যুনাল দুটি’ই জামায়াতকে ভয় পেয়েছে। ওই রাজাকারের ফাঁসির রায় দেয়া উচিত ছিল।

সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সভাপতি এম এ কাদের মোল্লা বলেন, এ রায়ে জাতি হতাশ হয়েছে। এ রায়ের বিপক্ষে সরকারের আপিল করা উচিত।

জাস্ট নিউজ

Leave a Reply