সিরাদিখানে সরকারী ভূমি অবৈধভাবে দখল নিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

Shirajdikhan_25.05.13মুন্সীগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার টেলিফোন অফিসের সোয়া দুই কোটি টাকার সরকারী জমি জোর করে দখল নিয়েছেন স্থানীয় সরকার দলীয় এক ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হক।

জানা গেছে, স্থানীয় সিরাজদিখান উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও একই উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাফেজ ফজলুল হক সরকারী ভূমি অবৈধভাবে দখল নিয়ে সেখানে পাকা স্থাপনা নির্মানসহ সু-বিশাল প্রাচীর নির্মান করেছেন। বর্তমানে সেখানে বহুতল ভবনের মার্কেট নির্মানের সরঞ্জাম এনে স্তুপ করেছেন।


সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইছামতি নদীর তীরে সিরাজদিখান টেলিফোন এক্সচেঞ্জের পূর্ব পাশ বিটিসিএল এর নিজেস্ব ভূমিতে অবৈধভাবে মাটি ভরাট করে প্রায় সোয়া দুই কোটি টাকার সম্পত্তি জবর দখল করে নিয়েছেন। শুধু দখলেই ক্ষ্যান্ত হয়নি তিনি, সেখানে অবৈধ স্থাপনাসহ প্রাচীর নির্মাান করেছেন। সরকারী দলের দাপট দেখিয়ে সরকারী সম্পত্তি জবর দখলকারী ওই চেয়ারম্যানের ভয়ে টেলিফোন অফিসের কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী কথা বলতে পারছেন না। তাদের অভিযোগ ক্ষমতাশালী চেয়ারম্যান সিরাজদিখান টেলিফোন অফিসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের ভয়ভীতি দেখিয়ে এবং তাদের বাধা উপেক্ষা করে জোর করে মাটি ভরাট করে। টেলিফোন অফিস থেকে বারবার হাফেজ ফজলুকে ওই জমি ভরাট করতে নিষেধ করলেও তা আমলেই নেননি তিনি। এমনকি টেলিফোন অফিসের দেওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে জেলা প্রশাসক মো: সাইফুল হাসান বাদলের নির্দেশে সিরাজদিখান উপজেলা নির্বহিী কর্মকর্তা মোহাম্মদ দাউদুল ইসলাম ওই জমি টেলিফোন অফিসকে বুঝিয়ে দিতে চাইলে বেপরোয়া হয়ে ওঠে চেয়ারম্যান ফজলু। তিনি কিছু ব্যাক্তিদের দিয়ে ইতিমধ্যে কয়েক দফা মিথ্যা কাগজ বানানোর পায়তারা করেছেন বলেও জানা গেছে। শেষ পর্যন্ত কাজের কাজ কিছুই করতে না পেরে তিনি জবর দখলের পথ বেছে নেন।

সিরাজদিখান টেলিফোন অফিসে কর্তব্যরত আলমাচ নামের এক কর্মচারী জানান, সেখানে তিনি বড় একটি বহুতল ভবনের মার্কেট নির্মানের পায়তারা করছেন।

তিনি আরো জানান,সরকারী অফিসের (টেলিফোন) কর্মকর্তাদের দ্বারা বারংবার বাধা নিষেধ সত্ত্বেও তা উপেক্ষা করে বৃদ্বাংগুল দেখিয়ে অবৈধ দখলদারিত্বের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

টেলিফোন অফিস সূত্রে জানা গেছে বিগত ১৯৮৮ সালে সিরাজদিখান থানা সন্তোসপাড়া মৌজায় এসএ ১১৫ নং দাগে ৫৫ শতক এবং ১১৬ নং দাগে ৩৭ শতক মোট ৯২ শতক জায়গা বিটিসিএলকে বুঝিয়ে দেয়। পরবর্তীতে মো: নোয়াব আলী দেওয়ান এর আবেদনের প্রেক্ষিতে বি,টি,টি,বি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নির্দেশ মতে ১১৬ নং দাগের ১২ শতক জমি বিটিসিএল বুঝায়ে দেয়। সেই মতে মো: নোয়াব আলী জনৈক আনোয়ার হোসেন, মোক্তার হোসেন এবং দেলোয়ার হোসেনের নিকট বিত্রি করে এবং খরিদ সুত্রে তারা মালিক হযে ওই সম্পত্তি তাদের নামে নামজারী করে নেন। কিন্তুু ভুলক্রমে নামজারীর সময় ১১৬ দাগের পরিবর্তে ১১৫ দাগে ১২ শতক ভূমি আনোযার গংদের নামে নামজারী হয়ে যায়। এবং বিটিসিএল’র নামে ১১৫ নং দাগে ৫৫ শতক, ৪৩ শতক এবং ১১৬ নং দাগে ৩৭ শতক মোট ৮০ শতক ভূমি নামজারী করা হয়। উভয় পক্ষের এই নামজারী ভূলের সুযোগে লতব্দী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ১১৫ নং দাগের বিটিসিএল”র ১২শতক ভুমি অবৈধ ভাবে দখল করে। এবং সেখানে অবৈধ মাটি ভরাট ও অবৈধ স্থাপনা নির্মান করেছেন।

এ বিষয়ে সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ দাউদুল ইসলাম বলেন, তিনি ২২ মে বুধবার সরেজমিনে বিটিসিএল”র ৮০ শতক ভুমি মেপে বুঝিয়ে দিতে গিয়ে দেখেছেন সেখানে ওই অফিসটির পূর্ব পাশ লাগোয়া বিটিসিএল এর জমি ভূমিতে লতব্দী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাফেজ ফজলু জমি ভরাট করে পাকা দোকানঘর এবং বাউন্ডারি দেওয়াল নির্মান করেছেন। সেখানে হাফেজ ফজলুল হক কি বলে ওই জমিতে দখল নিয়েছেন এবং স্থাপনা নির্মান করেছেন তার কোন বৈধ কাগজ দেখাতে পারেন নাই।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান হাফেজ ফজলুলহক সাংবাদিকদের জানান, সেখানে তার জায়গা রয়েছে তাই সে ওই জমি ভরাট করেছেন এবং দেওযাল নির্মান করেছেন। জবর দখলের যে কথা বলা হচ্ছে তা ঠিক নয়।

এলাকাবাসী এ অবস্থা দেখে রীতিমত হতবাক হয়ে পড়েছেন। এলাকাবাসীর দাবী জমিটি টেলিফোন অফিসের । এটা কোন ব্যাক্তি তার নিজের স্বার্থে দখল নিতে পারে না। এটা সম্পূর্ন অবৈধ এবং অন্যায়। যে কোন মূল্যে এটা প্রতিহত করা দরকার। হাফেজ ফজলূর এ অবৈধ দখল দারিত্ব থেকে সরকারী ভূমি বাচানোর জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকার সচেতন মহল।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply