প্রতিবাদ সভায় প্রবাসী নেতৃবৃন্দ

রাহমান মনি
বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর অব্যাহত নির্যাতন, লুটপাট, বাড়ি-ব্যবসা প্রতিষ্ঠান- মন্দির- উপাসনালয়ে অগ্নিসংযোগসহ সকল প্রকার ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে টোকিওতে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপানের আহ্বানে দল-মত, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে প্রগতিশীল সকল প্রবাসী বাংলাদেশিরা দূর-দূরান্ত থেকে ১০ মার্চ-এর প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত হয়ে অমানবিক ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে নিন্দা জানিয়ে নির্যাতিতদের পাশে দাঁড়ানোর সংকল্প ব্যক্ত করে সহমর্মিতা প্রকাশ করেন।

টোকিওর তোশিমা সিটির সেইকাৎসু সানগিও প্লাজা হলে সান্ধ্যকালীন এই প্রতিবাদ সভায় টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন সস্ত্রীক উপস্থিত থেকে প্রবাসীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন। রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বাংলাদেশ সরকার, দূতাবাস এবং ব্যক্তিপক্ষ থেকে এই অনাকাক্সিক্ষত ঘটনাবলীর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, এসব অনাকাক্সিক্ষত ঘটনাবলী যেন আর এগুতে না পারে সেই জন্য আমাদের সবাইকে সম্মিলিতভাবে একযোগে কাজ করতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে বাংলাদেশ সবার দেশ। এখানে আমাদের প্রতিবেশী যদি নির্যাতিত হন তার দায়ভার আমাদের ওপরই পড়ে। আর যেন একটি ঘটনাও না ঘটতে পারে সেই জন্য প্রবাসীদের সকলের নিকটজনদের কাছে ফোন করে বলে দেয়ার অনুরোধ জানানো হয়।


প্রতিবাদ সভায় প্রবাসীদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন ড. কিশোর কান্তি বিশ্বাস, মুনশী খ. আজাদ, আব্দুর রহমান খান, আব্দুর রাজ্জাক, গৌতম মণ্ডল, শেখ ওয়াজির আহমেদ, নাজিম উদ্দিন, শরাফুল ইসলাম, নন্দকুমার মণ্ডল, ছালেহ্ মোঃ আরিফ, সুনীল চন্দ্র রায়, মোঃ মাসুদ আলম, রায়হান কবির ভূইয়া, কাজী ইনসানুল হক, খন্দকার আসলাম হীরা, মোঃ আলমগীর হোসেন মিঠু, মোঃ মোফাজ্জল হোসেন, নাসিরুল হাকিম, মাসুদুর রহমান, তানিয়া ইসলাম, খোকন নন্দী, কাজী আসগর আহমেদ সানী, মীর রেজাউল করিম রেজা, ফয়সাল সালাউদ্দিন, সনত বড়–য়া, বিমান কুমার পোদ্দার, কাজী এনামুল হক, গোলাম মাসুম, কাজী মাহফুজুল হক, এনামুল হক টিপু, পি আর প্লাচিট, অঞ্জন কুমার দাস, জাকির হোসেন জোয়ার্দার, মানিক চক্রবর্তী, রাহমান মনি, সুভাষ দাস, নাজমুল হোসেন, কামাল উদ্দিন টুলু, ড. প্রসেনজিৎ কুমার ঘোষ এবং রাষ্ট্রদূত পতœী ফাহমিদা জাবিন প্রমুখ। সূচনা বক্তব্য রাখেন সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপান-এর সভাপতি সুখেন ব্রহ্ম।
বক্তারা সাম্প্রতিককালে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, বর্তমান সভ্য জগতে এসব বর্বরতার জন্য আমরা সত্যিই লজ্জিত। তারা বলেন, বাংলাদেশ হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান সবার দেশ। এখানে ধর্ম যার যার, সৃষ্টি বিধাতার কিন্তু দেশ সবার। কাজেই এখানে সংখ্যালঘু ভাবাটাও ঠিক না। আমাদের দেশ স্বাধীন হয়েছে কোনো ধর্মযুদ্ধ করে নয়। কাজেই এই দেশ বসবাসকারী সকলের। সংখ্যাগুরু কিংবা সংখ্যালঘু মুখ্য বিষয় নয়, মুখ্য বিষয় হলো বর্বরতা বন্ধ করা।

বক্তারা আরও বলেন, আবহমানকাল থেকেই এই ভূখণ্ডে সবার পাশাপাশি সহাবস্থান বজায় রয়েছে। এখানে যেমন মসজিদ হতে আজানের ধ্বনি শুনতে পাওয়া যায়, তেমনি মন্দির থেকে ডাক-কাসির বাজনা কিংবা গির্জা থেকে ঘণ্টার আওয়াজ ভেসে আসে। বাংলাদেশিরা ধর্মভিরু কিন্তু ধর্মান্ধ নয়।


তারপরও স্বাধীনতা পরবর্তী স্বার্থান্বেষী কিছু কুচক্রী, ধর্মভিরুতাকে পুঁজি করে স্বীয় স্বার্থ আদায়ে হীন কাজ করার প্রয়াস চালাচ্ছে। আর দেশের ক্রান্তিলগ্নে এই আঘাত হানে বেশি। কিন্তু সম্প্রদায়ের ওপর এই আঘাত আসে বেশি। তার কারণ হচ্ছে স্বাধীনতাপরবর্তী কোনো সরকারই এই হামলার সঠিক কোনো বিচার করছে না। একে অন্যের ওপর দোষ চাপিয়ে দায়সারার চেষ্টা করছে, আর তাতে করে আসল কুচক্রীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। মিডিয়াও সঠিক দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হচ্ছে। তাই মিডিয়াকে সঠিক দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানানো হয়।

সভা শেষে সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপান থেকে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেনের হাতে একটি স্মারকলিপি তুলে দেয়া হয়। স্মারকলিপিটি তুলে দেন পূজা কমিটির সভাপতি সুখেন ব্রহ্ম। পরে সকলের অনুরোধে স্মারকলিপিটি পড়ে শোনান ড. তপন কুমার পাল। স্থানীয় প্রবাসী মিডিয়া কর্মীদের কাছে স্মারকলিপিটির কপি সরবরাহ করা হয়।

আয়োজক সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপান হলে সকলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে প্রতিবাদ সভাটি সত্যিকার অর্থেই সার্বজনীন হয়ে ওঠে। এবং এটাই জাপান প্রবাসীদের ঐতিহ্য।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply