আমার ভেতর সব সময় সমাজ রূপান্তরের প্রচেষ্টা ছিল

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
আমি যখন লেখালেখি শুরু করি, তখন কোনো বাধার মুখে পড়তে হয়নি। আমি তো শুধু প্রবন্ধ নয়, গল্প, উপন্যাসও লিখেছি। ভিন্ন ভিন্ন লেখার ফলে ভিন্ন ভিন্ন অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে আমাকে যেতে হয়েছে। তাই সব ধরনের পড়াই আমি পড়তাম। যদিও আমার জীবনে দুটো ঘটনা আমাকে নেতিবাচক ও ইতিবাচকভাবে প্রভাবিত করেছে। আমার বাবার মৃত্যু ও রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন।


পড়ার আনন্দ কিংবা লেখার আনন্দ এখনো আমাকে বয়ে নিয়ে চলে যায় বহুদূরে। প্রথমদিকে তো রবীন্দ্রনাথই পড়তাম বেশি বেশি। এককথায়, রবীন্দ্রনাথে আচ্ছন্ন ছিলাম। রবীন্দ্রনাথের ‘গোরা’ কিংবা ‘ঘরে বাহিরে’ উপন্যাস আমি বারবার পড়ি। কী অসাধারণ লেখা, চিন্তা। আমাকে প্রতিটি মুহূর্তে আকৃষ্ট করেছে। আর হাতের কাছে যা পেতাম, সব পড়ে ফেলতাম। এখন পড়ে ও লেখালেখি করে সময়টা কাটে। সুধীন্দ্রনাথ দত্তের কবিতা ও প্রবন্ধ আমার খুব প্রিয় ছিল। তাঁর লেখায় রয়েছে দৃঢ়তা এবং অভিজ্ঞতার সংমিশ্রণ। আমি যেহেতু সমাজ সম্পর্কে চিন্তা করি, ফলে আমি মার্ক্সীয় চিন্তায় বিশ্বাসী। ফলে আমি মনে করেছি, সমাজটা একটা শ্রেণীস্বার্থ নিয়ে গঠিত। এবং শ্রেণীবৈষম্য দূর কথার কথা বলেছি। চেতনা, বোধ, বৈষম্য না বুঝলে আমি সাহিত্য বুঝতাম না। ফলে এই দর্শন আমাকে অনেক সাহায্য করেছে।


আর শিক্ষক হওয়ার ফলে আমার ভেতর একটা বিশ্লেষণীবোধ তৈরি হলো। এর জন্য আমি আর কথাসাহিত্যিক হতে পারিনি। যদিও আমার শুরুটা ছিল ছোটগল্প দিয়ে। অনেক বেশি পড়া কিংবা পৃথিবী বিখ্যাত লেখকদের লেখা পড়ার ফলে আমার মনে হয়েছে, ওদের লেখার কাছে আমার লেখা অতি সামান্য। আরো মনে হয়েছে যে আমার পক্ষে বড় মাপের লেখক হওয়া সম্ভব হবে না। তার আরেকটা কারণ হলো আমার অভিজ্ঞতা। একবারে প্রথাগত জীবন যাপন আমি করেছি।

সমাজের নানা ধরনের মানুষের সঙ্গে মিশলে যে ধরনের অভিজ্ঞতা হয় আমার তা হয়নি। আমি ‘নতুন দিগন্ত’ পত্রিকা সম্পাদনা করছি বহুদিন ধরে। কোনো অর্থ-সামর্থ্য ছাড়া। আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকা অবস্থায় দেয়াল পত্রিকা, হাতে লেখা পত্রিকা, সাপ্তাহিক পত্রিকা ত্রৈমাসিক পত্রিকা সম্পাদনা করেছি। এ কারণে সম্পাদনার আগ্রহ আমার ছিল। আমার ভেতর সব সময় সমাজ রূপান্তরের প্রচেষ্টা ছিল।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply