মুন্সীগঞ্জে বালুতে খাল দখল, অত:পর

hb2বালু ফেলে খাল ভরাট করায় জলবদ্ধতা এখন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার নাগরিক জীবনকে ভিষিয়ে তুলেছে। আবার সেই খাল কেটে এখন সরানো হচ্ছে বালু। এক কথায় খালটি পুন:উদ্ধার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আর এ খাল সংলগ্ন বাসিন্দাদের দখল করা খালের জমিও ফিরিয়ে দেয়ার দাবি উঠেছে। শহরের গনকপাড়া-কোর্টগাঁও খালের পাড়ের বাসিন্দারা খালটি দখলে নিয়ে গেছে। আর ওই দখলকৃত খাল পুন:উদ্ধারের দাবি জানাচ্ছেন খালদাতা গোষ্ঠির পরিবারের সদস্যরা। এ সম্পত্তির মালিক ছিলেন শহরের কোর্টগাঁও গ্রামের অবিভক্ত বঙ্গীয় আইন পরিষদ, প্রাদেশিক ও জাতীয় পরিষদের সাবেক সদস্য মরহুম আব্দুল হাকিম বিক্রমপুরী ও তার পরিবারের সসদ্যরা। সম্প্রতি শহরের গনকপাড়া-কোর্টগাঁও খালের মুখে বালু ভরাট ও খাল পাড়ের বাসিন্দাদের দখলে চলে গেছে খালটি। আর এ খাল ভরাটের ফলে সামান্য বৃষ্টিতে ওই অঞ্চলে ভয়াবহ জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে।


মুন্সীগঞ্জের দানবীর হিসেবে খ্যাত প্রয়াত আব্দুল হাকিম বিক্রমপুরীর উত্তরসূরি মো. ফয়েজ আহমেদ সম্প্রতি গনকপাড়া-কোর্টগাঁও খাল লাগোয়া নিজস্ব জমিতে বালু ভরাট করেন। আব্দুল হাকিম বিক্রমপুরী শহরের ঐতিহ্যবাহী কে, কে গর্ভমেন্ট ইনষ্টিটিউশন, কোর্টগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা।

পৌরসভার মেয়র এ.কে এম ইরাদত মানু জানান, জলদ্ধতাই এখন মুন্সীগঞ্জ পৌরবাসীর এখন প্রধান সমস্যা। পৌরসভার সীমান্তবর্তী বিভিন্ন এলাকায় খালের মুখগুলো বালু দস্যুদের কারণে বিপন্ন হয়ে যাচ্ছে। এ খালগুলো ধীরে ধীরে দীর্ঘ বছর ধরে দখল হয়েছে। খালের পাড়ের বাসিন্দারা বিশেষ করে গনকপাড়া-কোর্টগাঁও খাল, গনকপাড়া-দেওভোগ খাল, মানিকপুর-নতুনগাঁও খাল, মুন্সীরহাট খালসহ মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার খালগুলো বালু ভরাট করে স্থাপনা নির্মাণ করে দখলে নিয়েছেন। এখন সামান্য বৃষ্টি হলেই পৌরসভায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। পৌরবাসীদের দু:খ লাঘব করতে অবৈধভাবে ভরাট করা খালগুলো পুন:উদ্ধার করার চেষ্টা চলছে বলে তিনি দাবি করেন।

পৌর কাউন্সিলর বাদশা সিকদার জানান, যারা খালের মালিক (আব্দুল হাকিম বিক্রমপুরী) তাদের বিরুদ্ধে যারা খাল দখলের অভিযোগ এনেছেন-তারাই মুলত দখলবাজ। গনকপাড়া-কোর্টগাঁওয়ের মূল খালটি সরজমিনে মেপে পুন:উদ্ধার করা হবে। তখন আসল ঘটনা বেরিয়ে আসবে-কারা দখলবাজ।


আব্দুল হাকিম বিক্রমপুরীর নাতি ফয়েজ আহমেদ ও মো. আরিফুর রহমান জানান-আমরাও চাই গনকপাড়া-কোর্টগাঁওয়ে বিগত বছরে দখল হয়ে যাওয়া আমার দাদার দানকৃত খালটি পুন:উদ্ধার করা হোক।

গনকপাড়া এলাকার বাসিন্দা মো. রোকন উদ্দিন বলেন, আমরা ছোটবেলা থেকেই জানি যে মূল খালটি অনেক দিন আগেই দখল হয়ে গেছে। বর্তমানে যে নিচু জমির ভরাট করা জায়গা নিয়ে বিতর্ক চলছে সে জমির প্রকৃত মালিক বিক্রমপুরী সাহেবের উত্তরসুরিরা।

একাধিক সূত্র মতে, গনকপাড়া-কোর্টগাঁও খালের পাশের ৫৫ শতাংশ জমি তারা বিক্রি করেন আমির হোসেন নামে এক জমি ব্যবসায়ীর কাছে। বিক্রির পর ক্রেতাকে জায়গাও বুঝিয়ে দেন তারা। অতি-সম্প্রতি জমির ক্রেতা আমির হোসেন নীচু জায়গা ড্রেজারের পাইপের মাধ্যমে বালু ভরাট করেন। আর বর্ষার মৌসুম হওয়ার কারণে সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতায় বন্দি হয়ে পড়ছেন গনকপাড়া ও কোর্টগাঁও এলাকার বাসিন্দারা। এদিকে, আমির হোসেনের জায়গায় বালু ভরাটের কাজ পান বিক্রমপুরীর আরেক নাতি আরিফুর রহমান। তিনি বালু ভরাট করতে গিয়ে কোর্টগাঁও-গনকপাড়া খালের মুখে পানি নিস্কাশনে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়। পরে পৌরসভার মেয়র একেএম ইরাদত মানু খালের মুখের বালু অপসারন করার কাজ শুরু করেন। এর মধ্য দিয়ে গনকপাড়া-কোর্টগাঁও খালটি দখলমুক্ত করা হবে বলে তিনি দাবি করেন।

এ প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সোনিয়া সুলতানা বিগত দিনে দখলকৃত খালটি আব্দুল হাকিম কিক্রমপুরী সাহেবের দান করার কথা স্বীকার করে বলেন, মাপঝোপ করে খালটির সঠিক জায়গা নির্ধারণ করে পুন:উদ্ধারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ইতিমধ্যে পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে একটি নির্দেশ পত্র মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক, পৌরসভার মেয়র, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এরা সবাই খাল উদ্ধারে কাজ করে যাচ্ছেন।

সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সরাবান তাহুরা জানান-গনকপাড়া-কোর্টগাঁও খালটি পূণ:উদ্ধারের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অমরা পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্দেশ পত্র অনুযায়ী খালটি উদ্ধারে প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করার কাজ ইতিমধ্যে হাতে নিয়েছি। সরজমিনে গিয়ে মাপঝোপ করে সিমানা নির্ধারণ ও মালিকানা সনাক্ত-পূর্বক সরকারের দখলে আনা হবে।

উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) লাবনী চাকমা বলেন-এই খালটি উদ্ধার করার দায়ীত্ব সম্পূর্ণ পৌরসভার। তারা যদি আমাদের কাছে সহযোগিতা চায় তাহলে আমরা তাদের প্রয়োজনীয় সকল সহযোগিতা করতে প্রস্তুত রয়েছি।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি

Leave a Reply