শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার ও কণ্ঠশিল্পী সুবীর নন্দী সংবর্ধিত

রাহমান মনি
প্রখ্যাত শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার এবং বিশিষ্ট কণ্ঠশিল্পী সুবীর নন্দীকে সংবর্ধনা দিয়েছে জাপান প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটি। ৫ম প্রবাস প্রজন্ম জাপান ২০১৩’র আয়োজনে বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে এই দুই গুণীজন জাপান সফর উপলক্ষে প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটির পক্ষ থেকে এই সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার এবং সুবীর নন্দীকে ৫ম প্রবাস প্রজন্ম সম্মাননা ’১৩ দেয়া হয়। ২৮ এপ্রিল ২০১৩ টোকিওতে এক জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ সম্মাননা দেয়া হয়।

২৯ এপ্রিল ’১৩ রাজধানী টোকিওর কিতা সিটি আকাবানে বুনকা সেন্টার বিভিও হলে এই গুণীজনদের সংবর্ধনা দেয়া হয়। কাজী ইনসানুল হকের পরিচালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ৫ম প্রবাস প্রজন্ম জাপান’র আহ্বায়ক মুনশী কে. আজাদ। টোকিওস্থ বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেন। প্রবাসী কমিউনিটির পক্ষ থেকে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নাসিরুল হাকিম এ সময় মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন।


অনুষ্ঠানের শুরুতেই সাম্প্রতিক সাভারের রানা প্লাজার বিপর্যয়ে নিহত, আহত ও ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা, সহানুভূতি ও সমবেদনা জানানো হয়। এরপর প্রবাসী কমিউনিটির পক্ষ থেকে শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ারকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান খন্দকার আসলাম হিরা। কণ্ঠশিল্পী সুবীর নন্দীকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান অভিভাবকদের পক্ষ থেকে মিজ সুমি দেলোয়ার। এরপর প্রবাস প্রজন্মের পক্ষ থেকে শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ারের হাতে উপহার তুলে দেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এবং সুবীর নন্দীর হাতে উপহার তুলে দেন নাসিরুল হাকিম।
সভায় বক্তব্য রাখেন সলিমুল্লা কাজল, রাহমান মনি, নাসিরুল হাকিম, রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এবং ঘঐক ডড়ৎষফ জাপান বাংলা বিভাগের প্রধান জনাব ওয়াতানাবে প্রমুখ।

রাহমান মনি বলেন, জাপান প্রবাসীরা গুণীজনদের সম্মানী দিতে পারে না কিন্তু সম্মান দিতে জানে। বাংলা অভিধানের মরণোত্তর সম্মাননা জাপান প্রবাসীরা মুছে ফেলতে চায়। তারা চায় গুণীজনদের জীবিতাবস্থায় সম্মান জানাতে। কারণ যে দেশে গুণীজনদের সম্মান দেয়া হয় না, সে দেশে গুণীজন জন্ম নেয় কালেভদ্রে। সচরাচর নয়। আর গুণীজনদের সম্মান জানানো প্রকৃত অর্থে নিজেরাই সম্মানিত হওয়া।

রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বলেন, জাপান প্রবাসীরা গুণীজনদের সম্মান জানাতে যে উদ্যোগ নিয়েছেন, দূতাবাস তাতে সর্বাত্মক সহযোগিতা করে যাবে। তিনি ছোটবেলায় মুস্তাফা মনোয়ারের অনুষ্ঠান টিভিতে দেখায় স্মৃতিচারণ করেন। জাপানে আসার জন্য দূতাবাস এবং কমিউনিটির পক্ষ থেকে গুণীজনদের ধন্যবাদ জানান হয়।

শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার বলেন, ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের নিয়ে যে কাজ প্রবাস প্রজন্ম করছে আমি তাতে অভিভূত। এ কাজ বড়দের নিয়ে করার চেয়ে অনেক কঠিন এবং চ্যালেঞ্জের। সেই চ্যালেঞ্জকে আপনারা হাতে নিয়ে কাজ করছেন এটা সত্যিই প্রশংসনীয়। শিশুদের কাছ থেকে সম্মাননা পাওয়া আমার জীবনের বড় অর্জন।

সুবীর নন্দী বলেন, জীবনে অনেক সম্মাননা পেয়েছি। স্বীকৃতি পেয়েছি। কিন্তু এবার যেটা পেলাম তা সম্পূর্ণ ভিন্ন। প্রবাসে দেশীয় সংস্কৃতি বিকশিত করার লক্ষ্যে শিশু-কিশোরদের সংগঠন প্রবাস প্রজন্ম যে সম্মাননা আমাদের দিয়েছে তা আমার জীবনে মাইলফলক হয়ে থাকবে। শিশু-কিশোরদের দেখে কেবল একটি কথাই বার বার বলতে ইচ্ছে করছে, আমি আরও বেশি দিন বাঁচতে চাই তোমাদের জন্য। শুধু এই কথাটিই বার বার মনে পড়ছে। সবশেষে জেসিয়া, নবুয়্যাত, আরিয়া, সিফাত এবং লিপুর অংশগ্রহণে একটি পাপেট শো প্রদর্শন হয় সম্মাতি গুণীজনদের সৌজন্যে। সবশেষে গুণীজনরা জাপান প্রবাসীদের ধন্যবাদ জানান।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply