মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের ভোটারগণ উন্নয়নের হিসাব মেলাচ্ছেন

Munshigonj_1_Asonদুইজন ভিআইপি শক্তিশালী প্রার্থীর সাথে লড়াই করে মুন্সীগঞ্জ -১ আসনে বিজয়ী হয়েছিলেন সুকুমার রঞ্জন ঘোষ। তিনি ভোট পান ১ লক্ষ ৪৩ হাজার ৯৫৯টি। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বিএনপির প্রার্থী হিসাবে ভোট পান ৯৯ হাজার ২৩৩টি। এদিকে সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বিকল্প ধারা থেকে নির্বাচন করে ভোট পেয়েছেন মাত্র ৩৭ হাজার ৭০৯টি। দুইজন জাদরেল প্রার্থীকে বড় ব্যবধানে ধরাশায়ী করে দেশজুড়ে আলোচিত হন শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সুকুমার ঘোষ। বি.চৌধুরী এবং শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন দীর্ঘকাল এই আসনে রাজনীতিতে রাজত্ব করেছেন। এ দু’জনের কারণে এ আসনটি ছিল ভিআইপি। রাজনীতিতে এই দু’জন ছিলেন চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। বিএনপি থেকে মনোনয়ন নিয়ে ১৯৭৯, ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে এখান থেকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়েছেন বি. চৌধুরী। তখন শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন সেই নির্বাচন গুলোতে প্রার্থী ছিলেন না। মাঝের ৮৬ ও ৮৮ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টী থেকে এবং ৭৩ সালে আ’লীগ থেকে বিজয়ী হন শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। এসময় আবার বি.চৌধুরী এ নির্বাচন গুলোতে প্রার্থী ছিলেন না। বি. চৌধুরী রাষ্ট্রপতি হলে তার পুত্র মাহী বি. চৌধুরী ২০০২ সালে বিএনপি থেকে এবং ২০০৪ সালে বিকল্পধারা থেকে প্রার্থী হয়ে উপ-নির্বাচনে জয়ী হন। ২০০১ সালের নির্বাচনে বি. চৌধুরী ২৯ হাজার ৪১০ ভোটের ব্যবধানে সুকুমার রঞ্জন ঘোষকে পরাজিত করে ছিলেন। বি. চৌধুরী নব্বইর পরবর্তী ৩টি নির্বাচনেই প্রায় এক তৃতীয়াংশ ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়েছিলেন। তখন শ্রীনগর উপজেলার ১৪টি এবং সিরাজদিখান উপজেলার আংশিক ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে ছিল মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের নির্বাচনী এলাকা ছিল। ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় শ্রীনগরের ১৪টি ইউনিয়ন আর সিরাজদিখানের ১৪টি ইউনিয়ন নিয়ে মোট ২৮টি ইউনিয়ন নিয়ে মুন্সীগঞ্জ-১ আসন গঠিত হয়। পরবর্তীতে এ আসনে নতুন করে ৮টি ইউনিয়ন সংযুক্ত হওয়ায় এখানে ভোটার সংখ্যাও অনেক বেড়ে যায়। ৭৫’ এর রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের পর এ আসন থেকে আ’লীগের প্রার্থী নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথম বারের মতো সুকুমার রঞ্জন ঘোষের বিজয়ী হওয়ার চারটি প্রধান কারণ ছিল। ১) মাঠ পর্যায়ে তার ব্যাপক জনসংযোগ ও দলীয় ঐক্য বজায় ছিল, ২) জাতীয় পর্যায়ে বিএনপির জনপ্রিয়তায় ধ্বস ছিল, ৩) আ’লীগের বিপক্ষে ভোট তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে যাওয়া এবং ৪) বি. চৌধুরী রাজনীতির শীর্ষে ক্ষমতায় থেকে এলাকায় কম উন্নয়ন কর্মকান্ড করায় সুকুমার রঞ্জন ঘোষের বিজয়ী হওয়া সহজ হয়েছে বলে অনেকেই মনে করছেন।

