বেসরকারি খাতে বাধা এলে প্রবৃদ্ধি অর্জন হবে না

Salehঅধ্যাপক ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ
আজ বসছে জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন। আগামী ৬ জুন সংসদে বর্তমান মহাজোট সরকারের শেষ বাজেট পেশ করা হবে। জাতীয় বাজেট ২০১৩-১৪ এবং উন্নয়ন ও অর্থনীতির প্রাসঙ্গিক বিষয়ে কালের কণ্ঠের সঙ্গে কথা বলেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির স্কুল অব বিজনেসের অধ্যাপক ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ। সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেছেন মোস্তফা হোসেইন

কালের কণ্ঠ : মহাজোট সরকারের শেষ বছরে প্রায় সোয়া দুই লাখ কোটি টাকার বাজেট ঘোষিত হতে যাচ্ছে। আগামী বাজেটকে আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : উন্নয়নশীল দেশের বাজেট সম্প্রসারণশীল হয়ে থাকে। দেশকে এগিয়ে নিতে হলে উন্নয়ন বাজেট করতে হয়। প্রশ্ন হচ্ছে এর বাস্তবায়ন নিয়ে। বড় অঙ্কের একটা বাজেট ঘোষণাই তো শেষ কথা নয়; দেখতে হবে তার বাস্তবায়ন কতটা হলো। আমাদের বাজেটে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয় না হওয়াটাও একটা বিষয়। সেটিও বিবেচনায় আনতে হবে। বাংলাদেশে সম্প্রসারণশীল বাজেট হওয়াটা যেমন গতানুগতিক, তেমনি বাস্তবায়ন না হওয়াটাও ধারাবাহিকতা। আর সে কারণেই বাজেট বিশ্লেষণ-সমালোচনাকালে নানা কথা চলে আসে। সরকার নির্বাচনী প্রচারণায় কাজে লাগানোর জন্য বৃহৎ পরিসরের বাজেট ঘোষণা করতে পারে। কিন্তু এতে প্রশ্নেরও সৃষ্টি করবে। বিশ্বাসযোগ্যতার প্রশ্ন আসবে। আমি মনে করি, মাঝারি একটা বাজেট হওয়াই ভালো। বড় বাজেট হওয়ার পেছনে দেখবেন, রাজনৈতিক বিবেচনায় কোনো কোনো খাতে বরাদ্দ বেড়ে গেছে। বাহুল্য কিছু প্রকল্পও থাকবে। রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার হবে এসব।

কালের কণ্ঠ : সরকার পরিবর্তনের পর বাজেট বাস্তবায়নে কোনো সমস্যা হবে বলে মনে করেন কি?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : আসলে রাজনৈতিক বিবেচনায় বাজেট হলে এটা পরিবর্তন হতে পারে। ধরা যাক, মহাজোট সরকারই আবার ক্ষমতায় এলো। তারাও কিন্তু এই বাজেট বাস্তবায়ন করতে পারবে না পুরোপুরি। ফলে তাদেরও পরিবর্তন আনতে হবে। আর যদি অন্য কোনো দল বা জোট ক্ষমতায় আসে, তাহলে তারাও এটাকে পরিবর্তন করবে।
অথচ বৃহৎ জনগোষ্ঠীর কল্যাণের জন্য মূল অর্থনৈতিক ইস্যুগুলোকে প্রাধান্য দিয়ে বাজেট প্রণয়ন হতে পারত। তারা সরকারের শেষ বছর হিসেবে একটা এডহক-ভিত্তিক বাজেটও ঘোষণা করতে পারত। যাতে করে সরকার পরিবর্তন হলে নতুন সরকারের চিন্তা অনুযায়ী বাজেট প্রণয়ন হতে পারে।

