শ্রীনগরে রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মোটরসাইকেল আটক করে পুলিশের রমরমা বানিজ্য

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মোটরসাইকেল আটক করে তা মোটা টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দিয়ে পুলিশ রমরমা বানিজ্য করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।


গত এক সপ্তাহে আড়াই শতাধিক রেজিষ্ট্রেশন বিহীন, ভূয়া নম্বর দেওয়া ও চোরাই(টানা) মোটরসাইকেল আটক করে থানায় নিয়ে আসলেও মামলা হয়েছে মাত্র তেরটি। শ্রীনগর থানা পুলিশ ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক, ঢাকা-দোহার, ঢাকা-সিংপাড়া, ঢাকা-নওপাড়া, ঢাকা-বাড়ৈখালী সড়ক, শ্রীনগর চকবাজার ও দেউলভোগসহ বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোষ্ট বসিয়ে দিনভর রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মোটর সাইকেল আটক করে থানায় নিয়ে আসে। কেউ হঠাৎ থানায় ঢোকলে থানা কম্পাইন্ডকে মনে হয় মোটরসাইকেলের হাট। আর সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত থানা চত্ত্বরে অটককৃত মোটর সাইকেলের মালিক ও তদবীরকারীদের রিতীমত মেলা শুরু হয়। সবাই অপেক্ষায় থাকেন কখন অফিসার ইনচার্জ থানায় আসবেন। সন্ধ্যার পর অফিসার ইনচার্জ তার কক্ষে আসার পর তদবীরকারীরা মোটরসাইকেল মালিকদের বাইরে বসিয়ে রেখে সিরিয়াল দিয়ে তার কক্ষে ঢোকেন। অফিসার ইনচার্জকে খুসি করে একটু পর হাসি মুখে বেরিয়ে আসেন তদ্ববীরকারীরা। ডিউটি অফিসারের কাছ থেকে মোটর সাইকেলের চাবি নিয়ে তা মালিককে বুঝিয়ে দেন। কিন্তু এরই মধ্যে অফিসার ইনচার্জ ও তদ্ববীর কারীর জন্য মোটরসাইকেলের মালিকের পকেট থেকে বেরিয়ে যায় ৫-১০ হাজার টাকা।

গত রবিবার সন্ধ্যা রাতে কামারগাও এলাকার সোহেলে তার ভূয়া রেজিষ্ট্রেশন বিহীন এফজেড মোটরসাইকেল নিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার সময় জানান, তার কাছ থেকে আট হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে। আর টাকা না দিয়ে উপায়কি? যদি মামলা দিয়ে দেয় তাহলে মামলা শেষ না হওয়া পর্যন্ত দুই লাখ টাকা দামের মোটর সাইকেল রোদ বৃষ্টিতে নষ্ট হয়ে যাবে। বাঘরা ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী জানান, গত বুধবারদিন তার মোটরসাইকেলসহ বাঘরা এলাকা থেকে প্রায় ৫০ টি মোটরসাইকেল আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এগুলোর মধ্যে দুএকটি বাদে সবগুলো মোটরসাইকেলই মোটা টাকা ও রাজনৈতিক প্রভাবে ছেড়ে দেয়। রাঢ়িখাল এলাকার আঃ সালাম নামে এক মোটরসাইকেল মালিক জানান, তার হান্ক মোটর সাইকেলটিও একই কায়দায় আটক করার পর শ্রীনগর থানা পুলিশকে ৭ হাজার টাকা দিয়ে ছাড়িয়ে নেন।


অপর একটি সূত্র জানায়, পুলিশ চেকপোষ্ট বসালেও কোন কমদামী গাড়ী আটক করেনা। অটক বানিজ্যের সুবিধা বিবেচনা করে ধরা হয় আর ওয়ান, এফজেড, পালসার, হান্ক, এপাচি, ডিসকভারীর মতো বেশীদামের মোটরসাইকেল।

শ্রীনগর থানার ওসি (তদন্ত) আবুবকর সিদ্দিক এব্যাপারে ডিউটি অফিসারের কাছ থেকে তথ্য নিতে বলেন। ডিউটি অফিসার এএসআই কাইয়ূম জানান, গত একসপ্তাহে কতগুলো মোটরসাইকেল অটক করা হয়েছে তা রেকর্ড নেই। তবে তেরটি মামলা হয়েছে।

এব্যাপারে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুর রহমান বলেন, যে সমস্ত মোটরসাইকেলের কাগজপত্র সঠিক পাওয়া গেছে সেগুলো পরে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে টাকা নেওয়ার বিষয়টি সঠিক নয়।

Leave a Reply