চার বছর শেষে ও মহাজোট সরকারের বিজয়ের বছরে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের চিত্র অনেক পাল্টে গেছে। এখানে আওয়ামীলীগ প্রথম ধাক্কা খায় আড়িয়ল বিলে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ করতে গিয়ে। এলাকায় ব্যাপক আন্দোলনের মুখে তারা সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে বাধ্য হয়। এই আন্দোলনের ধাক্কায় পরবর্তীতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে শ্রীনগর উপজেলায় ফল বিপর্যয় ঘটে। শ্রীনগরে আ’লীগের সমর্থনে ১৪টি ইউনিয়নের মধ্যে মাত্র তিনজন প্রার্থী ইউপি চেয়ারম্যান বিজয়ী হয়। এখন আড়িয়ল বিল ইস্যু কিছুটা ফিকে হয়ে এসেছে। বর্তমানে মানুষ উন্নয়ন কর্মকান্ডের হিসাব মিলাচ্ছেন। সুকুমার রঞ্জন ঘোষের প্রধান প্রধান নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছিল শ্রীনগরে গ্যাস সংযোগ চালু করা, রাঢ়ীখালে একটি বিশ্ববিদ্যালয় চালু করা, শিল্প কারখানা স্থাপন করা, শ্রীনগরকে একটি মডেল পৌরসভা করা, ধলেশ্বরী নদীর তীরে স্যাটেলাইট সিটি নির্মাণ করা, বিদ্যুৎ লাইনের সংস্কার করা, ভাগ্যকুলে একটি ৫০শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল স্থাপন করা, কল্লিগাঁও সেতু সমাপ্ত করা, শ্রীনগর বাজার ও মির্জাকান্দায় সেতু নির্মাণ করা ও শ্রীনগরকে ডিজিটাল শহর হিসাবে গড়ে তোলা। এই প্রধান প্রতিশ্রুতিগুলোর একটিও বাস্তবায়িত হয়নি। ভোটারগণ মনে করেছিলেন বি. চৌধুরী ক্ষমতায় থেকেও তেমন উন্নয়ন করতে পারেননি। আ’লীগ ক্ষমতায় আসলে সুকুমার ঘোষ সেটা পারবেন। কিন্তু প্রতিশ্রুতির কিছুই করতে না পারায় তার জনপ্রিয়তায় ধ্বস নেমেছে বলে মনে করেন এলাকাবাসী।
Munshigonj_1_Ason
মুন্সীগঞ্জ সদর থেকে শ্রীনগর যাওয়ার পথে কল্লিগাঁও-এ অর্ধনির্মিত ব্রীজটি দেখিয়ে সিএনজি চালক বলেন, এই ব্রীজটি নির্মাণ করতে না পারায় সুকুমার ঘোষের ভোট ২০ হাজার কমে গেছে। তবে দীর্ঘদিন পরে সম্প্রতি যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ব্রীজটি সম্পন্ন করার জন্য উদ্বোধন করেছেন। শিঘ্রই এখানে কাজ শুরু হলে নির্বাচনী ভোটের হাওয়ায় আ’লীগ বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে পারবে। শ্রীনগর বাজার থেকে রাঢ়ীখাল হয়ে বাঘরা পর্যন্ত রাস্তাটি গত ৪ বছরেও সংস্কার করা হয়নি বললেই চলে। ভাগ্যকুল বাজারটি অর্ধেকের বেশি অংশ রাক্ষসী পদ্মার গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙ্গনরোধে সোয়া কোটি টাকা বরাদ্দ আসলেও কাজ হয়ে সর্বোচ্চ ২০ ভাগ। বাকি কাজের অর্থ পদ্মার পানিতে ভাগাভাগিতে অন্যরা লাভবান হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ভাগ্যকুল উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিকে ৫০ শয্যার হাসপাতাল তৈরির পরিবর্তে দখল করে ফেলেছেন ভাগ্যকুল ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন মিটুল। তিনি হাসপাতালের আবাসস্থাল ভেঙ্গে নিয়ে গেছেন। এখানকার প্রাচীন গাছ কেটে নিয়েছেন এবং পুকুর ও পাশ্ববর্তী খাল ভরাট করে প্লট তৈরি করে বিক্রি করে দিয়েছেন। হাইকোর্ট স্বপ্রনোদিত রুল জারীতে শেষ পর্যন্ত তার হাত থেকে হাসপাতালটি রক্ষা পায়। ভাগ্যকুলের এক আ’লীগ নেতা জানান, তিনি সহ এখানকার ১০/১২ জন আ’লীগ নেতা নির্যাতিত হয়েছেন একটি বিশেষ বাহিনীর হাতে। আমাদের এখানকার অবস্থা হচ্ছে ভিক্ষা চাই না কুত্তা খেদানোর মতো। শতবর্ষের প্রাচীন ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল উচ্চ বিদ্যালয়ে গত ৪ বছরে কোন নির্বাচন হতে দেয়নি একটি বিশেষ বাহিনী। এসব ঘটনা আগামী নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থীর পক্ষে নীতিবাচক প্রভাব পড়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে এখানকার ভোটাররা মনে করে।

