টঙ্গীবাড়ী সাব-রেজেষ্ট্রি অফিসের অনিয়ম ও দূর্নীতি

ব.ম শামীম: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলা সাব-রেজেষ্ট্রি অফিসের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি অফিস হতে দলিল উধাও, দলিলের তফসিলসহ গুরুত্বপূর্ণ পাতা পরিবর্তন ও অফিস সময়ের পরেও অফিস খোলা রেখে বিভিন্ন দূর্নীতির অভিযোগে দলিল লেখক, এক্রট্টা মোহরা ও স্থাণীয় জনগনের মনে তিব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এনিয়ে প্রায় ১ মাস পূর্বে স্থাণীয় জনগণ সাব-রেজেষ্ট্রি অফিস ঘেরাও করলেও থেমে নেই দূর্নীতি ও অনিয়ম। অফিস সূত্রে জানাগেছে, সাব-রেজিষ্টার রফিকুল ইসলাম ২ জন সাসপেনডেন্ট কর্মকর্তাসহ অদক্ষ অফিস সহকারী অণাথ বাবুকে নিয়ে অফিস পরিচালনায় হিমশীম খাচ্ছেন।


সম্প্রতি উপজেলার পুড়াপাড়া গ্রামের হায়াতুন নেছা একটি রেজেষ্ট্রি অযোগ্য ভূমির হেবা ঘোসনা দলিল লিখক মহাসিন তালুকদার এর মাধ্যমে সম্পন্ন করেন। যাহার দলিল নং ৩৪৯৪; কিন্তু ভূমিটি রেজেষ্ট্রি অযোগ্য (অর্পিত সম্পত্তি) হওয়ার কারনে কতিপয় দূস্কৃতিকারী অফিস সহকারী অণাথ বাবুর মাধ্যমে দলিল লিখকের নামের পাতা পরিবর্তন করে সেখানে দলিল লিখক শাখাওয়াত হোসেন এর নাম ও স্বাক্ষর জাল করে শাখাওয়াত হোসেনকে ফাসিঁয়ে দেয়। এনিয়ে এলাকায় টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এছাড়াও অণাথ বাবুর মাধ্যমে কিছুদিন পূর্বে অফিস হতে দলিল উধাও এর ঘটনা ঘটে এবং তারই সহয়তায় একটি দলিলের তফসিল পরিবর্তন করে এক্রট্টা মোহরা আজম। এ ব্যাপারে আমজকে বহিস্কার করা হয়। তবে সাব-রেজিষ্টার রফিকুল ইসলাম জানান, এক্রট্টা মোহরা আজমের কাছে বলিয়মের কিছু পাতা পাওয়া গিয়েছিলো সেজন্য তাকে বহিস্কার করা হয়েছে।


দলিল লিখকের নামের পরিবর্তন এর বিষয়ে সে জানায়, এটা তদন্ত চলছে, এ ব্যাপারে জেলা রেজিষ্টার ভালো বলতে পারবে। জেলা রেজিষ্টার ভবতোষ ভৌমিক এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে জানায়, বিষয়টি উপড়ে চলে গেছে। সচিব পর্যায়ে তদন্ত চলছে।

অফিস হতে দলিল উধাও এর ঘটনায় সে আরো জানায়, শুনেছি এটা অনেক দিন আগে হয়েছিলো। এ ব্যাপারে এখোন আমার নলেজে কিছু নাই। এর আগেও অফিস সহকারী অণাথ বাবুর বিরুদ্ধে একাধিক পত্রিকায় নিউজ আসলেও সে বহাল তবিয়তে রয়েছে।

বাংলাপোষ্ট২৪

Leave a Reply