পদ্মার ভাঙ্গন আতঙ্কে নদী তীরবাসী

padha bhaggonব.ম শামীম: মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার পদ্মার তীর জুড়ে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ফলে উপজেলার হাসাইল , কামাড়খাড়া, দিঘিরপাড় ও পাচঁগাওঁ ইউনিয়নবাসীর মনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে উপজেলার মাইজগাওঁ, বাঘবাড়ি, হাইয়্যারপাড়, মুলচর এলাকার বেশ কিছু বাড়িঘর নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। হুমকির মুখে পরেছে হাসাইল-চিত্রকড়া নদী রক্ষা বাঁধ, বড়াইল প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দিঘিরপাড় বাজারসহ আশে-পাশের বেশ কিছু এলাকা। তারপরও থেমে নেই নদীতে অবৈধ ড্রেজিং। দির্ঘদিন যাবৎ ৪ সদস্যের একটি অবৈধ সেন্ডিকেট পদ্মা নদী হতে বালু উত্তোলন করছে বলে জানাগেছে । এলাকাবাসী এই সেন্ডিকেটের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে বিরম্বনার স্বীকার হচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহসও নেই অনেকের। জেলা প্রশাসক এর বরাবরে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেও প্রতিকার পায়নি তারা।


এখোনো মুলচর, মাইজগাঁও, দিঘিরপাড় অঞ্চলে ড্রেজিং এর মাধ্যমে বালু উত্তেলন চলছে বলে জানাগেছে। ফলে নদী তীরের ফসলী জমিগুলো ক্রমেই নদীতে বিলীন হচ্ছে। গত কয়েক দিনের প্রবল বর্ষন, আর ঝড়ো বাতাসের ব্যাপক ঢেউয়ের কারনে বর্ষার শুরুতেই ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। বিগত কয়েক বছরের ভাঙ্গনে উপজেলার পদ্মা নদী সংলগ্ন চারটি ইউনিয়নের প্রায় ৩০ টি মৌজা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ক্রমাগত ভাঙ্গনের হাত হতে এ অঞ্চলকে রক্ষার জন্য ২০০৭-২০০৮ ও ২০০৯-২০১০ অর্থ বছরে ৯০ কোটি টাকা ব্যায়ে উপজেলার হাসাইল গ্রাম হতে চিত্রকড়া গ্রাম পর্যন্ত ২.৪৪৩ কিলোমিটার পদ্মা নদী তীর রক্ষা বাঁধ নির্মান করা হয়। বন্ধ হয়ে যায় ভাঙ্গন। আশার আলো দেখতে থাকে এ অঞ্চলের মানুষগুলো। কিন্তু ২০১২ সালে বাঁধটির গারুরগাঁও নামক স্থানের প্রায় ৬ শত ফিট এলাকা দেবে যায়। পরে গতবছর এ বাঁধটিতে বালুর বস্তা ফেলে সংস্কার করা হলেও বর্ষার পানিতে তা অনেকাংশই বিলীন হয়ে যায়।

এ বছর গত কয়েক দিনের বৃষ্টি আর ঝড়ো বাতাসে বালুর বস্তা পানিতে মিশে গিয়ে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে পুরো বাঁধটি। এলাকাবাসীর ধারনা বাধঁটি এখোনি সংস্কার করা না হলে পুরো বাঁধটি নদীতে বিলীন হয়ে যাবে। পদ্মা তীরের এ স্থানে বাধঁ নির্মান এই প্রথম নয়। গত জোট সরকারের আমলেও ১৩ কোটি টাকা ব্যায়ে এস্থানটিতে বাধঁ নির্মান করা হয়েছিলো। কিন্তু ব্যাপক লুটপাটের কারনে নির্মানের কয়েকদিন পরেই বাঁধটি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। অতিত অভিজ্ঞতা আর দুংস্বপ্ন এলাকবাসীকে উদিগ্ন করে তুলছে, তারা অচিরেই বাঁধটি সংস্কারের দাবী জানিয়েছে। । কামাড়খাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল জানান, বাঘবাড়ি এলাকায় প্রবল ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে, গত কয়েকদিন ভাঙ্গনে বরাইল প্রাথমিক বিদ্যালয়টি হুমকির মুখে পড়েছে,যেকোন মুহুর্তে স্কুলটি নদীতে বিলীন হয়ে যেতে পারে। পানি উন্নায়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আমজাদ হোসেন জানান, বাধঁটি সংস্কারের জন্য আমরা ইতিমধ্যে ৪ কোটি টাকা বরাদ্ধ চেয়েছি। বরাদ্ধ পেলে সংস্কার কাজ শুরু করা হবে। এছাড়া লৌহজং উপজেলার যশলদিয়া ও ৩নং মাওয়া ফেরি ঘাটে নদী ভাঙ্গনের খবর পাওয়া গেছে।
padha bhaggon
নদীর বাঁধ ভেঙ্গে ভাঙ্গছে ভূ-খন্ড। ছবিটি হাসাইল-চিত্রকড়া নদী বাঁধের গারুরগাঁও হতে তোলা।

Leave a Reply