আড়িয়ল বিলে একটি ডাঙ্গা (বড় পুকুর) বেচাকিনায় বড় অংকের চাঁদাবাজীর অভিযোগ উঠেছে। সন্ত্রাস ও অপরাধের জনপথ বাঘরার নতুন আপদ হিসেবে যোগ হয়েছে মাদকের নেশা। এখানে একজন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এমপি সাহেব এখানে একটি ফাগুন মেলা উদ্বোধন করেন। কিন্তু সেই ফাগুনের মেলায় পরবর্তীতে গাজার ছড়াছড়ি ঘটে। এতে স্থানীয় নেশাখোররা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠে। দোগাছি থেকে কোলাপাড়া বাজার পর্যন্ত রাস্তাটি নির্মিত হতে যাচ্ছে। এতে খুশি এখানকার মানুষ। তবে এখনো কাজ শুরু হয়নি। খালে পানি এসে যাওয়ায় এ বছর কাজ করাও সম্ভব হবে না বলে মনে করছেন এলাকাবাসী। শ্যামসিদ্দি ইউনিয়নের নবনির্বাচিত যুবলীগের সভাপতি আলী আকবর নারী কেলেঙ্কারী গনধোলাইর বিষয়টি শ্রীনগরে সবচেয়ে আলোচিত সংবাদ হয়ে উঠে। তবে এর ভিতরে রয়েছে এই ইউনিয়নের দুই নেতার দ্বন্দ্ব। সম্প্রতি শ্রীনগরের মাশুরগাও এলাকায় ২০৬০ বোতল ফেন্সিডিল ধরা পড়ে। এই চালানটি ধরিয়ে দিতে নাকী ভূমিকা রাখেন আলী আকবর। এরই পরিণতিতে আলী আকবরকে ধরিয়ে দেয় প্রতিপক্ষ। ফেন্সিডিল ধরিয়ে দেয়ার বিষয়টি আলী আকবর স্বীকার করেননি। যদিও তিনি দাবী করেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় তাকে ফাঁসানো হয়েছে। শ্রীনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে নির্বাচন হতে দেয়া হয়নি। এখানে বিএনপি নেতা আশরাফ হোসেন অনেক দেন দরবার ও অভিযোগ করেও প্রার্থী হতে পারেননি।

