মায়ের ওষুধ কেনার টাকা পাঠানো হলো না স্বপনের

swaponমায়ের ওষ‍ুধ কেনার জন্য টাকা পাঠানো হলো না গার্মেন্টস কর্মী স্বপন সরকারের। এর আগেই সাভারের রানা প্লাজা ট্র্যাজেডিতে নিখোঁজ হয়ে পড়েন স্বপন সরকার। গত ২৪ এপ্রিল ঘটনার পর থেকে আটদিন ধরে নিখোঁজ থাকা স্বপন সরকারের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন তার বড় ভাই তপন সরকার।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে এ প্রতিবেদককে তিনি জানান, সাভারের রানা প্লাজার ধংসস্তূপে এখন লাশের দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছে। যেসব লাশ উদ্ধার হচ্ছে, তা চেনার উপায় নেই। এ কারণে নিখোঁজ ভাইয়ের সন্ধান পেতে ব্যর্থ হয়ে বুধবার বিকেলে মুন্সীগঞ্জের গ্রামের বাড়ির ফিরে এসেছেন তারা।

জানা গেছে, নিখোঁজ শ্রমিক স্বপন সরকার মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলা কলমা ইউনিয়নের বানকাইজ গ্রামের বৃদ্ধ কৃষক খিতিশ সরকারের মেজো ছেলে। তিনি সাভারের রানা প্লাজার ৪র্থ তলায় অবস্থিত গার্মেন্টসে কাটিং মাস্টার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।


২৪ এপ্রিল সাভারের রানা প্লাজা ধসে পড়ার ঘটনার পর থেকে গার্মেন্টেস কর্মী স্বপন সরকার (২৮) নিখোঁজ রয়েছেন।

ভবন ধসের আগের দিন ২৩ এপ্রিল বেলা ১১টার দিকে মায়ের সঙ্গে শেষ কথা হয় স্বপনের। সে সময় মা তার ওষ‍ুধ কেনার কথা বললে স্বপন মাকে বলেছিলেন, দুই একদিনের মধ্যেই সে বাড়িতে টাকা পাঠাবে। এরপর থেকে স্বপনের সঙ্গে আর কোনো যোগাযোগ হয়নি বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

তপন সরকার জানান, ঘটনার দিন বিকেলেই সাভারের রানা প্লাজার ধংসস্তূপে ছুটে যান বোন জামাই নির্মল মল্লিক, ছোট ভাই হৃদয় সরকার ও স্বজন তুলশী সরকার।

তারা টানা চারদিন সেখানে অবস্থান করে নিখোঁজ স্বপন সরকারের কোনো সন্ধান পাননি। সে জীবিত আছে না মারা গেছে তারও কোনো তথ্য না পেয়ে সোমবার বাড়ি ফিরে আসেন তারা।

মঙ্গলবার সকাল থেকে সুমন সরকার নামের এক স্বজনকে নিয়ে তপন সরকার নিজেই বুধবার বিকেল পর্যন্ত রানা প্লাজার ধংসস্তূপের কাছে ও অধর চন্দ্র বিদ্যালয় মাঠে খুঁজে বেরিয়েছেন নিখোঁজ ভাইকে।


জীবিত না পেলেও অন্তুত ভাইয়ের মৃত দেহটি বাড়িতে নিয়ে যেতে পারে এমন আশায় অসহায়ের মতো খুঁজে ফিরেছেন ভাইকে। কিন্তু হতাশা নিয়ে ফিরতে হয়েছে তাকেও।

এদিকে, স্বপন সরকার নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়ার পর থেকেই তার বৃদ্ধ পিতা খিতিশ সরকার (৭৪) ও বৃদ্ধা মা রানী সরকার (৫৩) এখন বাকরুদ্ধ। সন্তানের জন্য নীরকে কাঁদতে কাঁদতে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন তারা।

নিখোঁজ স্বপনের বড় ভাই তপন সরকার আরো জানান, স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা প্রায় সাত বছর আগে জীবিকার তাগিদে স্বপন সরকার ঢাকায় গিয়ে মামার দোকানে টেইলারিংয়ের কাজে যোগ দেন। এরপর সেখান থেকে রানা প্লাজার ৪র্থ তলার একটি গার্মেন্টসে কাটিং মাস্টার হিসেবে যোগদান করেন। প্রায় চার বছর ধরে স্বপন এ গার্মেন্টসে কাজ করে আসছিলেন।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

————————-

সাভার ট্রাজেডিতে নিখোঁজ গার্মেন্ট কর্মীর লাশ খুজছেন স্বজনরা!


রাজীব হোসেন বাবু:
সাভার ট্রাজেডিতে নিখোঁজ গার্মেন্ট কর্মী মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার কলমা ইউনিয়নের বানকাইজ গ্রামের স্বপনের সন্ধান পাওয়া যায়নি। বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টা পর্যন্ত সাভারের রানা প্লাজার ধ্বংসস্তুপে নিখোঁজ ভাই বড় স্বপন সরকারের লাশের দেখা পাননি ছোট ভাই হৃদয় সরকার। সাভারের রানা প্লাজার চার তলায় অবস্থিত একটি গার্মেন্টে কাটিং মাষ্টার হিসেবে চাকুরী করতেন নিখোঁজ স্বপন সরকার (২৮)। তিনি মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার কলমা ইউনিয়নের বানকাইজ গ্রামের খিতিশ সরকারের মেজো ছেলে। আট দিনেও তার সন্ধান না পাওয়ায় প্রশ্ন উঠেছে গার্মেন্ট কর্মী স্বপনের লাশ পাবেন তো স্বজনরা।
swapon
নিখোঁজ গার্মেন্ট কর্মী স্বপনের বোন জামাই নির্মল মল্লিক, ছোট ভাই হৃদয় সরকার ও নিকট-আতœীয় তুলশি সরকার টানা ৮ দিন ধরে রানা প্লাজার ধ্বংস স্তুপ ও অধর চন্দ্র বিদ্যালয় মাঠ খোঁজে বেরিয়েছেন স্বপনের লাশ। অথচ স্বপনের কর্মস্থলের এতো কাছে থেকেও গার্মেন্ট কর্মীকে জীবিত কিংবা মৃত কোন অবস্থাতেই খোঁজ পেলেন না স্বজনরা।

স্বপনের বড় ভাই তপন সরকার বলেন, মা-বাবা দুজনেই স্বপনের অপেক্ষায় আছেন। জীবিত বা মৃত হোক স্বপনের লাশটা অন্তত পাওয়া গেলে মা-বাবার আতœা শান্তি পেত। নিখোঁজ গার্মেন্ট স্বপন জেলার লৌহজং উপজেলার কলমা ইউনিয়নের বানকাইজ গ্রামের বাড়ি এলাকায় একটি স্কুলে অষ্টম শ্রেনী পর্যন্ত পড়াশুনা করে। মাত্র ৫ বছর আগে সে সংসারের সচ্ছলতার আশায় সাভারের রানা প্লাজার চারতলায় একটি গার্মেন্টে চাকুরী নেয়।

ইউএনএসবিডি

Leave a Reply