জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন : গোপন ব্যালটে বিএনপির প্রার্থী সিলেকশন!

মুন্সীগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনকে সামনে রেখে দু’ভাগে বিভক্ত জাতীয়তাবাদী দল সমর্থিত আইনজীবীরা ঐক্যবদ্ধ হলেন। নির্বাচনে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও যুগ্ন সম্পাদক পদে একাধিক প্রার্থী থাকায় তা ভোটের মাধ্যমে সিলেকশন করা হয়। কোন রকম বিরোধ ও সমালোচনা এড়াতে এ পথ বেছে নেয়া হয় বলে জাতীয়তাবাদী দল সমর্থিত একাধিক আইনজীবীর অভিমত। মুন্সীগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতিতে জাতীয়তাবাদী দলের ৭ সদস্যের একটি নীতি নির্ধারনী ইলেকশন বোর্ড এ পহ্না অবলম্বন করেন। রোববার বিকেল ৫টার দিকে গোপন ব্যালটের মাধ্যমে ওই ৭ সদস্য ভোট দিয়ে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও যুগ্ন সম্পাদক পদের প্রার্থী নির্ধারণ করেন। নির্বাচনে ৭ সদস্যের ৭ ভোটের মধ্যে সভাপতি পদের প্রার্থী, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি ও শহর বিএনপির সাবেক সভাপতি আব্দুল মান্নান পান ৫ ভোট। একই পদের প্রার্থী সাবেক পিপি আশরাফ-উল ইসলাম ১ ভোট, মালেক মোল্লা ১ ও অপর প্রার্থী জাকারিয়া মোল্লা কোন ভোট পাননি।


সাধারণ সম্পাদক পদে গতবারের পরাজিত প্রার্থী, মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সহ-সভাপতি মো. মাসুদ আলম ৪ভোট, সাইফুল ইসলাম মাহমুদ ২ ও খান আতাউর রহমান হিরু পান ১ ভোট। যুগ্ন সম্পাদক পদে পারভেজ আলম ৩ ভোট, মজিবুর রহমান শেখ ২ ও খান জসিম পান ১ ভোট। অপর একটি ভোট এ পদের কোন প্রার্থীকে দেয়া হয়নি। জাতীয়তবাদী দল সমর্থিত ৭ সদস্যের নীতি নির্ধারনী বোর্ডের সদস্যরা হলেন-শাহ আলম মানিক, আমির হোসেন-১, সাবেক সাধারণ সম্পাদক, শহর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি সালাউদ্দিন খান স্বপন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক, জেলা বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক মো. তোতা মিয়া, জেলা আইনজীবী সমিতির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো. এমারত হোসেন, মান্নান মুন্সী ও বিএনপি নেত্রী রোজিনা ইয়াসমিন। অনেকের মতে, এবারই প্রথম সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িতদের প্রার্থী করা হচ্ছে। বিগত দিনে সভাপতি কিংবা সাধারণ সম্পাদক পদে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয়-এমন লোকদের প্রার্থী করা হয়েছিল।


সূত্র মতে, মুন্সীগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত বছর জাতীয়তাবাদী দল সমর্থিত দুই গ্রুপের মধ্যে বিরোধ তুঙ্গে উঠে। নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদের প্রার্থী হওয়া নিয়ে বিএনপি ঘরানার সাবেক ২ সাধারণ সম্পাদক তীব্র বিরোধে জড়িয়ে পড়েন। ওই নির্বাচনে বিএনপির লিডিং পর্যায়ের দুই নেতা সাধারণ সম্পাদক পদে আলাদা প্রার্থী দেন। গত বছরের ৩০ শে জুন অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হন নাসিমা আক্তার। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী হন মো. এমারত হোসেন ও সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুদ আলম। ভোট যুদ্ধে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীকে পরাজিত করে বিএনপি সমর্থিত দুই প্রার্থী সমান সমান ভোট পান। পরে ওই দুই প্রার্থীর মধ্যে পুনরায় নির্বাচন হলে মো. এমারত হোসেন জয়ী হন। বিরোধ থাকায় ওই নির্বাচনে সভাপতিসহ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদ হারাতে হয় জাতীয়তাবাদী দল সমর্থিত আইনজীবীদের।

উল্লেখ্য, আগামী ৩০ জুন সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত জেলা আইনজীবী সমিতির ভবনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মনোনয়ন জমা দেয়ার শেষ দিন ১৩ জুন। প্রত্যাহার ১৬ জুন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি সালাহউদ্দিন ঢালী। সহকারী নির্বাচন কমিশনার হিসেবে রয়েছেন- মো. আরেফিন সুমন, এসআর রহমান মিলন।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি

Leave a Reply