স্বাধীনতার স্বপ্ন আজও অধরা

সাদেক হোসেন খোকা
১৯৭১ সালের মার্চ মাস। আমি তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান (সম্মান) তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। বিপ্লবী চেতনায় আলোড়িত এক উদ্যামী তরুণ। অন্তর্জগৎজুড়ে প্রতিমুহূর্তে সশস্ত্র বিপ্লবের মাধ্যমে শোষণমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠার এক অদম্য স্বপ্ন। চোখে-মুখে লড়াই-সংগ্রামের অন্যরকম এক উন্মাদনা। তখন আমি পূর্ব পাকিস্তানে চলমান ছাত্র আন্দোলনের একজন একনিষ্ঠ ও সক্রিয় কর্মী। বিশেষ করে অবিভক্ত ছাত্র ইউনিয়নের সশস্ত্র বিপ্লবের প্রাথমিক কার্যক্রমেও নিয়মিত অংশ নিতে শুরু করেছি। সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে দেশ থেকে সব ধরনের শোষণ-বঞ্চনা দূর করে সবার জন্য সমান অধিকার প্রতিষ্ঠা করব। যেখানে থাকবে না কোনো রকমের অন্যায়, অনাচার, বৈষম্য, শোষণ কিংবা বঞ্চনা। মানবতার মর্যাদা যেখানে থাকবে সমুন্নত। সবার জন্য সমান সুযোগ যেখানে নিশ্চিত হবে। সশস্ত্র লড়াইয়ের জন্য বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়নের পক্ষ থেকে আমরা নিয়মিত প্রশিক্ষণ কার্যক্রমেও অংশ নিচ্ছি। দেশজুড়ে তখন একটা রাজনৈতিক অস্থিতিশীল অবস্থা। কি হয়, না হয় এ রকম একটা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা সবার মধ্যেই বিরাজ করছিল।

২৫ মার্চ কালরাতে যখন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী পূর্ব পাকিস্তানের নিরস্ত্র জনসাধারণের ওপর নির্মম হত্যাযজ্ঞ শুরু করে, তখনই আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি আর গোপনে নয়, এবার নামতে হবে প্রকাশ্যে। কারণ, পাকিস্তানি বাহিনী তখন নির্বিচারে গণহত্যা শুরু করে দিয়েছে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানিদের হাতে বন্দী হলেন। দেশ তখন রীতিমতো রাজনৈতিক নেতৃত্বশূন্য। সাধারণ মানুষ বুঝে উঠতে পারছিল না, হানাদারদের আক্রমণের বিপরীতে তারা কি করবে। সেই কঠিন পরিস্থিতিতে যুদ্ধে যাওয়ার সময় হলো, এটা আমরা সবাই বুঝতে পারছিলাম। তারপরও সর্বস্তরের মানুষ কেমন যেন একটা হতাশা আর সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছিল। ঠিক এমনি সময়ে কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে ভেসে এলো একটি কণ্ঠ, ‘আমি মেজর জিয়া বলছি। আমি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করছি।’ দিকনির্দেশনাহীন জনগণ সেদিন মেজর জিয়াউর রহমানের এই ঘোষণায় খুঁজে পেল নতুন দিশা, উজ্জীবিত হলো মুহূর্তেই। মেজর জিয়ার ঘোষণা এবং আহ্বানে সাড়া দিয়ে কিশোর, তরুণ, যুবক, বৃদ্ধ সবাই যার যার অবস্থান থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ল মুক্তিযুদ্ধে। সবার লক্ষ্য একটাই, বাংলাদেশের স্বাধীনতা। শুরু হয় তুমুল যুদ্ধ। এগিয়ে যেতে থাকে আমাদের মুক্তির লড়াই।

মেজর জিয়াউর রহমানের ঘোষণার পর আনুষ্ঠানিক যুদ্ধ শুরুর পর প্রথম দিকে আমরা নিজেদের ছাত্র সংগঠনের পক্ষ থেকে হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে এলোমেলোভাবে আক্রমণ পরিচালনা করতে থাকি। তখন ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ছিলেন হায়দার আনোয়ার খান ঝুনো এবং সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান খান সালু। পরে মুক্তিযুদ্ধের দুই নম্বর সেক্টরে ট্রেনিং নিয়ে প্রথমে আমরা সম্মুখযুদ্ধ এবং পরে ঢাকাসহ আশপাশের এলাকায় গেরিলা যুদ্ধের দায়িত্ব পাই। সে অনুযায়ী একাধিক অপারেশনে অংশ নিই। এ সময় আমার সহযোদ্ধা ছিলেন বুয়েটের ছাত্র আমসাল আহমদ লস্কর, মরহুম আজম খান (পরবর্তীকালে প্রখ্যাত পপসংগীত শিল্পী), মো. হেদায়েত উল্লাহ, মরহুম শামছুল হুদা, ইকবাল আহমেদ সুফী, নান্টু, খন্দকার আবু জাহিদসহ আরও ২০ জন। এদের বেশির ভাগই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট বা ঢাকা মেডিকেলের ছাত্র ছিল।

