আধুনিক কায়দায় মুন্সীগঞ্জে পৌছে যাচ্ছে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন পত্র !

মুন্সীগঞ্জে একের পর এক আধুনিক কায়দায় মোবাইলের মাধ্যমে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সদ্য সমাপ্ত বাংলা, গনিত ও ইংরেজী প্রথম পত্র বিষয়ের প্রশ্ন পত্র ফাঁস হওয়ার পর এবার ইংরেজী দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্নপত্রও ফাঁস হয়ে গেছে। সোমবার ইংরেজী প্রথম পত্রের ‘ক’ ও খ সেটের দু’টি প্রশ্ন পত্র ফাঁস হয়ে যায়। গতকাল মঙ্গলবার ইংরেজী প্রথমপত্র পরীক্ষা চলে। এতে দেখা যায়, আগেই ফাঁস হওয়া ‘খ’সেটের প্রশ্নটি হুবহু মিলে যায়। আগামী ১৪ ই ফেব্রুয়ারি ইংরেজী দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা হবে। গতকাল মঙ্গলবার ইংরেজী প্রথম পত্রের পরীক্ষার শেষ হওয়ার পরপরই দ্বিতীয় পত্রের ৬০ মার্ক প্রশ্নপত্র মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কতিপয় পরীক্ষার্থীর কাছে পৌছে গেছে। ব্যাকারণ বিষয়ের বাকি ৪০ মার্কের প্রশ্নপত্রও আজকের মধ্যে চলে আসবে বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।


নাম প্রকাশ না করার শর্তে সূত্রটি জানান, এ প্রশ্ন পত্র পরীক্ষার্থীদের হাতে পৌছে যাচ্ছে মাত্র ১১’শ টাকা থেকে দেড়-হাজার টাকার বিনিময়ে। সোমবার জেলা সদরের বিভিন্ন এলাকায় পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ইংরেজী প্রথম পত্রের ‘ক’ ও ‘খ’ সেটের প্রশ্ন পত্র ফাঁস হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার অন্তত ২-৩ দিন আগে। ফাস হওয়া ইংরেজী প্রথম পত্রের ‘খ’ সেটের প্রশ্নের সঙ্গে বোর্ড নির্দেশিত মূল প্রশ্নের মিল খুঁজে পাওয়া যায়। এতে প্রশ্ন পত্র ফাঁসের খবরটি এখন আর গুজব নেই-এটি সত্যি খবর হয়ে উঠেছে। এর আগে সদ্য সমাপ্ত বাংলা ও গনিত ও ইংরেজী প্রথম পত্র বিষয়ের পরীক্ষা শেষে দেখা গেছে- মূল প্রশ্ন পত্রের সঙ্গে প্রশ্নপত্রের সঙ্গে হুবুহু মিল থাকায় ইংরেজী দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্ন আগাম কিনে তাতেই পড়াশোনায় মনযোগী হয়ে উঠেছে পরীক্ষার্থীরা।


সূত্রটি আরও জানান, ঢাকা বোর্ডেও কতিপয় কর্মকর্তা ও রাজধানীর একটি সিন্ডিকেট এ প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত। ওই সিন্ডিকেট মুন্সীগঞ্জসহ আশপাশ জেলাগুলোতে প্রশ্ন পত্র বিক্রি করে আসছে। এসএসসি পরীক্ষার্থীদের মাঝে ফাঁস হওয়া প্রশ্ন সংগ্রহের বেশ তোড়জোড় চলছে। ফাঁস হওয়া প্রশ্ন পত্র মাত্র ১ হাজার ১’শ টাকা থেকে ১ হাজার ৫’শ টাকায় কিনে আনছেন পরীক্ষার্থীরা। আবার একজন পরীক্ষার্থীর হাতে প্রশ্ন পৌঁছতেই আরেক পরীক্ষার্থী সেই প্রশ্নের ফটোকপি করে নিচ্ছে। এতে করে সর্বত্রই ছড়িয়ে পড়ছে প্রশ্নপত্র। আর ওই প্রশ্নপত্র অনুযায়ী প্রস্তুতি নিচ্ছে কতিপয় পরীক্ষার্থীরা। এ কারণে মেধাবী শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, তাদের মেধার সঠিক মূল্যায়নে বাঁধাগ্রস্ত হতে হচ্ছে। মেধাবী পরীক্ষার্থীদের দাবি- মেধা যাচাইয়ের জন্য অন্য সেটের মাধ্যমে পরীক্ষার প্রশ্নপত্র করা হোক। প্রশ্ন পত্র ফাঁসের কথা অস্বীকার করেছেন সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আনন্দময় ভৌমিক। তিনি মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের জানান, মুন্সীগঞ্জে প্রশ্ন পত্র ফাঁস হওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই। এটা নিছক গুজব।

জাস্ট নিউজ

Leave a Reply