অপূর্ণতার অন্তরাল

ব.ম শামীম
আকাশের প্রথম ভাগে ষোল কলা পূর্নতা নিয়ে চাদঁটি ভাসছে। সন্ধার কিছুটা পর হলেও চাঁদটির রাজকিয় আর্বিভাব আকাশের পরে। যার কাছে রাতের সমস্ত অন্ধকার হার মেনেছে। গ্রীস্মের প্রখর তীব্রতা কিছুটা হলে স্লান করে দিয়েছে চাঁদটির মায়বি আলোর কমলতা। প্রাকৃতির এ আয়োজন আমায় আপনভোলা সেই কিশোর বালকের মতো পথ ভূলে কিংবা নিজের অচেতন মনের অন্তরালে আবার বহুদিন পরে ডেকে নিয়ে এসেছে সেই চিরচেনা মাঠটির কোনে । মনে হচ্ছে কোথায় আমার হরিয়ে যাওয়ার নেই মানা।


মনের কোন যেন উড্ডয়নের অপেক্ষায় ডানা মেলেছে। কিন্তু হঠাৎ করে বহুদিন পর আবার মনের একান্তে পোষা সেই বৃদ্ধ প্রেমের স্মৃতিটা কেন যেন পিছন ফিরে ডেকেছে। আমি যে স্মৃতি ভূলে গিয়েছি যেই প্রেম অন্ধকারে আচ্ছন্ন করে দিয়েছে আমার জীবন যে স্মৃতি আমি আর মনে রাখতে চাইনা তবুও কেন সমস্ত চাঁদের কোমলতার মাঝে এ কোন বিষ্ণনতার গ্রাস? যে প্রেমের তপ্তদহনে পুড়ে পুড়ে হৃদয়টার রক্তক্ষরণ বন্ধ হয়ে গেছে। আজ যেন তার বান আবার দহনের যন্তনার অণেস্বায় উন্মূখ হয়ে উঠেছে।

দক্ষিনা বাতাসের শব্দগুলো কানের মধ্যে দোলা দিচ্ছে দু একটি উদাসি পাখির হাহাকার, দূরে খেক শিয়ালের খেক-খেকানি, দু-একটা জোানাকি পোকার চাঁদের আলোর মধ্যেও অকারনে জ্বলে উঠা, দূরে দূ-একটি পথিকের আনাগোনা কখনোবা পথিকের লাইটের তিব্র আলোর আস্ফালন, কোন এক দূরে শিশুদের চেচামেচি সবইতো সেই চিরচেনা সবই আছে। তবুও কি যেন নাই এখানে আরো যেন কারো থাকার কথা ছিলো কোন এক অপূর্ণতার বীজ কে যেন বুনে দিয়ে গেছে মনে হলো। তার দহন আমায় ক্ষত করে তুললো। হঠৎ করে একঝাক পথভোলা পাখি মাথার উপর দিয়ে অজানা পথের উদ্দেশ্য আমার দৃষ্টি পাখিদের পালকে এক সময় পাখিদের হারিয়ে যাওয়ার মতোই দৃষ্টিটিও হারিয়ে গেলে অদৃশ্য সীমানায়।


আমি বুঝলাম পথভোলা পাখিদের যেমন গতব্য নেই তেমনি আমার দৃষ্টি ও ভাবনা এ স্থানটিতে স্থীরতা খুঁেজ পাচ্ছেনা। একবার ভাবলাম না স্থানটি ত্যাগ করি কিন্তু কোন এক অদৃশ্য মায়া যেন আমায় দু-হাত তুলে হাত বাড়িয়ে বলে গেলো তুমি যেওনা আমি এইতো আসছি। এখোনি আসছি। হঠৎ মোবাইল ফোনটির রিং টোনটি বেঁেজ উঠলো ভাবলাম এইতো সে বুঝি আসছে। যার অবয়ব আমার হৃদয়ের মধ্যে ছায়া ফেলেছে সে আসছে। অন্ধকারে মানুষখোকো বাঘের মতো আমার চোখ দুটি জ্বলজ্বল করে উঠলো। মোবাইলটা ধরেই অভিমানের সুরে এতোক্ষনে তোমার আসার সময় হলো।

এতোদিন পরে তোমার মোবাইল করার সময় হলো তিথি। ও প্রান্ত হতে স্যার আমি স্মৃতি না স্মৃতির আম্মা আমাদের মামলার ডেইটটা কবে একটু বলবেনকি? হঠাৎ যেন আমার পুরো দেহখানী শিউরে উঠলো আমি মোবাইলে কি যেন বলতে চাইলাম কিন্তু আমার কন্ঠস্বরটি কিসের একটি ব্যাথা যেন চেপে ধরে রইলো ওই পাশ হতে হ্যালো হ্যালো শব্দটি কয়েকবার ভেসে আসলো তারপর স্বরটি বন্ধ হয়ে গেলো। আমি চোখ বুজে রইলাম। চোখ খুলে দেখি সমস্ত পৃথিবী অন্ধকার। অন্ধকারে আমার ছায়াটিও আমি দেখতে পারছিনা। মনে হলো আমার হৃদয়ের অন্ধকারের ছায়া গ্রাস করেছে পৃথিবীকে। আমি নিজেকে আবিস্কার করতে পারছিনা আমি কোথায় আছি এ পৃথিবীর বুকে না আমার হৃদয় গহরের চির অন্ধকার জগতে। ভাবলাম মানুষের হৃদয়ের চেতনার ভাবনায়ই তার প্রকৃতিকে চির দিন বহন করে। একটু আগে যে প্রকৃতি ছিলো আমার কাছে ভালোলাগার সীমাহীন আনন্দের হঠাৎ করে হৃদয়ের কোনে পোষা বৃদ্ধ ভালোবাসার বানের টানে সে প্রকৃতি যেন হয়ে উঠলো চির বিষাদময়।

Leave a Reply