বাঁচাও ধলেশ্বরী!

পদ্মা, মেঘনা, ধলেশ্বরী বিধৌত আমাদের মুন্সীগঞ্জ জেলা। যার প্রাচীন নাম ছিল বিক্রমপুর। বিক্রমপুরের পরিধি ছিল অনেক বড়। কালের বিবর্তনে, প্রকৃতির শাসনে নদী তার গতি পরিবর্তন করায় বিক্রমপুরের আয়তন এখন অনেক কমে এসেছে। মুন্সীগঞ্জ তথা বিক্রমপুর সর্বদাই ছিল নদীবেষ্টিত স্থান। কিন্তু এখন সেই নদী-খালই হারিয়ে যাচ্ছে। বিক্রমপুরের ‘পোড়া গঙ্গা’ নদীর নাম এ প্রজন্মের অনেকেই জানে না। মধ্যবয়সী বা বৃদ্ধ বয়সী অনেকেও হয়তো নামটি ভুলে গেছে। অথচ এটি ছিল বিক্রমপুর অঞ্চলের সবচেয়ে উত্তাল নদী। ভবানীপুর নওপাড়া এলাকায় গেলে এর চিহ্ন হিসেবে ছোট্ট নালা দেখা যাবে। বিক্রমপুরের সবচেয়ে সুন্দর নামের অধিকারী যে নদীটি, তার নাম ‘রজত রেখা’। এ নদীরও বর্তমানে একই হাল। মোল্লাকান্দি এলাকায় তার কিছুটা স্মৃতি এখনও বহন করে আছে। বিক্রমপুরের আরেক নদী ইছামতিও মৃত্যুমুখে। এক যুগ আগেও যে নদীর ওপর দিয়ে লঞ্চ চলাচলের সময় যাত্রীরা থাকতেন ভীতসন্ত্রস্ত। আজ সে নদী শুকিয়ে ছোট খাল হয়ে গেছে। বিক্রমপুরের আরেক নদী বাকি রইল যেটা এখনও জীবিত আছে, তার নাম ধলেশ্বরী। মুন্সীগঞ্জ তীরবেষ্টিত এই ধলেশ্বরী নদী। ধলেশ্বরীকে বলা হয় মুন্সীগঞ্জের প্রাণ। এটা একটা বৃহৎ নদী ছিল। বর্তমানে এ নদীটি ঝুঁকির মুখে আছে। ধলেশ্বরী তীরে এত ইটভাটা, সিমেন্ট কারখানা, হিমাগারসহ অন্যান্য কারখানা গড়ে ওঠায় নদীও তার গতি পরিবর্তন করে অন্যদিকে চলে যাচ্ছে। তা ছাড়া বুড়িগঙ্গা দূষণ হয়ে ঢাকার বর্জ্য আবর্জনা ধেয়ে আসছে ধলেশ্বরীতে। তাই বর্জ্য আর নদী দখল প্রতিযোগিতায়ও হুমকির মুখে বর্তমানের ধলেশ্বরী।


ধলেশ্বরী নদীসংলগ্ন ছিল একটি বিশাল জুবলী খাল। ব্রিটিশ সরকারের সময় খালটি খনন করা হয়েছিল। এর পরিধি ছিল অনেক বড়। বর্ষার সময় এ খালে অনেক পানি থাকত। তাই ধলেশ্বরী নদীতে তেমন একটা বন্যা হতো না। বিপদসীমার কিছু ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হতো। কিন্তু ১৯৯১ সালে খালটি ভরাট করে ফেলা হয়। তাই ধলেশ্বরী নদীরও গতি পরিবর্তন হয়। ১৯৯৮ ও ২০০৪ সালে আশপাশের কিছু এলাকা ধলেশ্বরীর পানিতে ভেঙে নিয়ে যায়। নদীতীরে তখন বাঁধ নির্মাণ করা হয়। ইদানীং দেখা যাচ্ছে, বর্ষার সময়ও ধলেশ্বরীতে প্রয়োজনমতো পানি থাকে না। এর কারণ হিসেবে জানা যায়, নদী দখল প্রতিযোগিতা, নদীতীরে অতিরিক্ত কারখানা নির্মাণ এবং অপরিকল্পিতভাবে মাটি ও বালু উত্তোলনের কারণে ধলেশ্বরী তার জৌলুস হারিয়ে ফেলছে।

নদীমাতৃক দেশ আমাদের এই বাংলাদেশ। নদী বাঁচলে দেশ বাঁচবে। আর দেশ বাঁচলে দেশের মানুষও বাঁচবে। মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীর পানি অনেক কৃষিকাজে ব্যবহৃত হয়। নদীটি আবার আগের রূপ ফিরে পাবে। যৌবনাবতী হয়ে ফিরে আসবে ধলেশ্বরী। আর তারাও কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতে পারবে। এই ধলেশ্বরীকে বাঁচানো সময়ের দাবি।

মো. নজরুল হাসান ছোটন
মুন্সীগঞ্জ

সমকাল

Leave a Reply