গভীর রাতে মুন্সীগঞ্জ থানা ঘেরাও

thanamমুন্সীগঞ্জের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীকে আটকের পর ছেড়ে দিয়ে নিরীহ যুবককে আটক করার ঘটনা প্রতিবাদে মুন্সীগঞ্জ থানা ঘেরাও করা হয়েছে। বুধবার রাত সোয়া ১১ টার দিকে শহরের নতুনগাঁও এলাকার শতাধিক নারী-পুরুষ থানা ঘেরাও করে রাখে।

এ সময় এলাকাবাসীর চাপে মুখে রাত সাড়ে ১১ টার দিকে আটক করা নিরীহ যুবক বাবু (২২)-কে পুলিশ ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। তাকে ছেড়ে দেয়ার পর বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী থানা ছাড়েন।

এলাকাবাসী জানান, বুধবার সন্ধ্যায় শহরের নতুনগাঁও এলাকার কুখ্যাত মাদক সম্‌্রাট ভাসানিকে ইয়াবাসহ আটক করে সদর থানার বিতর্কিত এসআই এরশাদ ও এএসআই মনিরুজ্জামান। পরে ঘটনাস্থলেই ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে ওই ২ পুলিশ কর্মকর্তা ভাসানিকে ছেড়ে দিয়ে এলাকার নিরীহ এক বাবুকে মাদক ব্যবসায়ী সাজিয়ে মুন্সীগঞ্জ থানায় আটক করে নিয়ে আসে।


এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে বাবুকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নিতে মানিকপুর ও নতুনগাঁও এলাকার শতাধিক নারী-পুরুষ শহরে মিছিল থানায় যায় এবং তারা বাবুকে ছেড়ে দেয়া ও মাদক সম্‌্রাট ভাসানিকে গ্রেপ্তারের দাবিতে থানা ঘেরাও করে রাখেন। পরে রাত সাড়ে ১১ টার দিকে সদর থানার সেকেন্ড অফিসার সুলতান আহম্মেদ নতুনগাঁও এলাকার শাহাবুদ্দিনের জিম্মায় বাবুকে ছেড়ে দিলে তারা থানা এলাকা ত্যাগ করে।

নতুনগাঁও এলাকার বাউল শিল্পী জাহাঙ্গীরসহ এলাকাবাসীর অভিযোগ, থানা পুলিশ দীর্ঘদিন ধরে ওই এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নিয়মিত বখরা আদায় করে নিরীহ লোকদের আটক করে হয়রানি করছিল।
thanam
গ্রেপ্তারের নামে া বাণিজ্য করারও অভিযোগও রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ঠ ওই ২ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ভাসানিকে আটকের পর তার হাতে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে থানায় পাঠানোর সময় পালিয়ে যায়। তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে তারা দাবি করেন ঐ দুই পুলিশ কমকর্তা। এ বিষয়ে মাদক সম্‌্রাট ভাসানির বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে বলে এএসআই মনিরুজ্জামান জানান।

জাস্ট নিউজ

Leave a Reply