‘৭১ সালের অক্টোবর ও নভেম্বরে আমরা ঢাকা ও আশপাশের এলাকায় বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অপারেশন চালাই। দেশজুড়ে তখন তুমুল যুদ্ধ চলছে। পাকিস্তানি বাহিনীর সদস্যরা বেপরোয়াভাবে গণহত্যা চালাতে থাকে। নিরীহ মানুষ হত্যার পাশাপাশি যুদ্ধের এক পর্যায়ে পাকিস্তান সরকার আবারও প্রহসনের একটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রক্রিয়া শুরু করলে আমরা রাজধানীর মোমিনবাগে অবস্থিত নির্বাচন কমিশন (ইসি) কার্যালয় বিস্ফোরণ ঘটিয়ে উড়িয়ে দিই। এরপর ২০ পাউন্ড এঙ্প্লোসিভ দিয়ে ধ্বংস করে দিই শান্তিবাগে অবস্থিত ডিএফপি অফিস। যুদ্ধের শেষদিকে ডেমরার সারুলিয়া এলাকা দিয়ে তিতাস গ্যাসের যে মেইন লাইন ঢাকায় প্রবেশ করেছে সেই লাইনটি উড়িয়ে দেওয়া হয় মরহুম আজম খানের নেতৃত্বে। আরেকটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ অপারেশনের মাধ্যমে নিমতলীতে অবস্থিত ঢাকা হলের পেছনে এয়ারফোর্সের রিক্রুটিং সেন্টার উড়িয়ে দিলে ঢাকাবাসীর মধ্যে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয় এবং মানুষের মুখে মুখে মুক্তিযোদ্ধাদের দুঃসাহসিকতার খবর ছড়িয়ে পড়ে। এ অপারেশনে আমার সহযোদ্ধা হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয় আমসাল আহমেদ লস্কর ও ইকবাল আহমেদ সুফী।

এছাড়া ঢাকা ও আশপাশের এলাকায় ছোট-বড় অনেক ব্রিজ-কালভার্ট উড়িয়ে দেওয়া হয়, যাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। এর ফলে তাদের আক্রমণের থাবা ধীরে ধীরে স্তিমিত হয়ে পড়ে। এছাড়াও সালদা নদীর তীরে কর্নেল গাফফারের নেতৃত্বে আমরা হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সরাসরি কয়েকটি যুদ্ধে অংশ নিই এবং পাকসেনাদের কোণঠাসা ও বিপর্যস্ত করতে সক্ষম হই। এখানেই সালদা নদীর একটি যুদ্ধে আমার প্রিয় বন্ধু গোপীবাগের জাকির দারুণ সাহসিকতা প্রদর্শন করে এবং শেষ পর্যন্ত শহীদ হন। এই যুদ্ধে কিশোর মোশতাক মারাত্দক আহত হয়।

এভাবে দলমত নির্বিশেষে দেশের সর্বস্তরের মানুষ অংশ নিয়ে দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের সম্মিলিত প্রয়াসে দেশমাতৃকাকে হানাদার বাহিনীর হাত থেকে মুক্ত করে আনে। অর্জিত হয় আমাদের প্রিয় স্বাধীনতা। বিশ্বের বুকে জায়গা করে নেয় স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের লাল-সবুজ মানচিত্র। নতুন করে পথচলা শুরু হয় একটি জাতির। কিন্তু জাতিগতভাবে আমাদের দুর্ভাগ্য হলো, বহু প্রাণের বিনিময়ে এবং অনেক ত্যাগ-তিতিক্ষার মাধ্যমে অর্জিত সেই স্বাধীনতা অর্জনের দীর্ঘ ৪২ বছর পরও আজ পর্যন্ত এদেশের মানুষের মৌলিক অধিকারগুলো প্রতিষ্ঠা পায়নি। ঘটেনি মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি। জানমালের নূ্যনতম নিরাপত্তাটুকুও আজ বিলীনপ্রায়। মত প্রকাশের স্বাধীনতা, পরমতের প্রতি সহিষ্ণুতা ইত্যাদি গণতন্ত্রের অতিসাধারণ বিষয়গুলোও আজ অবধি অধরা। এখনো আমাদের লড়াই করতে হচ্ছে ৪২ বছর আগের সেই লক্ষ্যগুলো অর্জনের জন্য। অথচ এসব স্বপ্ন পূরণের জন্যই সে দিন আমরা হাতের মুঠোয় জীবন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম।

বাংলাদেশ প্রতিদিন

Leave a Reply