বস্তার ওপর ভর করে বাঁচলো শিশু ফারুক

বেচেঁ যাওয়া ১২ বছরের শিশু ওমর ফারুক ঘটনার সময় তার মা নাছিমা বেগমের সঙ্গে নারায়নগঞ্জ থেকে মতলবে যাচ্ছিল।এ সময় লঞ্চটি ডুবে গেলে তার মা তাকে লঞ্চের জানালা দিয়ে বের করে দেন। এতে বস্তার ওপর ভর করে সে প্রাণে বাচঁলেও তার মা এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।

শুক্রবার দুপুরে উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তমে কান্নাজড়িত কাঁদতে কাঁদতে বাংলানিউজকে এ কথা বলে ওমর ফারুক।

অন্যদিকে, মতলবের কালিবাজার এলাকার শাহাজালাল (৪৭), মতলবের বদরপুর এলাকার শিল্পি আক্তার (২৮), চানদাকান্দি এলাকার মজিবর মাওলানা (৪৫), ব্রাহ্মনচক এলাকার সুমন (২৮) ঘটনার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন।


বিআইডব্লিউটিএ’র পরিচালক মো. আবুল বাসার বাংলানিউজকে জানান, সকাল ১১টা থেকে মেঘনা নদীর গজারিয়ার ইসমানিরচর সংলগ্ন এলাকায় নৌবাহিনীর ডুবুরি দল, বিআইডব্লিউটিএ’র ডুবুরি দল, কোস্টগার্ড, পুলিশ ও নিখোঁজ যাত্রীদের স্বজনরা মেঘনা নদীতে রেকি করে দুপুর ২টার দিকে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি সনাক্ত করেছেন।

নৌবাহিনীর ক্যাপ্টেন রাসেল বাংলানিউজকে জানান, তারা তাদের ডুবুরি দিয়ে ডুবে যাওয়া লঞ্চ থেকে যাত্রীদের লাশ উদ্ধারের কাজে নিয়োজিত রয়েছেন।

এদিকে, দুপুর ২টার দিকে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান খন্দকার সামছুদ্দোহা ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন। এছাড়া মুন্সীগঞ্জে জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল, পুলিশ সুপার সাহাবুদ্দিন খান বিপিএমসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে অবস্থান নিয়ে উদ্ধার তৎপরতার তদারকি করছেন।

তাদের সঙ্গে গজারিয়া উপজেলা প্রশাসন ও চাদঁপুরের মতলব উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে অবস্থান নিয়ে উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

দুপুর আড়াইটার দিকে এ পর্যন্ত ২ নারী ও ১ শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

কাজী দীপু, জেলা সংবাদদাতা
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply