টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে প্রতারক গ্রেপ্তার

28483_Photo0721মধ্যপ্রাচ্যে প্রবাসী বাংলাদেশিদের জিম্মি করে দেশে স্বজনদের কাছ থেকে মোটা অংকের অর্থ আদায় করছে কিছু প্রতারকচক্র। মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের তেমন একটি চক্র গত তিন মাসে আদায় করেছে ২৮ লাখ টাকা। রিবারের স্বচ্ছলতা ফেরানোর স্বপ্ন নিয়ে মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী তরুণরাই হচ্ছেন এ প্রতারণার শিকার। বর্তমানে প্রতারক চক্রটির হাতে জিম্মি রয়েছে বিভিন্ন জেলার ২৫ প্রবাসী। তাদেরই একজন কঙবাজারের মহেষখালী উপজেলার কুতুবজুমের আসহাব উদ্দিন (৩০)।

আসহাবের ভাই ছমিউদ্দিন জানান, দেড় বছর আগে ভাগ্য অন্বেষণে তিনি গিয়েছিলেন মধ্যপ্রাচ্যের দেশ আরব আমিরাতে। কিন্তু সেখানে অমানুষিক পরিশ্রমের পরও পেতেন না প্রাপ্য মজুরি। একপর্যায়ে উন্নত জীবনের আশায় পা দেন আরেক প্রতারক চক্রের ফাঁদে।

তুরস্ক, সাইপ্রাসসহ ইউরোপের নানা দেশে পাঠানোর কথা বলে প্রতারকচক্র চলতি বছরের ২ জানুয়ারি তাদের কয়েকজনকে দুবাই থেকে নিয়ে যায় অপরিচিত এক জায়গার গোপনস্থানে। তারপর সেখানে নিয়ে তাকে মারধর করে বলা হয়, দেশে তিন লাখ টাকা দেয়া না হলে তাকে মেরে ফেলা হবে।

আসহাব উদ্দিনকে মারধর করে মোবাইলে সে শব্দ শোনানো হয় তার পরিবারের সদস্যদের। অন্য জিম্মিদেরও একইভাবে নির্যাতন করে দেশে পরিবারের কাছে চাঁদা দাবি করা হয়। মারধর ও ভয়ভীতি দেখিয়ে চাপ দেয়া হয় স্বজনদের।

প্রতারকচক্র তাদের অবস্থান কখনো তুরস্ক সীমান্ত, কখনো ওমানে বলে জানায়। এদিকে আসহাব উদ্দিনের পরিবার প্রতারকদের কথা মতো ইসলামী ব্যাংক-মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলা শাখার একটি নাম্বারে (২০৫০৩০৭০২০০৪০০৭০৯) চলতি বছরের ৪ জানুয়ারি ইসলামী ব্যাংকের কঙবাজার সদর শাখা থেকে তিন লাখ টাকা পরিশোধ করে।

তারপরও আসহাব উদ্দিনকে ছেড়ে না দিয়ে ফের তিন লাখ টাকা ইসলামী ব্যাংকের কুমিল্লার দাউদকান্দি শাখার (২৬৫৬) ও ভোলা জেলা সদর শাখার (৩৬১৬) নাম্বারে পরিশোধের কথা বলে। এ দুটি একাউন্টের অনুকূলে দুটি মোবাইল নাম্বারও (দাউদকান্দি-০১৬৭১০২০৬৯২) এবং (ভোলা- ০১৭৭৮২৮৫৫২২) দেয়া হয়।

এ ঘটনায় আসহাব উদ্দিনের ছোটভাই ছমি উদ্দিন বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে গত ৮ মার্চ মহেশখালী থানায় মানবপাচারের একটি মামলা (মামলা নং-৮/২০১৩) দায়ের করেন। সে মামলার প্রেক্ষিতে মহেশখালী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার অনুরোধে শ্রীনগর থানা পুলিশ প্রতারক চক্রের সদস্য প্রধান আসামি জলিল শেখকে ১২ মার্চ দুপুর ১টার দিকে শ্রীনগর বাজারের ইসলামী ব্যাংক শাখা থেকে গ্রেপ্তার করে।

জলিল শেখ শ্রীনগর উপজেলার পাটাভোগ ইউনিয়নের ফয়েনপুর গ্রামের প্রয়াত সিদ্দিক শেখের ছেলে। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানায়, জলিল শেখ আরেক প্রতারিত ব্যক্তির স্বজনদের পাঠানো টাকা তুলতে গিয়েছিল ব্যাংকে।

ইসলামী ব্যাংক শ্রীনগর শাখার দেয়া প্রতারক জলিল শেখের ব্যাংক হিসাব বিবরণীতে দেখা গেছে, ২০১২ সালের ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ২৫ মার্চ পর্যন্ত ৩ মাসে লেনদেন হয়েছে ২৮ লাখ টাকা। এসব টাকা এসেছে দেশের বিভিন্ন জেলার ইসলামী ব্যাংকের শাখা থেকে।

যার মধ্যে ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ শাখা থেকে ২ লাখ, সুনামগঞ্জের ছাতক শাখা থেকে ৩ লাখ, ২০১৩ সালের ৪ জানুয়ারি কঙবাজার সদর শাখা থেকে ৩ লাখ, ৬ জানুয়ারি লক্ষ্মীপুরের রায়পুর শাখা থেকে ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা, ৩ ফেব্রুয়ারি গাইবান্ধা শাখা থেকে ১ লাখ, ৭ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইল শাখা থেকে ৩ লাখ, ১০ ফেব্রুয়ারি মৌলভীবাজারের কুলাউড়া শাখা থেকে দেড় লাখ, ২০ ও ২৫ ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহের ত্রিশাল শাখা থেকে ১ লাখ ও ১ লাখ ৪৫ হাজার এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি রংপুরের ধাপ শাখা থেকে ১ লাখ টাকা জলিল শেখের একাউন্টে জমা হয়েছে।


তবে সব টাকাই সে ইতিমধ্যে তুলে নিয়েছে। জিম্মিদের আরেকজন কুমিল্লার মুরাদনগরের জজ মিয়া। তার স্ত্রী রেনু বেগম জানান, দুবাই থেকে তাকেও তুর্কি নেয়ার কথা বলে গোপনস্থানে নিয়ে আটকে রাখার পর প্রথমে আড়াই লাখ টাকা দাবি করা হয়।

ফেব্রুয়ারি মাসে অগ্রণী ব্যাংক ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা শাখায় এ অর্থ পাঠানো হয়। কিন্তু পরে তাদের কাছে আরও ৫ লাখ দাবি করা হয়েছে। আরেক জিম্মি মৌলভীবাজারের জুড়ি উপজেলার আবুল কাশেম। তার ভাই মোহরম আলী জানান, দেড় মাস আগে তার ভাইকে দুবাই থেকে অজ্ঞাতনামা স্থানে নিয়ে তাদের কাছে টাকা দাবি করা হয়।

ইতিমধ্যে তিনিও দেড় লাখ টাকা জলিল শেখের একাউন্টে পরিশোধ করেছেন। শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মিজানুর রহমান জানান, মহেশখালী থানার মামলার প্রেক্ষিতে প্রতারক জলিল শেখকে ব্যাংক থেকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে বুধবার সকালে মুন্সীগঞ্জ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রবাসে অনেক প্রতারক চক্র প্রবাসীদের জিম্মি করে দেশে আত্মীয়স্বজনের কাছে মোটা অংকের অর্থ আদায় করে। তাতে জিম্মি প্রবাসীর পরিবারের শেষ সম্বলটুকুও হারাতে হয়।

জাস্ট নিউজ

Leave a Reply