মুন্সিগঞ্জ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে পড়ালেখার মান নিয়ে প্রশ্ন

১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় মুন্সিগঞ্জ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়। বিদ্যালয় থেকে এযাবৎকালে মাত্র একজন শিক্ষার্থী পেয়েছে জুনিয়র বৃত্তি। গ্রেডিং পদ্ধতি চালু হওয়ার পর থেকে ২০১০ সালে এসএসসি পরীক্ষায় মাত্র দুজন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর আগে নম্বর পদ্ধতিতে এসএসসি পরীক্ষায় স্টার মার্কস-প্রাপ্ত শিক্ষার্থী নেই কেউ। নিয়মিত এই ফলাফল বিপর্যয়ে পড়ালেখার মান নিয়ে প্রশ্ন উঠছে অভিভাবক মহলে।

এদিকে ছয় বছর ধরে প্রধান শিক্ষক ছাড়াই চলছে শিক্ষা কার্যক্রম। এ ছাড়া বিদ্যালয়ের অবকাঠামোগত সমস্যার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নানাবিধ সমস্যা।

বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা অভিযোগ করেন, প্রধান শিক্ষক নেই দীর্ঘদিন ধরে। পাশাপাশি বিদ্যালয়ে পর্যাপ্ত শিক্ষক না থাকায় খণ্ডকালীন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান করতে হচ্ছে। বিদ্যালয়ের স্টাফ রুম, শ্রেণীকক্ষসহ ছয়টি কক্ষের অবস্থা খুবই নাজুক। কক্ষগুলোর সিলিংয়ের পলেস্তারা খসে পড়ে রড বেরিয়ে এসেছে। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে।


বিদ্যালয় থেকে জানা যায়, মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার কোটগাঁও এলাকায় মুন্সিগঞ্জ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। এমপিওভুক্ত ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বর্তমানে ছাত্রীসংখ্যা প্রায় সাড়ে বারো শ। শ্রেণীকক্ষ রয়েছে ১৩টি। বর্তমানে স্থায়ী শিক্ষক রয়েছেন মাত্র ১২ জন। প্রধান শিক্ষকের পদটি ২০০৭ সালের জুলাই থেকে শূন্য হওয়ার পর ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম। এ পর্যন্ত ছয়জন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। স্থায়ী শিক্ষকদের সঙ্গে আটজন খণ্ডকালীন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান চলছে। বিদ্যালয়ে শারীরিক শিক্ষা ও গার্হস্থ্য অর্থনীতির জন্য শিক্ষকের কোনো পদ নেই।

বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পরে সর্বশেষ ২০১০ সালে অষ্টম শ্রেণীতে জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষায় একজন বৃত্তি পায়। ওই বছরই এসএসসিতে দুজন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পায়। বিদ্যালয়ে প্রতিবছর পাসের গড় হারও হতাশাজনক।

২০০৭ সালে এসএসসি পরীক্ষায় মোট ১২৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নিলেও পাস করে মাত্র ৬১ জন। ২০১০ সালে দুজন জিপিএ-৫ পেলেও ১৯৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করে ১৩৩ জন। ২০১১ সালে ১৯৬ জনের মধ্যে পাস করে ১০৫ জন। সর্বশেষ ২০১২ সালে ১৮১ জনের মধ্যে পাস করে ১২৬ জন।


একাধিক অভিভাবক অভিযোগ করেন, দীর্ঘ সময় ধরে প্রধান শিক্ষকের পদ শূন্য থাকা, শিক্ষকের সংকট, শ্রেণীকক্ষের সমস্যাই ফলাফল বিপর্যয়ের মূল কারণ। বর্তমানে শিক্ষাব্যবস্থার আধুনিকায়নের কারণে জিপিএ-৫ পাওয়া নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতা চলে। প্রায় ৯০ শতাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যেই এই প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব রয়েছে। অথচ এই যুগে এসেও মুন্সিগঞ্জ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে ফলাফল বিপর্যয় ও জিপিএ-৫ প্রাপ্তির হার হতাশাজনক।

তবে শিক্ষকেরা জানান, ‘আমাদের পাঠদান পেয়ে ছাত্রীরা একটু ভালো করলে অন্য প্রতিষ্ঠানে চলে যায়। আবার বার্ষিক পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ হলে পাস করিয়ে সেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন অভিভাবকেরা। এতে তাদের বাধ্য হয়ে ওপরের ক্লাসে উঠিয়ে দেওয়া হয়। ওই শিক্ষার্থীরাই এসএসসিতে খারাপ ফলাফল করে।’

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কৃষ্ণ চন্দ্র দাস বিদ্যালয়ের ফলাফল হতাশাজনক স্বীকার করে জানান, ছাত্রীদের পড়ালেখায় একটু ভালো করে তুললে তারা পাশের সরকারি স্কুলে চলে যায়। শিক্ষকের চাহিদা মেটাতে আটজন খণ্ডকালীন শিক্ষক দিয়ে পাঠদান চালানো হচ্ছে। এদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বর্তমান পরিপত্র অনুসারে নতুন করে স্থায়ীভাবে শিক্ষক নেওয়া যাচ্ছে না। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, স্টাফ রুম, শ্রেণীকক্ষসহ ছয়টি কক্ষের অবস্থা খুবই করুণ। বড় ধরনের দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে যেকোনো সময়। শিগগিরই এবার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানান।

তানভীর হাসান – প্রথম আলো

Leave a Reply