ওসিদের পোস্টিং নিয়ে যুদ্ধ

oc--munshiganjওসিদের মধ্যে চলছে পোস্টিং যুদ্ধ। একজন আরেক জন সরিয়ে যোগদান করছেন সংশ্লিষ্ট থানায়। ফলে কয়েক মাসের মধ্যে বদল হচ্ছে ওসি। এতে করে জেলার পুলিশ ইন্সপেক্টরদের (ওসি) মধ্যে শুরু হয়েছে রেষারেষি ও পোস্টিং যুদ্ধ।

গত কয়েক মাসের ব্যবধানে জেলার গজারিয়া, মুন্সীগঞ্জ সদর, শ্রীনগর ও সিরাজদিখান থানায় ওসি বদল হয়েছে। তাৎক্ষণিক বদলীর আদেশে নতুন ওসিরা যোগদান করার ফলে পুরনো ওসিদের সংশ্লিষ্ট থানা থেকে সরিয়ে জেলা পুলিশ লাইনের লাইনওয়ারে পোস্টিং দেয়া হচ্ছে। তবে, সব মিলিয়ে চাকরির ক্ষেত্রে পুলিশ কর্মকর্তাদের পছন্দের জেলা এখন মুন্সীগঞ্জ।

সর্বশেষ গত ২৮ জুন দুপুরে এম এ কাইয়ুম নামে এক পুলিশ কর্মকর্তা গজারিয়া থানায় ওসি হিসেবে যোগদান করেন। এর আগে তিনি গাজীপুর জেলার পুলিশ লাইনের লাইনওয়ারে ছিলেন। আর এতে ওই থানার ওসি মো. জাহাঙ্গীর হোসেনকে প্রত্যাহার করে আনা হয় জেলা পুলিশ লাইনের লাইনওয়ারে। কিন্ত ২-৩দিন যেতে না যেতেই এম এ কাইয়ুমকে চলে যেতে হয় গজারিয়া থানা ছেড়ে। এতে করে গজারিয়া থানায় আবারও রয়ে যান ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন। গত বছরের ২৪শে ডিসেম্বর মো. জাহাঙ্গীর হোসেন গজারিয়া থানায় ওসি হিসেবে যোগদান করেন। ওই সময়ে তার যোগদানে ওই থানার ওসি মো. শহীদুল ইসলামকে পোস্টিং দেয়া হয় জেলা পুলিশ লাইনের লাইনওয়ারে। সেখানে তিনি দীর্ঘদিন থেকে তদবির করে দ্বিতীয় মেয়াদে পোস্টি নেন মুন্সীগঞ্জ সদর থানায়। গত ২১শে এপ্রিল মো. শহীদুল ইসলাম মুন্সীগঞ্জ থানায় ওসি হিসেবে যোগদান করেন। তার তাৎক্ষনিক যোগদানে সদর থানার ওসি মো. আবুল বাসারকে জেলা পুলিশ লাইনের লাইনওয়ারে বদলী করা হয়। এর পর আবুল বাসার তদবির চালিয়ে গত ১০ই মে সিরাজদিখান থানার ওসি হিসেবে যোগদান করেন। ওদিকে, মাত্র ৩ মাসের মাথায় বদলী হয়ে যেতে শ্রীনগর থানার ওসি মো. জসিমউদ্দিনকে। তিনি ৪ঠা মার্চ শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হিসেবে যোগদান করেন।

তার স্থলে সিরাজদিখান থানার সাবেক ওসি শেখ মো. মাহবুবুর রহমান গত ১১ই জুন যোগদান করেন শ্রীনগর থানায়। এর আগে মাহবুবুর রহমান জেলা পুলিশ লাইনওয়ারে ছিলেন। মাহবুবুর রহমান শ্রীনগর থানায় যোগদান করলে ওই থানার ওসি মো. জসিমউদ্দিন সরাসরি তদবির করে চলে যান গাজীপুরে। তিনি সেখানকার পুলিশ লাইনওয়ারে রয়েছেন। এর আগে ২০০৪ সালে তিনি মুন্সীগঞ্জ সদর থানার দারোগা ছিলেন। মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় গত ২৪ শে জুন ওসি তদন্ত হিসেবে যোগদান করেছেন মো. ইয়ারদৌস হাসান। এর আগে গত ৫ বছর আগে তিনি মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় দারোগা হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ওসি তদন্ত হিসেবে আবু বক্কর সিদ্দিক গত ২ মাস আগে শ্রীনগর থানায় যোগদান করেছেন। এর আগে তিনি মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় ওসি তদন্ত হিসেবে ১১ মাস কর্মরত ছিলেন। ওসি তদন্ত হওয়ার আগে তিনি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার দারোগা ছিলেন।
oc--munshiganj
এছাড়াও ঘুরে ফিরে জেলার ৬ উপজেলায় অসংখ্য দারোগা-এএসআই, কনস্টেবল দীর্ঘবছর ধরে কর্মরত রয়েছেন। এদিকে, এসব ঘটনায় জেলার ওসিদের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ বিরাজ করছে। ওসি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেছেন, আমি একজনকে সরিয়ে গজারিয়া থানায় যোগদান করি। এখন আমার স্থলে আরেকজন যোগদান করেছেন। তাকে সরিয়ে ৩-৪ দিনের মাথায় আবার আমি গজারিয়া থানার দায়িত্বভার গ্রহণ করি। আমাদের মধ্যে চলছে ঠেলা-ধাক্কা। আমার এ বদলীতে স্থানীয় পুলিশের একটি মহল অপ-প্রচার চালায়।

জেলা পুলিশ সুপার মো. হাবিবুর রহমান বলেছেন, পুলিশ বিভাগের বদলী একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এক জন এক থানায় পোস্টিং নিলে আরেক জনকে সেখান থেকে সরিয়ে জেলা পুলিশ লাইনের লাইনওয়ারে পোস্টিং দেয়া হয়।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply