হরতালে মুন্সীগঞ্জে ৫০ হাজার আলু চাষির স্বপ্ন ফিঁকে !

বাংলাদেশের সর্ব-বৃহৎ উৎপাদনকারী অঞ্চল মুন্সীগঞ্জে হরতালের কারনে রাজধানীর উপকন্ঠ মুন্সীগঞ্জে আলু কেনা-বেঁচায় ধ্বস নেমেছে। জেলার ৫০ হাজার আলু চাষীর স্বপ্ন ফিঁকে হয়ে আসছে। আলু উত্তোলনের শুরুতে এবার লাভের মুখ দেখছেন চার্ষীরা। উপরন্তু হরতালের কবলে পরিবহনের অভাবে দেশের বড় বড় মোকামের পাইকাররা হাত গুটিয়ে বসে আছেন। মুন্সীগঞ্জের চার্ষীদের কাছ থেকে আলু কিনছেন না পাইকাররা।

রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা সদরের মোল্লাকান্দি, চরকেওয়ার ও আধারা ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে সরেজমিনে ঘুরে এ চিত্র পাওয়া গেছে। আলু উত্তোলনের মহাউৎসব শেষে বিরোধী রাজনৈতিক দল গুলোর ডাকা টানা হরতালের কবলে পরিবহনের অভাবে এখন লাখ লাখ টন আলু বিক্রি বা বাজারজাত করতে হিমশিম খাচ্ছে চাষীরা।

এতে মুন্সীগঞ্জে উৎপাদিত ১৫-১৬ লাখ বস্তা ভর্তি আলু পড়ে আছে বাড়ির আঙ্গিনা ও জমিতে। এ বিপুল পরিমানের আলু বাজারজাত করনে কোন পরিবহন পাচ্ছে না চার্ষীরা। দেশের আলুর ভান্ডার হিসেবে খ্যাত মুন্সীগঞ্জের বিশাল পরিমানের আলু অবিক্রিত থেকে যাচ্ছে। ফলশ্রুতিতে আলু নিয়ে দুর্ভাবনায় পড়েছেন চাষীরা। আলু চাষীদের স্বপ্ন ধুসর হয়ে উঠেছে। শুধু মাত্র সদর উপজেলার চরাঞ্চলের ৫ টি ইউনিয়নে কয়েক লাখ বস্তাভর্তি আলু পড়ে আছে। জেলা জুড়ে পড়ে আছে অন্তত ১৬ লাখ বস্তা আলু।

দেশের বৃহত উৎপাদনকারী অঞ্চল মুন্সীগঞ্জে এবার সাড়ে ১২ লাখ মেট্টিক টন আলু উৎপাদিত হয়েছে। এর মধ্যে সাড়ে ৪ লাখ টন আলু জেলায় সচল থাকা ৬৭ টি কোল্ড ষ্টোরেজে সংরক্ষন করা হয়েছে। বাকী ৮ লাখ টন আলু বাজারজাত করনের পরিবেশ পাচ্ছে না চার্ষীরা। রাজনৈতিক অস্তিরতা ও হরতালের কারনে শুধু মাত্র জেলা সদরের মোল্লাকান্দি, চরকেওয়ার, শিলই, আধারা ও বাংলা বাজার ইউনিয়নের মাঠে-ময়দানে খোলা আকাশের নীচে কয়েক লাখ বস্তা ভর্তি আলু।

এবার মুন্সীগঞ্জে আবাদ করা প্রায় ৮ লাখ মেট্টিক টন আলু কোল্ড ষ্টোরেজের অভাবে সংরক্ষন করতে পারেছন না চার্ষীরা।


উপরন্তু সীমিত সংখ্যক কোল্ড ষ্টোরেজ গুলোতে অগ্রিম কোটা বিক্রি হয়ে যাওয়ায় উৎপাদিত আলু সংরক্ষন নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন চাষীরা। জেলার ছয়টি উপজেলার সচল থাকা ৬৭ কোল্ড ষ্টোরেজে সংরক্ষন করা সাড়ে ৪ লাখ মেট্টিক টন আলূ বাদে বাকী ৮ লাখ টন আলু সংরক্ষন করতে পারেনি চার্ষীরা। তাই বিপুল পরিমানের এ আলূ বাজারজাত করা ছাড়া চার্ষীদের কাছে কোন উপায় নেই।

জেলা সদরের চরাঞ্চল আধারা ইউনিয়নের তাঁতিকান্দি গ্রামের আলু চাষী আক্তার মাহমুদ বলেন- গেলো কয়েক বছরের লোকসান পুষিয়ে এবার লাভের স্বপ্ন দেখেছিলেন চাষীরা।

কিন্তু উৎপাদন খরচ ও বর্তমান বিক্রি দর কাছাকাছি হওয়ায় আলু আবাদে চার্ষীরা লাভ-লোকসানের মাঝখানে পড়েছেন। কোল্ড ষ্টোরেজেও সব আলু সংরক্ষন করা যাচ্ছে না। পাশাপাশি উৎপাদিত আলুর বর্তমান দর অনুযায়ী লাভের মুখ দেখছেন না চাষীরা। উপরন্তু হরতালের কারনে কোল্ড ষ্টোরেজে সংরক্ষণ বাদে লাখ লাখ বস্তাভর্তি আলু বিক্রি করতে পারছেন না চার্ষীরা।

মুন্সীগঞ্জ জেলা কৃষি অধিদপ্তরের কর্মকর্তা আল মামুন জানান, চলতি বছর জেলায় ৩৫ হাজার ৯’শ ৩৭ হেক্টর জমিতে আলু চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়। লক্ষ্যমাত্রা ছাপিয়ে এবার জেলায় ৩৬ হাজার ৫’শ হেক্টর জমিতে আলু চাষ করা হয়েছে।

টঙ্গিবাড়ী উপজেলার ধামারন গ্রামের আলু চাষী রহিম মিয়া জানান, হরতালে পরিবহনের অভাবে উৎপাদিত আলু দেশের বিভিন্ন হাট-বাজারে সরবরাহ করতে পারছেন না। শহরের উপকন্ঠ মুক্তারপুর এলাকাস্থ মাল্টি পারপাস কোল্ড ষ্টোরেজের ম্যানেজার আব্দুল হান্নান বলেন, এ কোল্ড ষ্টোরেজের ব্যবসায়িক সুনাম রয়েছে। ইতিমধ্যে ৬০ হাজার বস্তা আলু সংরক্ষন করা হয়েছে। এমন ৬৭ টি কোল্ড ষ্টোরেজ জেলায় সচল রয়েছে। সব কোল্ড ষ্টোরেজ মিলিয়ে সর্বোচ্চ সাড়ে ৪ লাখ মেট্টিক টন আলু সংরক্ষন সম্ভব। তাই জেলা উৎপাদিত সাড়ে ১২ লাখ টন আলুর মধ্যে ৮ লাখ টন আলু বাজারজাত করন ছাড়াই উপান্তর পাওয়া যাচ্ছে না।

সদর উপজেলার চরাঞ্চলের চরকেওয়ার ইউনিয়নের টরকী গ্রামের কয়েক হাজার বস্তা আলু বিক্রি করতে পারছেন চাষী আইয়ুব আলী মিন্টু মীরধা। তিনি জানান, হরতালের কারনে কোন পরিবহনই পাওয়া যাচ্ছে না। পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা হরতালে পিকেটারদের হামলার শিকার হওয়ার আশংকায় রাস্তায় নামাচ্ছে না ট্রাক-লরিসহ অন্যান্য মালামাল বহনকারী যানবাহন।

এনসিটিনিউজ২৪

Leave a Reply