হাইকোর্টের আদেশ অমান্য: মাওয়ায় যাত্রীদের জিম্মি করে গলাকাটা টোল আদায়

mawa feeদক্ষিণবঙ্গের একুশ জেলার প্রবেশ দুয়ার মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের মাওয়া সি-বোট ঘাটে টোল ফ্রি সাইনবোর্ড টাঙিয়ে যাত্রীদের জিম্মি করে টোল নেয়া হচ্ছে। সি-বোট ঘাটের বিআইডব্লিউটিএর ইজারাদার ও মেদিলী ম-ল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফ হোসেন খান যাত্রী প্রতি টোল নিচ্ছেন ২০ টাকা করে। সি-বোট ও ট্রলার দু’ঘাটেই যাত্রীদের জিম্মি করে ২০ টাকা করে আদায় করছেন আওয়ামী লীগ নেতা ও তার নিযুক্ত লোকজন। আগে সি-বোট ঘাটে বিআইডব্লিউটিএ ও জেলা পরিষদের মিলে টোল নেয়া হতো যাত্রী প্রতি ১০ টাকা। আর সরকার নির্ধারিত সি-বোট ভাড়া ছিল ১২০টাকা । সবমিলিয়ে সি-বোট যাত্রীদের সরকার নির্ধারিত ভাড়া ছিল ১৩০ টাকা। গত মঙ্গলবার হাই কোর্টের আদেশে স্থগিত করা হয় মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের খেয়া ঘাটের ইজারা। এতে করে জেলা পরিষদের ইজারাদার লঞ্চ, ট্রলার ও সি-বোট ঘাটে যাত্রীদের কাছ থেকে আর টোল আদায় করতে পারবেন না। হাই কোর্টের এ আদেশের ফলে জেলা পরিষদের অধীনে লঞ্চ, ট্রলার ও সি-বোট যাত্রীকে আপাতত আর টোল দিয়ে নদী পার হতে হবে না। এদিকে, এ আদেশের ফলে মাওয়া সি-বোট ঘাট আবারো ফিরে পান বিআইডব্লিউটিএ’র ইজারাদার ও মেদিলী ম-ল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফ হোসেন খান। মঙ্গলবারই তিনি মাওয়া সি-বোট ঘাটের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেন। বুধবার দুপুর পর্যন্ত টোল ছাড়া যাত্রীরা পারাপার হন। কিন্ত হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে বুধবার বিকেল থেকে যাত্রী প্রতি ২০টাকা টোল নেয়া শুরু করেন-ইজারাদার।


সূত্র মতে, হাইকোর্টের আদেশে অমান্য করে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের উভয় ঘাটে যাত্রীদের কাছ থেকে সি-বোট ঘাটে যাত্রীদের কাছ থেকে ইজারাদার জনপ্রতি ২০ টাকা করে টোল আদায় করছে। বিগত দিনে টোল আদায় করা হয়েছিল ৫ টাকা । এখন জন প্রতি ২০ করে আদায় করা হচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে ইজারাদারের কাছে যাত্রীরা এখন জিম্মি হয়ে পড়েছেন।

ভুক্তভোগি ফিরোজ আলম জাহিদ জানান, তারা বিশাল সাইন র্বোড লাগিয়ে বলে টোল ফ্রি। কিন্তু তারা টোল নিচ্ছে ২০ টাকা করে । হাইর্কোটে আদেশ অমান্য করে আমাদের কাজ থেকে টোল নিচ্ছে । শওকত মিয়া জানান, আমি মাদারীপুর জেলার শিপচর যাবো। টোল ফ্রি করার নামে তারা ২০ টাকা বেশী নিচ্ছে। গত দু’দিন আগে ১২০ টাকা দিয়ে আসলাম, এখন ১৫০ টাকা। সাইন বোর্ড লাগিয়ে টোল ফ্রি’র স্থলে গলাকাটা টোল নিচ্ছেন। বরিশালের যাত্রী হেদায়েতউল্লাহ খান জানান, সাইন বোর্ডে লেখা ১৩০ টাকা। আমাদের কাছ থেকে নিচ্ছে ১৫০ টাকা। চলাচলরত দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার যোগাযোগের গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুেেট চলাচলরত যাত্রীদের মধ্যে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
mawa fee
বিআইডব্লিউটিএ’র মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, গত ১লা জুলাই থেকে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের উভয়ঘাটে টোল ফ্রি করে দেওয়া হয়েছে। কোন ঘাটেই যাত্রীদের কাছ থেকে টোল আদায় করা হচ্ছেনা। টোল আদায় করা হচ্ছে কেন-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন- এ ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। আপনারা ওদের সাথে যোগাযোগ করেন ।

জেলা পরিষদের নিযুক্ত সাবেক ইজারাদার মেদেনীমন্ডল ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মো. হামিদুল ইসলাম চঞ্চল বলেন, হাইকোর্টের আদেশে খেয়াঘাটের টোল সম্পূর্ণ ফ্রি করে দেয়া হয়েছে। কিন্ত ট্রলারঘাটে আশরাফের মনোনীত রিপন গং ও সি-বোটঘাটে আশরাফ ও তার লোকজন টোল আদায় করছেন।

মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. আকরাম আলী জানান, জেলা পরিষদ ও বিআইডব্লিউটিএ’র টোল সম্পূর্ণ ফ্রি করে আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ আদেশের ফলে কোন খেয়াঘাটেই টোল নেয়া সম্পূর্ণ অবৈধ। যাত্রীরা কোন রকম টোল ছাড়াই নৌ-পথ পাড়ি দেবেন। শুধুমাত্র তারা ভাড়া দেবেন।


এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিএ’র নিযুক্ত ইজারাদার আশরাফ হোসেনের মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

ঢাকা নিউজ এজেন্সি

One Response

Write a Comment»
  1. বিআইডব্লিউটিএ’র মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন -”এ ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। আপনারা ওদের সাথে যোগাযোগ করেন ।”
    জানে না মানে ?? এরকম অনিয়ম রোধের জন্যই তো এইসব গাধাগুলারে নিয়োগ দেয়া হয়েছে । প্রশাসনিক পর্যায়ে এইসব অযোগ্যদের জন্যই এই নৌ-রুটে এত বিশৃঙ্খলা । ১০ তাকা লেখা থাকলে ২০ তাকা দেয়া লাগে।
    এসব অনিয়ম রোধের জন্য সরকারের উচ্চ মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

Leave a Reply