মুন্সীগঞ্জে অপহৃত কৃষক উদ্ধার, গ্রেফতার- ৩

ss1মোঃ শরিফ ভূইয়া: সদর উপজেলার ধলাগাঁও বাজার থেকে অহৃত কৃষক মোঃ শাহজানকে (৫০) ২০ ঘন্টা পর চম্পাতলা করলা বাগানের ভেতর থেকে বুধবার বিকালে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়েছে অপহরণকারী মোঃ সুজন (৩০), তার স্ত্রী রেখা বেগম (২৮) ও মোঃ শাওন কে (২৫); তাদের দেয়া তথ্য মতে সন্ধ্যায় শহরের দেওভোগ এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে অপহরনের সময় ব্যবহৃত মোটর সাইকেল। সদর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম জানান, মুন্সীগঞ্জ আদালতে পারিবারিক কাজ শেষে টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আপরকাঠির বাড়িতে ফেরার পথে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এই অপহরণের ঘটনা ঘটে। ধলাগাঁও বাজার থেকে

অপহরণ করে মধ্যবিত্তের এই কৃষককে প্রায় দেড় কিলো মিটার দূরে পার্শ্ববর্তী চম্বাতলা করলা বাগানে নিয়ে যায়। আটকে রেখে নানা ভয় দেখিয়ে পরিবারের কাছে মোবাইল ফোনে ২ লাখ টাকা মুক্তিপন দাবী করে। করলা বাগানেই তার দূর্বিসহ রাত কাটে এই কৃষকের।
বিষয়টি অবগত হয়ে পুলিশ কৌশলে অভিযান চালিয়ে বিকাল ৩টায় উদ্ধার করে নিয়ে আসে। সেখান থেকে মুক্তি পেয়ে মোঃ শাহজাহান রুদ্ধশ্বাস ২০ঘন্টার কাহিনী বর্ণাণা করেন।
ss2
বাংলাপোষ্ট২৪
======================

মুন্সীগঞ্জে ২২ ঘন্টা পর অপহৃতকে উদ্ধার

রুদ্ধশ্বাস অভিযানের ২২ ঘন্টা পর মুন্সীগঞ্জের আদালত থেকে বাড়ি ফেরার পথে অপহৃত শাহজাহান শেখ(৫৫)-কে পুলিশ উদ্ধার করেছে। পুলিশের সাড়াশি অভিযানে বুধবার বিকেল ৪টার দিকে টঙ্গিবাড়ী উপজেলার সোনারং ব্রিজের ঢালে অপহরণকারীরা তাকে ফেলে রেখে যায়। এর আগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার পর অপহরণকারীরা ২ লাখ টাকা মুক্তি দাবি করে। অপহ্নত শাহজাহান শেখের বাড়ি জেলার টঙ্গিবাড়ী উপজেলার আড়িয়ল-বালিগাঁও ইউনিয়নের আপরকাঠি গ্রামে।

সদর থানার ওসি (তদন্ত) ইয়ারদৌস হাসান জানান, মঙ্গলবার শাহজাহান শেখ তার এক আত্মীয়ের মামলার জামিন নিতে মুন্সীগঞ্জ আদালতে আসেন। আদালতে কাজ কর্ম সেরে অটোবাইক দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকে দেওয়ানবাজার এলাকায় পৌঁছলে ৩-৪টি মোটর সাইকেল দিয়ে একদল অপহরণকারী অটোবাইকের গতিরোধ করে তাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে অপহৃত ব্যক্তির ব্যবহৃত মোবাইল ফোন নম্বার (০১৭৭৮৮৪৭৩১১) থেকে কল করে অপহরণকারীরা শাহজাহানের পরিবারকে অপহরণ হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করে। এ সময় শাহজাজানের ছেলে পিন্টু শেখের মোবাইল ফোনে অপহরণকারীরা ২ লাখ টাকা মুক্তিপন দাবি করে।

অপহ্নত শাহজাহানের ছেলে পিয়ার হোসেন পিন্টু শেখ জানান, কললিস্টের মাধ্যমে অপহরণকারী দলটির অবস্থান শনাক্ত করে পুলিশ। এরপর বুধবার সকাল থেকে সদর থানার ওসি (তদন্ত) মো. ইয়ারদৌস হাসানের নেতৃত্বে সদর থানার একদল পুলিশ উদ্ধার-অভিযানে নামেন। তারা রামপাল ও বজ্রযোগিনী ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান নেয়। সর্বশেষ চম্পাতলা স্কুলের পাশে অবস্থান নিশ্চিত হয়ে পুলিশ চর্তুদিক ঘেরাও করে রাখেন। এরই মধ্যে অপহরণকারীরা স্থান পরিবর্তন করেন। পরে এক পর্যায়ে বাধ্য হয়ে বিকাল ৪টার দিকে সোনারং ব্রিজের ঢালে তার বাবাকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় অপহরণকারীরা। এদিকে, অপহরণকারীদের শনাক্ত করা হয়েছে বলে পিন্টু জানান। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তÍতি চলছে।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি ডট কম

Leave a Reply