পদ্মা বাস্তবায়নের সময়সূচি প্রকাশ শিগগিরই: মুহিত

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে ‘অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক (জুলাই-ডিসেম্বর) পর্যন্ত বাজেটের বাস্তবায়ন অগ্রগতি ও আয়-ব্যয়ের গতিধারা এবং সামষ্টিক অর্থনৈতিক বিশ্লেষণ’ বিষয়ক প্রতিবেদন উপস্থাপনের সময় এ তথ্য জানান অর্থমন্ত্রী। এ সময় মালয়েশিয়াও পদ্মা সেতু নির্মাণে ভারতের মতো সহায়তা দিতে পারে বলে আশাপ্রকাশ করেন তিনি।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য সরকার ভারতের কাছ থেকে ২০০ মিলিয়ন ডলারের সহায়তার অঙ্গীকার পেয়েছে, যার মধ্যে ১০০ মিলিয়ন ডলারের চেক হাতে এসেছে বলে জানান তিনি।

সরকার পদ্মা সেতু প্রকল্প নিজ খরচে বাস্তবায়ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, সেতু নির্মাণে মোট ব্যয় হবে বৈদেশিক মুদ্রায় ১৬ হাজার ২১০ কোটি টাকা এবং স্থানীয় মুদ্রায় আরো ৬ হাজার ৯০৪ কোটি টাকা।

তিনি বলেন, “এর মধ্যে এ অর্থবছর শেষে আমাদের বাজেট বরাদ্দ প্রায় ২৩০০ কোটি টাকা। বাকী ২০ হাজার কোটি টাকা আগামী চার বছরে আমাদের বাজেট বরাদ্দের মাধ্যমেই খরচ হবে।


“সেজন্য সময়সূচি ও বার্ষিক হিসাব শীঘ্রই সর্বসাধারণের জন্য প্রকাশ করা হবে।”

গুরুত্বপূর্ণ এই প্রকল্পের জন্য বাজেটে বার্ষিক পাঁচ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়ার মতো দেশের অর্থনীতির সক্ষমতা তৈরি হয়েছে বলে দাবি করেন অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ ইতিমধ্যে ১৩ দশমিক ৮০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে। আমাদের পদ্মা সেতু নির্মাণের সামর্থ্য অবশ্যই আছে। আমাদের জনগণও সম্ভবত এই সম্পদ যোগানে অংশগ্রহণ করবে।”

পদ্মা সেতু নির্মাণে প্রকৌশল সহায়তা নিতে আন্তর্জাতিক উপদেষ্টাগোষ্ঠীর সাহায্য নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এসময় পদ্মা প্রকল্প থেকে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বাতিল বিষয়েও বক্তব্য রাখেন অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের সম্মতিতেই এ প্রকল্প থেকে তাদের অর্থায়ন বাদ দেওয়া হয়েছে। এতে বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কের মধ্যে কোনো চিড় ধরবে না।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর

Leave a Reply