কালের কণ্ঠ : বিশাল ঘাটতি মাথায় নিয়ে কেন সরকার সম্প্রসারণশীল বাজেট প্রণয়ন করে?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : এতে জনগণের রাজনৈতিক সমর্থন পাওয়ার প্রয়াস থাকতে পারে। তাতে সুফল কী আসে? বিশাল ঘাটতি থাকে বাজেটে। বাজেটের অর্থ সংস্থানের জন্য সরকার বৈদেশিক ঋণ গ্রহণ করে, অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে অর্থ সংস্থান করে, তার পরও ঘাটতি থেকে যায়। তখন সরকারকে ব্যাংকিং খাত থেকে ঋণ গ্রহণ করতে হয়। এতে অর্থের ঘাটতিই শুধু নয়, কাজের ক্ষেত্রেও কাঙ্ক্ষিত ফল পাওয়া যায় না।
আসলে গরিব এই দেশটির জন্য যা যা করা দরকার, সেদিকে সরকারকে দৃষ্টি দিতে হবে। সরকারকে সামষ্টিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের কথা ভাবতে হবে। জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের কথা ভাবতে হবে। কর্মসংস্থানের মাধ্যমে জনজীবন সমৃদ্ধ করার কথা মাথায় রাখতে হবে। সামাজিক সেবা খাতে ব্যয় করা জরুরি। সর্বোপরি দারিদ্র্য বিমোচনের মতো বড় একটি লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে কাজ করতে হবে। সব মিলিয়ে বাজেটকে সব সময় ক্ষুদ্রায়তনে সীমাবদ্ধ রাখা সম্ভব হয় না। তবে বাজেটের আকার বাস্তবায়ন সামর্থ্যের আলোকেই নির্ধারণ করতে হবে।

কালের কণ্ঠ : তাহলে বাস্তবায়ন হবে কিভাবে?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : বড় অঙ্কের বাজেট হবে, এটা সবার জানা। রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি হবে, তা বোঝা যায়। রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে না। আমাদের এখানে যেটা হয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড তখন সহজ উপায় বেছে নেয়, পরোক্ষ কর, বিভিন্ন ফি, ভ্যাট- এগুলোর হার বাড়িয়ে দেয়। প্রত্যক্ষ কর যেমন- আয়কর আরো বৃদ্ধি করা হবে যুক্তিসংগত। বহু ব্যক্তি, যাদের সামর্থ্য আছে; কিন্তু আয়কর দেয় না। রাজস্ব আদায়ে আমাদের রাজস্ব বোর্ডের দক্ষতা বৃদ্ধি একটি প্রধান বিষয়, যা যৌক্তিক কর কাঠামো প্রণয়ন ও রাজস্ব আদায়ে সহায়ক হয়।

কালের কণ্ঠ : কিন্তু উন্নয়ন প্রকল্পগুলো কি সেই বিবেচনায় সাফল্য পায়? এই ব্যর্থতা থেকে রক্ষা পাওয়া যায় কিভাবে?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : আমাদের বাজেট মূল্যায়নের দিকটিও চিন্তা করতে হবে। আগের বাজেট কতটা ফলাফল বয়ে এনেছে, আমাদের দেখতে হবে। সব সময়ই অঙ্কের হিসাবটা বড় করে দেখানোর প্রবণতা লক্ষ করা যায়। প্রয়োজন হচ্ছে, গত বাজেট কত ভাগ সাফল্য লাভ করেছে তা দেখানো। এ ক্ষেত্রে প্রকল্পগুলো মূল্যায়ন করা অপরিহার্য। অথচ আমরা দেখি, বিগত বছরের প্রায় সব প্রকল্পই পরবর্তী অর্থবছরে চলমান থাকে। হয়তো কথা আসতে পারে, প্রকল্প তো চলমান থাকা স্বাভাবিক। কিন্তু আমাদের এখানে প্রকল্পের যথাযথ মূল্যায়ন হয় না। পরীক্ষা করে দেখতে হবে, কেন সেগুলো ব্যর্থ হলো। অসমাপ্ত প্রকল্প এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য মূল্যায়ন জরুরি। কিছু প্রকল্প এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। যেগুলো খারাপ, সেগুলো বাদ দিতে হবে। গত এডিপি থেকে প্রায় হাজারখানেক প্রকল্প গড়িয়ে আসছে সামনে।

কালের কণ্ঠ : ২০১২-১৩ বাজেট বাস্তবায়ন সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন কী?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : বাজেটে উন্নয়ন খাতে বিশেষ করে, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, জ্বালানি ও বিদ্যুতের উন্নয়ন, যোগাযোগ ব্যবস্থা, বিশেষ করে গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন অত্যন্ত জরুরি। কারণ গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থার সঙ্গে আমাদের কৃষি অর্থনীতির ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা সেটা করতে পেরেছি কি না। দ্বিতীয় দিক হচ্ছে প্রযুক্তির উন্নয়ন। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সুবিধা বৃদ্ধি না করতে পারলে সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি সম্ভব নয়। উৎপাদনশীলতা বাড়ানো সম্ভব নয়। সে লক্ষ্যেই ডিজিটাল রূপকল্প ঘোষণা হলো। বলতে দ্বিধা নেই, সেই ডিজিটাল রূপকল্প কিন্তু কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে সক্ষম হয়নি। চলতি বাজেটের কথা বিবেচনা করে আগামীটাও চিন্তায় আনতে হবে। বিনিয়োগ বাড়ানোর ক্ষেত্রে আমাদের সাফল্য-ব্যর্থতার চিত্র কেমন, তা সবাই জানেন। তবে আমি মনে করি, এডিপি যদি বিদ্যুৎ, জ্বালানি, ভৌত অবকাঠামো, যোগাযোগ ব্যবস্থা, কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সামাজিক নিরাপত্তার মতো কিছু খাতে সীমাবদ্ধ থাকত, তাহলে সাফল্য আসত বেশি।

কালের কণ্ঠ : বিভিন্ন মহল থেকে কালো টাকা সাদা করার প্রয়াসকে সততা ও স্বচ্ছতার নীতির পরিপন্থী হিসেবে বলা হয়। কিন্তু অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে স্পষ্ট হয়ে গেছে, এবারও কালো টাকা সাদা করার ব্যবস্থা থাকবে। কিভাবে দেখছেন?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : আমরা অনেকেই বলে আসছি, কালো টাকা সাদা করা যাবে না। তার পরও বারবার বৈধতা দেওয়া হচ্ছে। কালো টাকা সাদা করার জন্য সরকার যে যুক্তি দেখিয়ে আসছে, তা কিন্তু তাত্তি্বক ও বাস্তব- উভয় দিক থেকে সঠিক নয়। তার পরও বারবার কেন এই প্রয়াস নেওয়া হচ্ছে জানি না। বলা হয়, টাকাটা দেশে আছে। থাকলেই অবৈধকে মেনে নিতে হবে? কালো টাকাকে বৈধতা দেওয়ার কারণে কালো টাকার মালিকরা অনুপ্রাণিত হয়। সরকার তা না করে ব্যাপকভাবে জরিপ করলে কালো টাকার সন্ধান পাওয়া যাবে। সম্পদের সার্ভে করা হয় না কেন? আর কালো টাকা সাদা করার জন্য মাত্র ১০ শতাংশ কর নেওয়া হবে কেন? এর জন্য ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ করারোপ প্রয়োজন। এই সুযোগ একবার দেওয়ার পরই বন্ধ করে দিতে হবে; তবেই ভবিষ্যতে অবৈধ উপায়ে টাকা উপার্জন বা কর ফাঁকি দেওয়ার জন্য কালো টাকা গোপন করে রাখার প্রবণতা ক্রমান্বয়ে কমে একসময় বন্ধ হয়ে যাবে। কালো টাকা সৎভাবে ব্যবসা করার পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। বৃহৎ জনগোষ্ঠীর জীবনের মান উন্নয়নে কালো টাকা কাজে লাগে না।

