জাপান মিডিয়ার বৈষম্যের শিকার বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত মডেল রোলা

rolaরাহমান মনি
সম্প্রতি জাপানে বাংলাদেশকে যিনি পরিচয় করিয়েছেন তার নাম রোলা। ড. ইউনুসের পর তিনি-ই বাংলাদেশের সুনাম প্রসার করেছেন জাপানে। বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত এই মডেল কন্যা জাপান যুবসমাজে তে বটেই সর্বস্তরের জাপানীদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং প্রতিষ্ঠিত।

তিনি একাধারে মডেল, টিভি প্রেজেন্টার এবং গায়িকা। রোলা তার আসল নাম নয়। মিডিয়া নাম। বাংলাদেশকে নিয়ে তিনি গর্ববোধ করেন, বাংলাদেশকে নিয়ে রয়েছে তার অনেক স্বপ্ন। তিনি মনে করেন ১০ বছর পর আজকের এই বাংলাদেশ থাকবে না, অনেক দূর এগিয়ে যাবে, সার্বিকভাবে। এশিয়া তো বটেই অনেক উন্নত দেশের ও হিংসার পাত্র হবে বাংলাদেশ।

২৩ বছর বয়স্কা এই মডেল সম্প্রতি জাপান মিডিয়ার শিকার হয়েছেন। আর তার কারণ আর কেহ নয়, যার কারণে তিনি বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত, সেই জন্মদাতা পিতা। পিতার অপকর্মের জন্য তিনি জাপান মিডিয়ার অপপ্রচারের শিকার। এর রেশ ধরে বাংলাদেশও প্রিন্ট মিডিয়াগুলোতেও তিনি অপপ্রচারের শিকার হচ্ছেন যা মোটেই কাম্য নয়।


যা কিছু কালো তার সাথে প্রথম আলো শ্লোগান সম্বলিত প্রথম আলোর মতো পত্রিকাতে রোলার সাথে বেশ কয়েকটি কোম্পানীর চুক্তি বাতিলের খবর ফলাও করে নিউজ হয়।
rola
অথচ জাপান প্রবাসীদের ভালো কাজের কোন নিউজ আজ পর্যন্ত সেখানে স্থান পায়নি। চুক্তি বাতিলের খবরটি সত্যের অপলাপ এবং চুক্তি বাতিলের জন্য উৎসাহ দেওয়া ছাড়া আর কিছু নয়। প্রকৃত সত্য হল আজ পর্যন্ত কোন কোম্পানী-ই চুক্তি বাতিল করেনি।

রোলার পিতার বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে স্বাস্থ্য বিমার অর্থ তুলে প্রতারণা করেছেন। অভিযোগ অবশ্যই গুরুতর। এতে করে তিনি জাপান প্রবাসীদের এতো দিনের সুনাম নষ্ট করেছেন। আমরাও চাই তিনি তার প্রাপ্য শাস্তি পান। পার পাবার কোন অবকাশ নেই। অভিযোগ প্রমাণিত হলে শাস্তি তাকে পেতেই হবে।

প্রশ্ন হচ্ছে পিতার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণের আগেই কেন কন্যাকে শাস্তি দেওয়া শুরু করে দিল মিডিয়া; তবে কি কোন বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন মিডিয়াতে? কিন্তু কেন এই বৈষ্যমতা? পর্যালোচনা তাই বলে।

জাপানে অতি পরিচিত অকই ৪৮ এর কথা সকলেই জানে। বিশেষ করে অকই ৪৮ সঙ্গীত গ্র“পটির কথা। সেই গ্র“পেরই প্রথম সারির একজন শিল্পী নিজ বক্ষ উম্মোচন এবং বয়ফ্রেন্ড কর্তৃক হাত রাখার নগ্ন দৃশ্য পত্রিকায় প্রচারের জন্য চুক্তিবদ্ধ হলে জাপান পুলিশ ঐ সদস্যাকে তলব করে ভৎর্সনা করে ভবিষ্যতের জন্য সাবধান করেছেন। এর আগেও একই সদস্যাকে উক্ত কামুক নগ্ন ছবি প্রচার না করার জন্য সর্তক করে দেওয়া হয়েছিল।


তারপরও তিনি চুক্তিবদ্ধ হন। এই জন্যই তাকে এই তলব ও ভৎর্সনা। অথচ নিউজটি প্রবাসীরা তো বটেই অনেক জাপানীও তা জানে না।

একজন নিজে অন্যায় করে পার পেয়ে যান। আরেক জন পিতার অপকর্মে মিডিয়া কুৎসা’র শিকার হন, এটা বৈষম্য ছাড়া আর কি? আগে জানতাম পাপকে ঘৃণা করো, পাপীকে নয়। আর এইবার দেখলাম, পাপীকে তো বটেই পাপীর চৌদ্দ গোষ্ঠিজাতি উদ্ধার করো।

অতি উৎসাহী একজন জাপান মিডিয়ার সাথে যোগাযোগ করে তাদের অর্থে বিমান ভ্রমণ করে রোলার পিতার গ্রামের বাড়ি, আশপাশ আত্মীয় স্বজনের সাথে নিজ ছেলের বদনটিও এই উছিলায় টিভি ক্যামেরায় ধারন এবং প্রচার করার সুযোগ হাত ছাড়া করেননি। একেই বলে গেরুস্তের গরু মরলেও ঋষির ব্যবসা হয়।

রোলা জাপানে কোন মামা খালুর খুটির জোরে প্রতিষ্ঠা পাননি। নিজ যোগ্যতা, অধ্যাবসায় ও মেধার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। তিনি আমাদের গর্ব। কিছুদিন আগেও অনেক প্রবাসীই গর্ব করে বলতেন আমি ছোটবেলায় হেন করেছি, তেন করেছি।

আজ সেই সব প্রচারকারীরাই অপপ্রচারে লেগেছে। আমার কথা হল সাধারণ জাপানীরাসহ আপামোর প্রবাসীরা রোলার সাথে রয়েছে। জাপান পুলিশ, আদালত কিংবা চুক্তিবদ্ধ কোম্পানী রোলা থেকে মুখ ফিরিয়ে নেননি। সকলের ভালোবাসায় এবং স্বীয় যোগ্যতায় ক্ষণিকের হোচট সামলিয়ে সামনে এগিয়ে যাবেন এই প্রত্যাশা রাখি। আপনার জন্য অনেক শুভ কামনা।

নিউজএক্সপ্রেস

Leave a Reply