জিয়ার মৃত্যুবার্ষিকীতে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল

রাহমান মনি
জাপানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’র প্রতিষ্ঠাতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৩২তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে।

জিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাপানস্থ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ও অঙ্গসংগঠনসমূহ (ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও জিয়া পরিষদ) এর ব্যানারে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। ২ জুন রোববার টোকিওর কিতা হোকু তোপিয়া কানারিয়া হলে আয়োজিত আলোচনা ও দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন জাপান বিএনপির সহসভাপতি আলমগীর হোসেন মিঠু। মোফাজ্জল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় মঞ্চেও উপবিষ্ট ছিলেন জাপান বিএনপির উপদেষ্টা পরিষদের সম্মাতি সদস্য এমডি এস ইসলাম নান্নু, কাজী এনামুল হক ও কাজী আসগর আহম্মেদ সানী। এ ছাড়াও মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন বিএনপি জাপান শাখার সাধারণ সম্পাদক মীর রেজাউল করিম রেজা।


বক্তব্য রাখেন জোহরা ফজলে, মোস্তাফিজুর রহমান জনি, হায়দার হোসেন, মুজাহিদুর রহমান, সাজ্জাদ, কাজী সাদেকুল হায়দার বাবলু, দেলোয়ার হোসেন মোল্লা, তৌহিদুল আলম রিপন, সহিদুল আলম সহিদ, আফতাব উদ্দিন, গোলাম মোর্শেদ, সিরাজুল কাদের, নুর ইসলাম রনি, ফয়সাল সালাউদ্দিন, দেলোয়ার হোসেন, মাসুদ রানা, এটিএম জামাল, মকবুল হোসেন, কাজী আসগর আহমেদ সানী, কাজী এনামুল হক, এমডি এস ইসলাম নান্নু, মীর রেজাউল করিম রেজা, মোফাজ্জল হোসেন প্রমুখ। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন আবু খায়ের।

বক্তারা বলেন, মহান স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা, বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে সফল এবং দূরদর্শী রাষ্ট্রনায়ক, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের প্রথম শপথ নিতে হবে তাঁর আদর্শে দল এবং দেশকে এগিয়ে নেয়ার। জিয়া বহুদলীয় গণতন্ত্র দিয়েছিলেন বলেই আওয়ামী লীগ আজ রাজনীতি করতে পারছে। আর সেই সুযোগের অসৎ ব্যবহার করে। বাংলাদেশের স্মরণকালের ইতিহাসে আওয়ামী লীগের বর্তমান শাসনামল সবচেয়ে নিপীড়ন, দুর্নীতি ও দুঃশাসনের। দেশব্যাপী গণহত্যা চালিয়ে তারা বাকশাল কায়েম করছে দেশে।

বক্তারা আরও বলেন, একটি দেশকে ধ্বংসের নীলনকশা হলো, অযোগ্য লোককে যোগ্য পদে বসানো। যেটা আওয়ামী লীগ সুপরিকল্পিতভাবে করছে। হাজার কোটি টাকা তেমন কিছুই না, নাড়াচাড়া করলে বিল্ডিং পড়ে যাওয়ার তত্ত্ব যে সব মন্ত্রীরা করেন, তাদের যোগ্যতা নিয়ে বলার অপেক্ষা রাখে না। সবচেয়ে হাস্যকর বিষয় হচ্ছে, ইন্টারপোল নিয়ে যাদের ন্যূনতম জ্ঞান নেই, কিশোরগঞ্জ কিংবা গোপালগঞ্জ মার্কা পুলিশ বেনজিরদের নজির যে ইন্টারপোল পুলিশে নেই এটুকু যে মন্ত্রিপরিষদের জানা থাকে না সেই মন্ত্রিপরিষদ দিয়ে ডিজিটাল নাটক তৈরি করতে গিয়েও ধরাশায়ী হতে হবে তা বুঝতে পণ্ডিত হতে হয় না, এমনিতেই বুঝা যায়। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া তো দূরের কথা।


বক্তারা বলেন, যেসব দুর্নীতির মামলায় তারেক জিয়ার বিচার হচ্ছে, আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতা, মন্ত্রী-এমপিদের বিরুদ্ধেও একই রকমের হাজার হাজার মামলা ছিল। কিন্তু তারা ক্ষমতায় এসেই নিজেদের বিরুদ্ধে করা সাড়ে সাত হাজারের বেশি এরকম মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে। বিরোধী দলের কারও মামলা প্রত্যাহার করা তো দূরের কথা উল্টা নতুন নতুন সব হাস্যকর মামলা দিয়ে তাদের জুলুম-নির্যাতন করা হচ্ছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুই বছর এবং বর্তমান সরকারের সাড়ে চার বছর অর্থাৎ মোট সাড়ে ছয় বছরেও তারেক জিয়ার বিরুদ্ধে একটি মামলারও প্রমাণ দিতে পারেনি তারেক জিয়ার মাত্র ৫ মিনিটের এক বক্তব্যেই বর্তমান সরকারের ভিত নড়বড়ে হয়ে গেছে।

বক্তারা ৫ মে রাতের গণহত্যাকে ’৭১-এর ২৫ মার্চকেও হার মানিয়েছে বলে বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি জানান। আলোচনা সভায় জিয়ার সংক্ষিপ্ত জীবনীর উপর আলোকপাতমূলক বক্তব্য রাখেন সিরাজুল কাদের। তিনি অনেক না জানা তথ্য জিয়ার সৈনিকদের সামনে তুলে ধরেন।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply