নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টির আশঙ্কা মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে

mawa-padma-polউজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলের কারণে প্রমত্ত্বা পদ্মায় পানিপ্রবাহের সাথে বিরাজ করছে অসংখ্য পলি। ফলে প্রচন্ড স্রোতের তোড়ে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটেও ধেয়ে আসছে পলি। নৌরুটে এসব পলিতে ক্রমেই তলদেশ ভরাট হয়ে কমছে নদীর গভীরতা। পলি জমে জমে যে কোন মুহুর্তে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টির আশঙ্কা করছে সংশি¬ষ্ট বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ। আসন্ন ঈদপূর্ব ও ঈদপরবর্তী মাওয়া নৌরুটে ফেরি চলাচলে নাব্যতা সৃষ্টির সমূহ আশঙ্কার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে ফেরি কর্মকর্তারা। কেননা ঈদের আগে এ নৌরুটে ফেরী পারাপারে অচলাবস্থা সৃষ্টি হলে দক্ষিণবঙ্গের ঘরমুখো বিপুল যাত্রী চরম দুর্ভোগে পড়তে হবে।এরই মধ্যে বিআইডবি¬উটিসির মাওয়া ফেরী কর্তৃপক্ষ নাব্যতা সঙ্কট পরিস্থিতি এ রুটে সৃষ্টি না হওয়ার লক্ষ্যে জরুরী ভিত্তিতে এখনই নৌরুটে সার্ভে করার জন্য বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছে। অপরদিকে অদূর ভবিষ্যতে এ রুটে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টির কিছুটা আশঙ্কা প্রকাশ করলেও বিআইডবিব্লউটিএর একটি সার্ভে টিম সার্ভে করে বর্তমানে চ্যানেলের গভীরতা অনেকটা ভালো রয়েছে বলে জানিয়েছেন। এছাড়া নৌরুটে পলি জমার বিষয়টি খুবই কমমাত্রায় বলে জানিয়েছেন তারা ।


মাওয়া বিআইডবি¬উটিসি সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলের কারণে প্রমত্ত্বা পদ্মার পানি হু-হু করে বাড়তে থাকে। এ সময় পদ্মায় প্রচন্ড স্রোতের কারণে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটেও ধেয়ে আসতে থাকে অসংখ্য পলি । গত কয়েকদিন ধরে পদ্মায় পানি হ্রাস অব্যাহ থাকলেও স্রোত না কমায় নৌরুটে ক্রমেই পলি জমে জমে তলদেশ ভরাট হয়ে কমছে চ্যানেলের গভীরতা। নৌরুটের মাওয়া থেকে সাড়ে ৫ কিলোমিটার অদূরে লৌহজং টার্নিংয়ের ৫০০গজ ভেতরে অতিমাত্রায় ক্রমেই পলি জমছে। রোববার এ চ্যানেলে ৯ফুট পানি বিরাজ করছিল। এতে করে নৌরুটে এসব পলি জমে জমে যে কোন মুহুর্তে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টির আশঙ্কা করছে সংশি¬ষ্ট বিআইডবি¬উটিসি কর্তৃপক্ষ।

গত কয়েকদিন পূর্বে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টি হতে পারে এমন আশঙ্কায় মাওয়া ফেরী কর্তৃপক্ষ জরুরী ভিত্তিতে নৌরুটে সার্ভে করার জন্য বিআইডব্লি¬উটিএ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে। এদিকে পদ্মায় প্রচন্ড স্রোতের কারণে ফেরিগুলো মাওয়া আসার পথে চলাচলে মারাত্মক অচলাবস্থা দেখা দেয়। তীব্র স্রোতে নৌরুটের মাওয়া ওয়ার্কশপ থেকে অধিকাংশ ডাম্পু ফেরি, সিঙ্গেল ফেরিগুলো ফেরিঘাটে ভীড়ার আগেই ৩-৪ কিলোমিটার দূরে লৌহজং ঘোড়দৌড় নালার দিকে নীচে নেমে যেতে থাকে। যার কারণে ফেরি পারপারে সময় লাগছে অতিরিক্ত ৩০-৪০ মিনিট ।
বিআইডবিব্লউটিএ সংশি¬ষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, গত বছর বর্ষার শুরুতেই মাওয়া-কবুতরখোলা চ্যানেলের মুখেই পদ্মা নদীর প্রচন্ড স্রোতে পলি জমে নাব্যতা সঙ্কট তীব্র আকার ধারণ করে। সে সময় চ্যানেলের ডুবোচরে ফেরি আটকে ফেরী চলাচল বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু এ বছর রানিং মাওয়া-লৌহজং চ্যানেলটিতে স্রোত কম পাচ্ছে। যার ফলে রানিং এ চ্যানেলে স্রোতে পলি আসলেও তা স্বল্পমাত্রায়। এর ফলে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টির কিছুটা আশঙ্কা থাকলেও তাতে কোন সমস্যার সৃষ্টি হবে না ।


মাওয়া বিআইডবি¬উটিসির মেরিন অফিসার আলী আহমেদ জানান, নৌরুটে অসংখ্য পলি এসে পড়ায় যে কোন মুহুর্তে চ্যানেলে নাব্যতা সঙ্কট দেখা দিতে পারে। তাই দুদিন পূর্বে জরুরী ভিত্তিতে নৌরুট সার্ভে করার জন্য বিষয়টি বিআইডবিব্লউটিএ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

মাওয়া বিআইডবি¬উটিসির ম্যানেজার বাণিজ্য সিরাজুল হক জানান, নৌরুটের লৌহজং টার্নিংয়ের নামার মুখে অতিমাত্রায় পলি কেটে কেটে পড়ছে। ফলে সেখানে তলদেশ ভরাট হয়ে ৯ ফুট পানি বিরাজ করছে। এতে করে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএ’র সহকারী পরিচালক এস এম আলী আজগর জানান, আমাদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে একটি সার্ভে টিম গত শুক্রবার নৌরুট সার্ভে করে চ্যানেলের গভীরতা অনেকটা ভালো দেখেছেন। নৌরুটে এখন যে পরিমাণ পানি পাওয়া গেছে তা ফেরি চলাচলের জন্য পর্যাপ্ত। তাছাড়া নৌরুটে পলিপ্রবাহ খুবই কমমাত্রায় হলেও দ্রুতগতিতে পানি হ্রাস ও পলিপ্রবাহ বাড়লে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টি হতে পারে বলে তিনি আরো জানান।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি

Leave a Reply