রাঢ়ীখাল স্যার জেসি বোস ইন্সটিটিউশনের সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এমপি। এখানে নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। মারাত্মক দৈন্যদশায় ভংগুর অবস্থায় রয়েছে জগদীশ জাদুঘরটি। এখানে একটি বিনোদন কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। রাঢ়ীখালে সম্প্রতি সুন্নাতে খৎনা অনুষ্ঠানে খেতে বসা নিয়ে তর্কবিতর্ক ও হাতাহাতির পরে একজন হার্টের রোগী মৃত্যুবরণ করেন। এ নিয়ে নিরাপরাধ লোকদের ফাঁসানোর বিষয়টি বেশ আলোচিত হচ্ছে। কুকুটিয়া কমলাকান্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষককে গোয়ালীমান্দ্রার একটি মন্দির ভাঙ্গার সন্দেহে গ্রেপ্তার করা হয়। এটিও রাজনৈতিক কারণে হয়েছে বলে একাধিক শিক্ষক জানান। বাড়ৈখালীর মানুষ এখনো আড়িয়ল বিল নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে। আড়িয়ল বিল নিয়ে প্রখ্যাত লেখক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা করাটাও তারা ভাল চোখে দেখেনি। চৌধুরী বর্তমানে জামিনে রয়েছেন। হাঁসাড়া ইউনিয়নের আ’লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দু’জনই রাজনীতিতে নবাগত। সভাপতি আবার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। তার বিরুদ্ধে মানুষ খারাপ ব্যবহারের অভিযোগ করেন। শ্রীনগরের বিভিন্ন পর্যায়ে অনেক নবাগতকে গুরুত্বপূর্ণ পদ দেয়া হয়েছে। এরা অনেকেই বিতর্কিত হয়ে পড়েছেন। একাত্তরের শান্তি কমিটির সদস্য পুত্রদের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। পাটাভোগ ইউনিয়নে ছাত্রলীগের শীর্ষ এক নেতা আ’লীগের এক নেতার মেয়ের ঝামেলা নিয়ে অনেক কথা শোনা যাচ্ছে। তন্তর, কুকুটিয়া, বীরতারা, ষোলঘর, আটপাড়াসহ সব ইউনিয়নের মানুষই উন্নয়নের হিসাব মিলাতে গিয়ে হতাশ হচ্ছেন। সুকুমার রঞ্জন ঘোষের ঘনিষ্ট বন্ধু ব্যবসায়িক অংশীদার সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে ভূমি দস্যুতার অনেক অভিযোগ উঠেছে। শ্রীনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের জমি জাল দলিল করে হাতিয়ে নেতার চেষ্টা, সাবেক এক চেয়ারম্যানের জাল দলিল করা জায়গার পাওয়ার অব এটর্নী নেয়া এবং ক্ষমতার জোরে ব্যক্তিগত সম্পত্তি দখলে নেয়ার চেস্টার কথা শোনা যাচ্ছে। এ ঘটনা সুকুমার রঞ্জন ঘোষের ইমেজকে মারাতœকভাবে ক্ষুন্ন করছে।

এই নির্বাচনী এলাকায় আগামী নির্বাচনে সুকুমার ঘোষকে আ’লীগের প্রার্থী বলে মনে করছে এলাকার মানুষ। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. বদিউজ্জামান ডাবলু এই প্রথম নিজের প্রচারের জন্য শ্রীনগরে পোস্টার ফ্যাস্টুন লাগিয়েছেন। অনেক আ’লীগ সমর্থক মনে করেন, ডাবলুকে আ’লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ-উল আলম লেনিন মাঠে নামিয়েছেন। লেনিন বালাশুর যদুনাথ রায়ের বাড়িতে অগ্রসর বিক্রমপুরের ব্যানারে একটি জাদুঘর ভবন নির্মাণ করছেন। এখানে জমি লিজ নিয়ে তিনি অনেক কর্মকান্ড করছেন। এ নিয়ে তার স্থানীয় এমপি সাথে সম্পর্কের টানাপোড়েন রয়েছে। যদুনাথ রায়ের বাড়ির দুটি বড়পুকুর অবাণিজ্যিক লীজ নিয়ে ব্যাপকহারে মাছ চাষের অভিযোগ রয়েছে। এখানে নৌ-জাদুঘর নির্মাণের কোন নিদর্শন চোখে পড়েনি। অগ্রসর বিক্রমপুর কর্তৃপক্ষ জাদুঘর ভবনের সামনে কলাচাষের জন্য আরেক পক্ষকে লীজ দিয়েছেন। জাদুঘর ভবনটি নির্মিত হলেও ভিতরে কোন উপকরণ সংরক্ষণ করা হয়নি। এখানে এলাকাবাসীর একটি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবী রয়েছে।

সুকুরমার রঞ্জন ঘোষের বিরুদ্ধে সরাসরি চাঁদাবাজীর কোন অভিযোগ নেই। স্থানীয়ভাবে তাঁর কোন প্রত্যক্ষ ক্যাডার বাহিনীও নেই। তাকে শ্রীনগর বাজারের অনেকেই ভালো লোক হিসেবে মন্তব্য করেছেন। তবে এলাকায় বিচ্ছিন্নভাবে সন্ত্রাসী গ্রুপ গজিয়ে উঠেছে। এগুলোকে এখনি নিয়ন্ত্রণ করা না হলে আগামী নির্বাচনে ভোটের বাক্সে তা প্রভাব পড়ার সম্ভবনা রয়েছে। এখানে নির্বাচনী প্রচারের সাথে উন্নয়ন কাজ না হওয়ায় ভোটাররা মুখ ঘুরিয়ে নিতে পারে বলে অনেকেই আশংকা করছে। উন্নয়নের বিষয়টি আগামী নির্বাচনে সুকুমার রঞ্জন ঘোষের বিজয়ী হওয়ার পথে প্রধান অন্তরায় হয়ে দাঁড়াতে পারে।


শ্রীনগরে বিএনপি বহুভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনকে একক প্রার্থী হিসাবে বিবেচনা করা হলেও দুটি প্রধান গ্রুপে স্পষ্ট দ্বন্দ্ব দেখা যাচ্ছে। একটি গ্রুপকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন শ্রীনগর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো: মমিন আলী। আর আরেক গ্রুপকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু। এর বাইরে অনেকেই মুন্সীগঞ্জ-২ আসনের সম্ভাব্য প্রার্থী কেন্দ্রীয় বিএনপির কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহার সাথে যোগাযোগ রাখছেন। এসব দ্বন্দ্ব সংঘাতের কারণে বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতাকে ইতোমধ্যে বহিস্কার করা হয়। এসব বহিষ্কারের সাথে মমিন আলীর হাত রয়েছে বলে বহিস্কৃতরা মনে করছেন। নির্বাচনকে সামনে রেখে সাম্প্রতিক সময়ে মাঠে নেমেছেন বিএনপির আরেক নেতা ডা. আব্দুল হাকিম। তিনি কয়েক স্থানে মেডিক্যাল ক্যাম্প করে এলাকাবাসীকে সেবা দিচ্ছেন। এটাকে অনেকেই শ্রীনগরের রাজনীতিতে তার সক্রিয় হওয়ার চেস্টা বলে মনে করছেন। তবে তার কোন কর্মী বাহিনী এখনো সৃষ্টি হয়নি। তিনি এক সময় ডা. বি. চৌধুরীর পিএস ছিলেন। ডা. বি চৌধুরীর রাজনৈতিক দল বিকল্প ধারার কোন কর্মকান্ডই শ্রীনগরে নেই। নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়ের পরে পিতা-পুত্র শ্রীনগরে কোন পর্যায়েই যোগাযোগ রাখছেন না। কোন রাজনৈতিক সভা সমাবেশও করেননি। তার এক সময়ের অনুসারীরা আস্তে আস্তে তার সাবেক দল বিএনপির সাথে মিশে যাচ্ছে। এরপরও বিকল্পধারার সাথে যদি বিএনপির ঐক্য হয় এবং পিতা/পুত্রের কেউ প্রার্থী হয় তাহলে শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনকে রাজধানীর কোন একটি আসন থেকে নির্বাচন করতে হতে পারে। এর উল্টোটাও হতে পারে।

আগামী নির্বাচন শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ও সুকুমার রঞ্জন ঘোষের মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলেই এলাকার মানুষের ধারণা। শাহ মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে জাতীয় পার্টির শাসনামলে সন্ত্রাস লালনের অভিযোগ রয়েছে। তবে তার সময়ে মুন্সীগঞ্জ-১ নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন হয় বলে তার পক্ষের লোকেরা দাবী করছেন। দ্রুততম সময়ের মধ্যে সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এলাকায় দৃশ্যমান উন্নয়ন কাজ করতে না পারলে আগামী নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার সম্ভবনা ক্ষীণ হয়ে যাবে।

মুন্সীগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply