মুন্সীগঞ্জে দিগন্ত ও ইসলামিক টিভির সম্প্রচার বন্ধ

তোপের মুখে মঙ্গলবার দুপুরে শহরে দিগন্ত টেলিভিশন ও ইসলামিক টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ক্যাবল টিভি অপারেটররা দুপুর ১ টা ৪০ মিনিটের সময় তাদের কন্ট্রোল রুম থেকে ওই দু’টি টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ করে। আওয়ামী-মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সোহাগ জানান, শহরের থানারপুল এলাকাস্থ মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্য অংকুরিত যুদ্ধ ৭১’র পাদদেশে চলমান গণ-আন্দোলনে জামায়াত মালিকানাধীন দিগন্ত টেলিভিশন ও ইসলামী টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধের দাবি উঠে।


এতে মঙ্গলবার দুপুরে তারা ক্যাবল টিভি অপারেটরদের সঙ্গে সাক্ষাত করে ওই দু’টি টিভির সম্প্রচার বন্ধের দাবি জানান। পরে টিভি দু’টির সম্প্রচার বন্ধ করে দেওয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন শহরের সুপার মার্কেটের ক্যাবল টিভি অপারেটর আনোয়ার হোসেন। তিনি জানান, রাজাকারদের ফাঁসির দাবিতে আন্দোলনরত প্রজন্মেও দাবির মুখে দুপুরে দিগন্ত ও ইসলামী টিভির সম্প্রচার বন্ধ করতে বাধ্য হই।

জাস্ট নিউজ
============

মুন্সীগঞ্জে দিগন্ত ও ইসলামিক টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ

মুন্সীগঞ্জ জেলা সদরে দিগন্ত টেলিভিশন ও ইসলামিক টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ কাদের মোল্লাসহ সব যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির দাবিতে সোচ্চার আন্দোলনকারীদের দাবির মুখে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুর ১টা থেকে স্থানীয় ক্যাবল টিভি অপারেটররা তাদের কন্ট্রোল রুম থেকে ওই দুটি টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ করে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

নাগরিক ঐক্য মঞ্চের ব্যানারে এক সপ্তাহ ধরে কাদের মোল্লাসহ সব রাজাকারের ফাঁসির দাবিতে মুন্সীগঞ্জে রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, গণমাধ্যম কর্মীসহ বিভিন্ন সংগঠন আন্দোলন করে আসছে। এসব সংগঠনগুলো একাত্মতা ঘোষণা করে বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে শহরের থানারপুল এলাকাস্থ মুক্তিযুদ্ধ ভাস্কর্য অংকুরিত যুদ্ধ ৭১’র পাদদেশে সরগরম করে রেখেছেন।

আওয়ামী-মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সোহাগ বাংলানিউজকে জানান, চলমান গণ-আন্দোলনে জামায়াত মালিকানাধীন দিগন্ত টেলিভিশন ও ইসলামী টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধের দাবি উঠেছিল। তাই এ দুটি চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধ রাখার জন্য ক্যাবল অপারেটরদের বলা হয়েছে।


ক্যাবল অপারেটর মালিক ঝিন্টু মিয়া বাংলানিউজকে জানান, সরকারিভাবে বন্ধ করার জন্য কোনো চিঠি দেওয়া হয়নি। রাজাকারের ফাঁসির দাবিতে সোচ্চার আন্দোলনকারীরা চ্যানলেটি বন্ধ রাখা হয়েছে।

অপর ক্যাবল অপারেটর আনোয়ার হোসেন বাংলানিউজকে জানান, কাদের মোল্লাসহ সব রাজাকারের ফাঁসির দাবিতে আন্দোলনকারীদের দাবির মুখে চ্যানেল দুটি স্থানীয়ভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। কবে, কখন আবার চালু করা হবে তা তিনি জানাতে পারেননি।

এ প্রসঙ্গে সদর থানার উপ পরির্দশক (এসআই) সুলতানউদ্দিন বাংলানিউজকে জানান, ২টি চ্যানেল বন্ধ রাখার বিষয়টি ক্যাবল অপারেটর ও আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে পুলিশকে কিছুই জানানো হয়নি।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply