শয়তানি দলের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই : হেফাজত

মুন্সীগঞ্জের মুক্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় হেফাজতে ইসলামের মহাসমাবেশে ঢাকা মহানগর হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম-আহ্বায়ক হযরত মাওলানা আল্লামা ওবায়দুল্লাহ ফারুক আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের মুক্তি দাবি করে বলেছেন, অবিলম্বে তাকে মুক্তি দিন। আমার দেশ পত্রিকা আবার চালু করে দিতে হবে। অন্যথায় তাকে আমরা মুক্ত করে আনবো। হিন্দু-খ্রিস্টান, কাদিয়ানি ও উপ-জাতিদের বেঁচে থাকার অধিকার আছে- কিন্ত ইসলামের হেফাজতকারীদের নিরাপত্তা ও বেঁচে থাকার অধিকার এ সরকারের আমলে নেই। যারা আল্লাহ ও ইসলামকে সহ্য করতে পারেন না, তাদের এ দেশে বেঁচে থাকার অধিকার নেই।

শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আপনি শাহবাগের তারুণ্য দেখেছেন। কিন্ত ইসলামী জোশ দেখেননি। আপনার শাহবাগে এখন আর কেউ নেই।

তিনি মঙ্গলবার বিকেলে শহর উপকণ্ঠের মুক্তারপুর ফেরিঘাট এলাকায় ১৩ দফা দাবিতে জেলা হেফাজতে ইসলাম আয়োজিত এক বিশাল শানে রেসালাত মহাসমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষণে এসব কথা বলেন।


সমাবেশের দ্বিতীয় পর্বে মঞ্চে উঠে জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল হাই, সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেযর ও শহর বিএনপির সভাপতি এ কে এম ইরাদত মানু এ অনুষ্ঠানে সংহতি প্রকাশ করেন।

মুন্সীগঞ্জ জেলা ও ঢাকা দক্ষিণের ৩ উপজেলার সমন্বয়ে জেলা হেফাজতে ইসলামের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র নায়েবে আমীর মধুপুরের পীর হযরত মাওলানা আব্দুল হামিদের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম-আহ্বায়ক মাওলানা মাহফুজুল হক, যুগ্ম-সচিব হযরত মাওলানা শাখাওয়াত হোসেন, সদস্য মাওলানা জালালউদ্দিন, মাওলানা নূর হোসেন নূরানী, মুফতি হাবিবুল্লাহ মো. কাশেমী, মুফতি মনির হোসেন, নারায়ণগঞ্জের সভাপতি মাওলানা আব্দুল আউয়াল, সহ-সভাপতি আব্দুল আজিজ, ঢাকার নবাবগঞ্জের হেফাজত নেতা মাওলানা মিজানুর রহমান, জেলার যুগ্ম-আহ্বায়ক মাওলানা জয়নাল আবেদীন, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা খলিলুর রহমান, সদর উপজেলা হেফাজতের সভাপতি মাওলানা সিদ্দিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, সিরাজদিখানের সভাপতি মাওলানা ওবায়দুল্লাহ কাশেমী, শ্রীনগরের সভাপতি মাওলানা জাকির হোসেন।

এদিকে, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মুক্তারপুর ফেরিঘাট এলাকায় হেফাজতে ইসলামের শানে রেসালাত মহাসমাবেশে সকাল থেকেই জনতার আগমন ঘটতে থাকে। মুসল্লিরা ট্রাকে, বাসে, হেঁটে ও ট্রলারে সমাবেশস্থলে আসতে থাকেন।


সমাবেশে বক্তারা বলেন, আমাদের আন্দোলন হাসিনা-খালেদার বিরুদ্ধে নয়। হাসিনার শাহবাগ চত্বরের ফেরাউন-নাস্তিক ইমরানদের বিরুদ্ধে। সরকার নাস্তিক-মুরতাদ দিয়ে মঞ্চ বানিয়ে ছেলে-মেয়েদের নাচানোর ঠিকাদারি নিয়েছে। আগামী ৫ মে শাহবাগ দখল করা হবে। সেখানে নফল নামাজ আদায় করা হবে। সরকার ভীত হয়ে কাদিয়ানি ও হিন্দু পুলিশ মাঠে নামিয়েছে। সেদিন যদি কোন পুলিশ আমাদের সঙ্গে বেয়াদবি ও লাঠিচার্জ করে, সেদিন আমরা গাছের ঢালা ভেঙ্গে তাদের প্রতিহত করবো। শয়তান-শয়তানি দলের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই। এ সরকারে ১৩ জন নাস্তিক মন্ত্রী-এমপি রয়েছে।

এদিকে, হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবি বাস্তবায়ন ও আগামী ৫ মে ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি সফল করার লক্ষ্যে আগামী ৩ মে জেলার সিরাজদিখান উপজেলার কুচিয়ামোড়া কলেজ মাঠে জেলা হেফাজতে ইসলাম আরো একটি মহা-সমাবেশ হবে।

জাস্ট নিউজ

Leave a Reply