পলিমাটিতে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে লৌহজং-হাজরা চ্যানেল

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে পদ্মায় পানি প্রবাহের সঙ্গে অসংখ্য পলিমাটি ভেসে আসছে। এর ফলে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের পদ্মা নদীর একাধিক স্থানে পলিমাটি জমে ছোট ছোট ডুবোচর তৈরিসহ ক্রমেই তলদেশ ভরাট হয়ে কমতে শুরু করেছে নদীর গভীরতা।

এতে লৌহজং টার্নিং পয়েন্ট থেকে হাজরা চ্যানেল পর্যন্ত দুই কিলোমিটার এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এতে যে কোনো নৌরুটের চ্যানেল গুলোতে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টির আশঙ্কা করছে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, এ অবস্থায় আসন্ন ঈদের আগে ও পরে মাওয়া নৌরুটে ছোট ছোট ডুবোচর ও নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টি হয়ে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন যাতে না হয় সে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে মনিটরিং করা হচ্ছে।


এছাড়া ঈদের আগে এ নৌরুটে ফেরি চলাচলে অচলাবস্থা দেখা দিলে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার ঘরমুখো হাজার হাজার যাত্রী চরম দুর্ভোগে পড়তে না হয় সে দিকটিও গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে বিআইডব্লিউটিসি ও নৌ মন্ত্রণালয়।

এদিকে বিআইডবিউটিসির মাওয়া কার্যালয় থেকে নাব্যতা সঙ্কট পরিস্থিতি প্রতিরোধে জরুরি ভিত্তিতে নৌরুটের রানিং চ্যানেলগুলো সার্ভে করার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়। এতে সার্ভে কমিটি গঠন করে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের রানিং চ্যানেলগুলো সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন।

পরবতীতে সার্ভে কমিটির তাদের প্রতিবেদনে শীত মৌসুমে এ রুটে নাব্যতা সঙ্কট দেখা দিতে পারে এবং নৌরুটে পলি জমার মাত্রা কম বলে উল্লেখ করেছেন।

এছাড়া মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের লৌহজং টার্নিং পয়েন্ট থেকে হাজরা চ্যানেল পর্যন্ত দুই কিলোমিটার এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।

বিআইডব্লিউটিসির মাওয়া কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক এসএম আশিকুজ্জামান বৃহস্পতিবার দুপুরে বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply