মুন্সীগজ্ঞে আলু নিয়ে বিপাকে কৃষক

মো: রুবেল ইসলাম: ন্যায্য দাম না পাওয়ার মুন্সীগজ্ঞের আলু এখন কৃষকের গআয় ফাঁস হয়ে দাড়িয়েছে। বাজারে আলুর চাহিদা না থাকায় ক্রেতা ও পাইকার পর্য়ন্ত নেই। এদিকে লণিœ ব্যবসায়ীরা কৃষককে প্রতিনিয়ত চাপের মুখে রেখেছেন ত দেও লগ্নি পরিশোধের জন্য। বাজাওে আলুর খুচরা মূল্য কেজি প্রতি৯ থেকে সাড়ে ৯ টাকা। আর আলু রোপণের সময় এর কেজি প্রতিখরচ পড়েছে ১২ টাকা। আলু উত্তোলনের সময় মণ প্রতি দাম হাঁকা হয়েছিল ১৩৫ থেকে ৩’শ টাকা পর্যন্ত। মাঝখানে তা কমে গিয়ে দাঁড়ায় ৩২০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত। তা আবার বর্তমানে কিছুটা দাম বেড়ে বাজার দাঁড়িয়েছে ৩৬০ থেকে ৩৮০ টাকা মণ দওে।

অথচ একমণ আলু রোপণ করতে সব মিলিয়ে খরচ পড়েছে ৪৮০ থেকে ৫০০ টাকা মণ। এই নিয়ে কৃষকদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে। লৌহজং উপজেলাকৃষি কর্মকর্তা কাজী হাবিবুর রহমান জানান, লক্খ্যমাত্রার চেয়ে বেশি আলু উ্তপাদন হওয়ায় এবং হিমাগারগুলোতে আলু ধারনক্খমতা কম হওয়ায় রাস্তায়, বাড়ির আঙিনাসহ বিভিন্নভাবে আলু সংরক্খন করায় আলুতে পচন ধরেছে এবং আলুর মূল্য কমে যাওয়ায় এবং হিমাগারে সংরক্খিত আলুর বস্তার ভ াড়া বৃদ্ধি করায় কৃষক হিমসিম খাচ্ছে আলু সংরক্খনে।

এবার মুন্সীগজ্ঞ জেলায় ালুর চাষের লক্খ্যমাত্রা ৩৬ হাজার ৯৪২ হেক্টর জমি থেকে বেড়ে ৩৭ হাজার ৩৩০ হেক্টর জমিতে দাড়ায়। চাষকৃত জমির উ্তপাদন লক্খ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৭ লাখ ৫ হাজার ্র ৫৯২ মেট্রিক টন, আর উ্তপাদন হয়েছে ১২ লাখ ৫০ হাজার ৪০৪ মেট্রিকটন,অর্থ্তা লক্খ্যমাত্রার চেয়ে ৫ লাখ ৪৫ হাজার মেট্রিক টন আলু এবার মুন্সীগজ্ঞে বেশি উ্তপাদন হয়েছে। মুন্সীগজ্ঞ জেলায় ৬৭টি হিমাগার রয়েছে। এতে ধারনক্খমতা হচ্ছে ৪ লাখ মেট্রিকটন বাকি সাড়ে ৮ লাখ মেট্রিকটন আলু জমি,,বাড়ির আঙিনা, ঘরের মেঝেতে, রাস্তার দুই পাশে সারি বেধে রাখা হয়েছে।

এবার অতি বর্ষণ এবং মহাসেনের প্রভাবে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এবং অকাল বর্ষা দেখাদেয়ায় জমির নিচু এলাকা পানিতে ডুবে যায় ফলে এসব এলাকায় সংরক্খিত আলুতে পচন ধরেছে। এসব আলু বিক্রির জন্য কৃষক দিশেহারা হলেও আলু বিক্রির পাইকার পাওয়ায় যাচ্ছে না। লৌহজং উপজেলায় খিদিরপাড়া গ্রামের আলু চাষী মোসলেম শিকদার জানানম, এবার কৃষকরা আলু চাষ কওে অর্থনৈতিকভাবে চরম ক্খতিগ্রস্থ হয়েছে টংগীবাড়ী উপজেলার বালিগাঁও গ্রামের আলুচাষী সুলতান খান জানান, হিমাগারের ভাড়া বৃদ্ধি এবং সংরক্খনের অভাবে এবার আলু নিয়ে কৃষক চরম ভোগান্তিতে পড়েছে।

Leave a Reply