কালের কণ্ঠ : অস্থিতিশীল পরিস্থিতির মাঝখানে কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জন করা কতটা সম্ভব? চলতি বাজেটের মূল্যায়নও করবেন কিভাবে?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : বাজেট বাস্তবায়নে দুর্বলতা ছিল। তবে এও ঠিক, প্রবৃদ্ধি অর্জনে আমাদের ধারাবাহিকতা ছিল উল্লেখ করার মতো। মুদ্রাস্ফীতি কম ছিল। আমাদের তো ছয় দশমিক দুই, ছয় দশমিক তিন এমনই প্রবৃদ্ধি অর্জিত হচ্ছিল। মানুষ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছিল। খুব দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছিলাম আমরা। কিন্তু সরকারের আর্থিক ব্যবস্থাপনায় দুর্বলতাকে অস্বীকার করি কিভাবে? এই দুর্বলতার কারণে আমরা কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জন করতে পারিনি।
আর রাজনৈতিক ইস্যু থাকবেই। সে জন্য অর্থনৈতিক সংস্কার কর্মসূচি বাধাগ্রস্ত হবে কেন? অনেক পেছনে চলে গেছে সংস্কার। আমার মনে হয়, অর্থনৈতিক ইস্যুগুলোতে যতটা নজর দেওয়া দরকার ছিল, তা দেওয়া হয়নি। এতে করে প্রবৃদ্ধি অর্জনে ব্যাঘাত ঘটবে। এবার প্রবৃদ্ধি ৬ শতাংশ হয় কি না সন্দেহ আছে। কর্মসংস্থানের ব্যাপারটিও পিছিয়ে গেছে। এতে বাংলাদেশকে দ্রুত মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে পরিণত বা উন্নীত করার যে স্বপ্ন দেখা হয়েছিল, সেটা অর্জন খুব সহজ হবে না। সুষম ও টেকসই উন্নয়নের মাইলফলকগুলোকে সামনে রেখে যদি এগিয়ে যাওয়া যেত, তাহলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরো উজ্জ্বল হতো। দেশে সমৃদ্ধি আসত। তবে আশাহত হওয়াও ঠিক নয়। এখনো কিন্তু সময় পেরিয়ে যায়নি। এখনো যদি যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হয়, স্বপ্ন পূরণ হতে পারে।

কালের কণ্ঠ : এডিপি বাস্তবায়নের হার হয় খুবই কম। তার পরও আগামী অর্থবছরের জন্য প্রায় ৭৪ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ অনুমোদিত হয়েছে এবার। এ ব্যর্থতার কারণগুলো কী?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : আসলে আমাদের এখানে যেসব উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়, তাতে গোড়াতেই কিছু দুর্বলতা থেকে যায়। সঠিক প্রকল্প বাছাই করা হয় না অনেক সময়। দ্বিতীয়ত, আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কথা বলতে হয়। ডিপিপি প্রণয়নও একনেকের অনুমোদন, টাকা ছাড় করানোর ব্যাপারটাও বাদ দিই কিভাবে? সবখানেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে অহেতুক কালক্ষেপণ হয়। দক্ষতার অভাব যেমন আছে, তেমনি স্বচ্ছতারও ঘাটতি আছে। পরিবীক্ষণ (মনিটরিং) যথাযথ হয় না। মনিটরিং যদি সঠিক না হয়, তাহলে প্রকল্প বাস্তবায়ন হলেও এর গুণগত দিক কিন্তু প্রশ্নাতীত হয় না। কাজের কোনো রোডম্যাপ নেই। এসব কারণে বছরের প্রথম তিন-চার মাস চলে যায়। কাজ এগোয় না। প্রকল্পগুলো মূল্যায়ন হলে, মনিটরিং হলে দেখা যেত কিছু প্রকল্প সংশোধন করা যায় এবং সেটা সম্ভব না হলে পরবর্তী বছরের আগেই বন্ধ করে দেওয়া যায়। কিছু প্রকল্প প্রয়োজনেই চলমান হয়ে যায়। কিন্তু আমাদের এখানে জগাখিচুড়ি চলতে থাকে।

কালের কণ্ঠ : উচ্চাভিলাষী বাজেটের ঘাটতি মোকাবিলায় ব্যাংকিং খাত থেকে সরকারকে ঋণ নিতে হয়; দেশের অর্থনীতি ও শিল্পায়নে এর প্রভাব কী হতে পারে?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : অন্যান্য খাত থেকে অর্থ সংস্থান করতে না পারলে সরকার ব্যাংকিং খাত থেকে ঋণ গ্রহণ করে। বাংলাদেশ ব্যাংককে যখন বলা হয় ঋণ দাও, তখন বাংলাদেশ ব্যাংক সরকারকে না করতে পারে না। এতে করে সবচেয়ে বেশি অসুবিধায় পড়ে প্রাইভেট সেক্টর। প্রাইভেট সেক্টরকে অসুবিধায় ফেলে দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন করতে হলে তা কখনো সফল হবে না। প্রাইভেট সেক্টরে এই বাধা এলে প্রবৃদ্ধি অর্জন করা সম্ভব হয় না। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংকের পদক্ষেপগুলোও সম্পূর্ণ কার্যকর হয় না। দেখতে হবে, মুদ্রানীতির সঙ্গে বাজেট কতটা সামঞ্জস্যপূর্ণ।

কালের কণ্ঠ : পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে নিজস্ব অর্থায়নের কথা বলা হচ্ছে; অথচ সেখানে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ছয় হাজার ৮৫২ কোটি টাকা। কিভাবে দেখছেন এই বরাদ্দকে?
সালেহউদ্দিন আহমেদ : পদ্মা সেতু বাস্তবায়নের জন্য দাতারা এগিয়ে এসেছিল। তাদের যথাযথ সহযোগিতা করতে পারিনি আমরা। ফলে তাদের আগ্রহ না থাকারই কথা। এর মধ্যে আমাদের দেশ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, অভ্যন্তরীণ তহবিল থেকেই পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন হবে। আমি মনে করি, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু করার যে উদ্যোগ সরকার নিয়েছে, তা সঠিক নয়। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু বাস্তবায়ন করতে গেলে দেশের অন্যান্য জরুরি খাতের উন্নয়নে বিরূপ প্রভাব পড়বে। পদ্মা সেতুর জন্য সরকার আগামী এডিপিতে ছয় হাজার ৮৫২ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছে। এই টাকাতেই তো আর সেতু হয়ে যাবে না। সুতরাং একবার এ কাজ শুরু করলে তা চলতে থাকবে কয়েক বছর পর্যন্ত। তার মানে হচ্ছে, পদ্মা সেতুতে ব্যয় অনেক বেড়ে যাবে এবং শুধু এখনই নয়, অর্থ সংস্থানের কাজ অব্যাহত রাখতে হবে। আবারও টাকা দিতে হবে। সে জন্যই বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে সেতুর কাজ বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশের জন্য খুবই ফলপ্রসূ হতো। এর পর কথা হচ্ছে, নিজস্ব অর্থায়নে সেতুটি করলে কাজের গুণগত মান নিশ্চিত করা কষ্ট হবে। স্বীকার করি, অসম্ভব কিছু না। তার পরও অর্থের সংস্থান ও বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে; টাকার সংস্থান করতে হলে জনগণের ওপর করের বোঝা বাড়াতে হবে। অথচ এটা যদি বিশ্বব্যাংকের মাধ্যমে হতো, তাহলে এই বাড়তি বোঝাটা প্রকট হতো না।

কালের কণ্ঠ : আপনাকে ধন্যবাদ।
সালেহউদ্দিন আহমেদ : আপনাকেও ধন্যবাদ।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply