রাহার উপার্জনেই সংসার চলত

raha1অভিনয় নিয়ে রাহার সঙ্গে মা-বাবার প্রায়ই ঝগড়া হতো
হালিম মোহাম্মদ: লাক্সতারকা সুমাইয়া আজগার রাহা সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ছিলেন। রাহার কাকা (বাবার ফুফাতো ভাই) জামাল উদ্দিন মিল্টন। গতকাল দুপুরে আজিমপুর কবরস্থান থেকে রাহার মরদেহ উত্তোলনের পর রাহার চাচা জামাল উদ্দিন মিল্টন সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান ।


জামাল উদ্দিন মিল্টন জানান, রাহার বাবা শেখ আলী আজগার এক সময় নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ছিলেন। ওই সময় রাহাদের পরিবার ভালোই চলছিল। কিন্তু পদ্মার ভাঙনে আলী আজগরের মুন্সিগঞ্জের গ্রামের বাড়ি ও জায়গাজমি নদীগর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। এরপর আজগর সংসার চালাতে গিয়ে অভাবের কষাঘাতে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। তিনি জানান, সরল মনের অধিকারী রাহার বাবা এক ধরনের অস্থিরতায় ভুগ ছিলেন। তিনি কোথায়ও স্থায়ী হতে পারেন না। এ কারণে নৌবাহিনীর চাকরি ছেড়ে অভাব-অনটনে দিন কাটে তার। এক সময় তিনি মিশুক চালাতে শুরু করেন। মিশুক চালানো অবস্থায় গত একযুগ আগে আজগার আলী দুর্ঘটনায় ঘাড়ে ব্যথা পেয়ে মিশুক চালানো ছেড়ে দেন।
raha
জামাল উদ্দিন আরও জানান, রাহা ছিল তাদের সংসারে একমাত্র উপার্জনক্ষম। মডেলিং, অভিনয়ের টাকায় ফ্ল্যাট ভাড়া, ছোট ভাইয়ের পড়ালেখার খরচসহ সংসারের খরচ চলছিল। কিন্তু বাবা আলী আজগর চাচ্ছিলেন না মেয়েকে দিয়ে মডেলিং বা অভিনয় করে অর্জিত টাকা দিয়ে সংসার চলুক। রাহার বাবা গত দুই মাস আগে ছোট ভাই জামালকে বলেছিল, আমার মেয়ে রাহাকে বিয়ে দিয়ে দাও। মেয়ে আমার বড় হয়েছে এমনকি ঔর্ষিক নামের এক ছেলের সঙ্গে খুব শিগগিরই রাহার বিয়ে হবে বলে তার বাবা জানিয়ে ছিলেন। আলী আজগরের স্বজনরা জানান, রাহার মা চাচ্ছিল মেয়ে বড় অভিনয় শিল্পী হোক। তাই মায়ের অনুপ্রেরণায় রাহা অভিনয়সহ বাইরে আড্ডার সুযোগ করে নিত।

উল্লেখ্য, গত ২২ মার্চ রাতে মোহাম্মদপুরের চাঁন মিয়া হাউজিংয়ের বাসায় রাহা ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। রাহার এ মৃত্যুর কথা গোপন রেখে তার বাবা লাশ আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করেন। গত রোববার রাত সোয়া ১০টায় আত্মহত্যার বিষয়ে রাহার বাবা আলী আজগার মোহাম্মদপুর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেন।

আমাদের সময়

Leave a Reply