কবর থেকে মরদেহ উত্তোলন করে ময়নাতদন্ত করার দাবিতে মানববন্ধন

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে কাজের মেয়েকে হত্যার অভিযোগ এনে ময়নাতদন্ত ছাড়া লাশ দাফন করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করা হয়েছে। ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী নিহত কাজের মেয়ে চিনু আক্তারের (১৮) মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করে ময়নাতদন্ত করে হত্যাকারীদের বিচার দাবি করেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে বালিগাঁও বাজারে বালিগাঁও-ইসলামপুর গ্রামের কয়েকশ’ নারী-পুরুষ এ বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনে অংশ নেয়। এ কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেন নিহত চিনুর বাবা করিম মোল্লার বাড়িওয়ালা আব্দুল লতিফ ঢালী ও মহসিন ঢালী।

মহসিন ঢালী জানান, নিহত চিনু আক্তার টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বালিগাঁয়ের ইসলামপুর গ্রামের করিম মোল্লার অবিবাহিত মেয়ে। দিন মজুর করিম মোল্লার ২ মেয়ে ও ১ ছেলে রয়েছে। পদ্মার তা-বে বহর গ্রাম বিলীন হয়ে গেলে অভাবী করিম মোল্লা ইসলামপুর গ্রামে এসে বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করছে। নিহত চিনু তার ছোট মেয়ে। কাজের মেয়ে চিনু গর্ভবতী ছিল। তাকে নির্যাতন করে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

লৌহজংয়ের ঘোড়দৌড় এলাকার একটি পরিত্যক্ত সরকারি বাসভবনে গত ১৫ জুন রাতে চিনু আক্তারকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়। এর পরদিন ১৬ জুন বাদ আসর ময়নাতদন্ত ছাড়াই নিহতের মরদেহ গ্রামের বাড়ি বালিগাঁওয়ের ইসলামপুর গ্রামে দাফন করা হয়। এ নির্যাতন ও হত্যার জন্য দৈনিক যুগান্তরের লৌহজং উপজেলা প্রতিনিধি সাইদুর রহমান টুটুল ও তার স্ত্রী বালিগাঁওয়ে একটি বেসরকারি কলেজের প্রভাষক সালমা বেগমকে দায়ী করেন। এদিকে, একজন উপজেলা পর্যায়ের সাংবাদিক কিভাবে সরকারি কোয়াটারে বিনা পয়সায় স্ত্রী সন্তান নিয়ে বসবাস করেন-তা নিয়েও তিনি প্রশ্ন তুলেন।

লৌহজং থানার ওসি জাকিউর রহমান জানান, গৃহ-পরিচারিকা সাংবাদিক সাইদুর রহমান টুটুলের বাড়িতে কাজ করতো । টুটুল ওই সরকারি ভবনে পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন। সরকারি ভবনে টুটুলের বাড়ির গৃহ-পরিচারিকা চিনু বিষপানে আতœহত্যা করেছে বলে শুনেছি। এ ঘটনায় কেউ কোন অভিযোগ দেয়নি। তাই এর বাইরে কিছু জানি না।

টঙ্গিবাড়ী থানার ওসি এস এ খালেক বলেন, বৃহস্পতিবার রাত ১০-১১ টার দিকে শুনেছি লাশ কবর থেকে উত্তোলন করে ময়নাতদন্ত করার দাবিতে এলাকাবাসী বালিগাঁও বাজারে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে। আন্দোলনকারীরা আমাকে এ বিষয়ে আমাকে অভিহিত করেননি বলে তিনি জানান।


এ ব্যাপারে দৈনিক যুগান্তরের উপজেলা প্রতিনিধি সাইদুর রহমান টুটুল জানান, গত ১৫ জুন রাতে ভুল বশত: তার বাড়ির গৃহ-পরিচারিকা চিনু আক্তার পুরো ১ বোতল ঠান্ডার সিরাপ খেয়ে ফেলে। এ সময় তার পেট খালি থাকায় ঠান্ডার সিরাপ খেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে প্রথমে তাকে লৌহজং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। পরে রাত ১২ টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথিমধ্যে চিনু মারা যায়। চিনু আক্তারকে নির্যাতন কিংবা হত্যা করা হয়নি বলে তিনি দাবি করেন।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি

Leave a Reply