লৌহজংয়ে পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম

মুন্সীগঞ্জে পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় ময়না আক্তার নামের স্ত্রীকে কুপিয়ে মারত্মক আহত করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে পাষন্ড স্বামী সুমন। শুক্রবার গভীর রাতে জেলার লৌহজং উপজেলার রাজগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।জানা গেছে, প্রায় সাড়ে ৫বছর আগে লৌহজংয়ের পাইকপাড়া গ্রামের মন্নাফ হাওলাদারের মেয়ে ময়না আক্তার (২৫)-কে একই থানার রাজগাও গ্রামের মোখলেছ কসাইয়ের ছেলে সুমনের(৩০) সঙ্গে ৫০ হাজার টাকা দেনমোহরে বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের সময় নগদ দেড় লাখ টাকা দিয়ে দিনমজুর মন্নাফ তার মেয়েকে বিয়ে দেয়। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই ৫ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে ময়নাকে মারপিট ও নানান কৌশলে নির্যাতর শুরু করে সুমন ও তার পরিবারের লোকজন।


কিন্তু এরই মধ্যে একটি কন্যা সন্তানের মুখ দেখে ময়না। তাই স্বামীর বাড়ির লোকজনের সকল অত্যাচার মুখ বুজে সহ্য করতে থাকে ময়না। মাঝে মধ্যে গরিব পিতার বাড়ি থেকে এটা সেটা বিক্রি করে এনে দিয়ে স্বামীর মন জয় করার চেষ্টা করে সে। কিন্তু লম্পট ও পরবিত্তলোভি পাষন্ড স্বামী সুমনের মন তাতে গলেনি। বেশী যৌতুকের আশায় সে পরকীয়ায় মেতে ওঠে সন্তানের জননী লিপি আক্তার(৩৫) নামের অপর এক পর-স্ত্রীর সাথে। এলাকাবাসী জানিয়েছে, লিপির এর আগে আরো দু’টি বিয়ে আছে। সে সব ঘরের দুটি সন্তানও রয়েছে লিপির ঘরে। গত দির্ঘ দিনধরে সুমন ওই লিপির সাথে পরকীয়া করে আসছে।

প্রায়ই সুমন গভির রাতে বাড়ি ফেরে। স্ত্রী ময়না বিষয়টি টের পেয়ে তাতে বাধ সাধেন। আর এটাই কাল হয়ে দাড়ায় ময়নার ভাগ্যে। রোজগার ন্যায় শুক্রবার গভির রাতে সুমন বাড়ি ফেরায় ময়না কারন জিঞ্জেসা করলে সুমন তাকে ছাপ জানিয়ে দেয় পাচ লক্ষ টাকা ময়নার বাপের বাড়ি থেকে এনে দিতে না পারলে তাকে সে রাখবে না। সে ২ সন্তানের জননী লপিকে মোটা অঙ্কের টাকা পেয়ে বিয়ে করবে। এ ছাড়া লিপির সাথে তার দীর্ঘদিনের সম্পর্ক রয়েছে। ময়না এ সময় যৌতুক এনে দিতে অস্বীকার করলে এবং পরস্ত্রী লিপির ঘরে রাত বিরাত যেতে নিষেধ করায় সুমন ছোড়া নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে স্ত্রী ময়নার ওপর। তাকে শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টার দিকে ছোরা দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। ময়নার অর্তচিৎকারে আশে পাশে থাকা লোকজন এগিয়ে আসলে সুমন চম্পট দেয়। এলাকাবাসী ময়নাকে আহত অবস্থায় লৌহজং স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করে। ময়না এখন হাসপাতালে কাতরাচ্ছে। পাশে ছোট্র ৪ বছরের অবুঝ কন্যা শিশু মালিহা।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি

Leave a Reply