মাওয়ায় তীব্র যানজট, গণচাঁদাবাজি

mawarashপবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ঘরমুখো মানুষের পুরো ঢল এখন ২৩ জেলার অন্যতম করিডোর মাওয়া ফেরিঘাটের দিকে ।

বৃহস্পতিবার ভোররাত থেকেই অসংখ্য এসব ঘরমুখো মানুষ নাড়ির টানে মাওয়া ঘাট হয়ে ছুটে চলেছেন নিজ গন্তব্যে। ফেরিঘাটে ফেরী পারাপারের যাত্রীবাহী বাড়তি পরিবহনের চাপ দেখা দেওয়ায় সকাল থেকেই ৩ টি ঘাটে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয় দুপুর থেকে। এতে ফেরিঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে অন্তত ৫ শতাধিক যানবাহন। দীর্ঘ লাইনে যানজটে আটকা পড়ে চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা ।

এদিকে, পরিবহন সঙ্কটের কারণে ঢাকা-মাওয়া রুটের সিটিং সার্ভিস ও লোকাল পরিবহন গুলোতে পরিবহনগুলোতে যাত্রীরা নিরুপায় হয়ে দাঁড়িয়ে ও বাসের ছাদে মাওয়া ঘাটের উদ্দেশ্যে আসছিল। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ঢাকা মাওয়া মহাসড়কে যাত্রীদের চাপের সুযোগে এক শ্রেণীর অসাধু পরিবহন মালিকরা অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। এ সময় নির্ধারিত বাস ভাড়া ৬০ টাকা স্থলে ১০০-১৫০ টাকা আদায় করা হয়েছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন।

এদিকে, হাইওয়ে, নৌ-ফাঁড়ির পুলিশ ও খেয়াঘাটের ইজারাদারের চাঁদাবাজি এখন তুঙ্গে। উচ্চ আদালতের রায়ে মাওয়া খেয়াঘাট টোলমুক্ত রাখার নির্দেশ দেয়া হলেও ইজারাদার গণহারে চাঁদাবাজি করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। সি-বোট ঘাটে ১২০ টাকার স্থলে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা, ট্রলার ঘাটে ২০-৩০টাকা ও লঞ্চঘাটে ২০-৩০ টাকা টোল আদায় করছে।


জানা গেছে, মাওয়া ফেরিঘাটগামী ঘরমুখো মানুষের বাড়তি চাপের কারণে গুলিস্থান, পোস্তগোলা ও যাত্রাবাড়ী বাস কাউন্টারে সৃষ্টি হয় পরিবহন সঙ্কট। এ সুযোগে এক শ্রেণীর অসাধু পরিবহন মালিকরা ঝুঁকিপূর্ণভাবে সড়কপথে অভারলোডিং যান চলাচলের মাধ্যমে ভাড়া আদায় করছে অতিরিক্ত। এ সময় মাওয়া ঘাটে উপচে পড়া ভিড়ের কারণে নানা দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে যাত্রীদের। ওদিকে, সি-বোট ও লঞ্চ যাত্রীদের কাছ থেকেও গলাকাটা ভাড়া আদায় করছে মালিক-ইজাদার নামের চাঁদাবাজরা।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, মাওয়া ১ নম্বর ২নম্বর ও ৩ নম্বর ঘাটে ফেরি পারাপারের যানবাহনের দীর্ঘ লাইন। সকাল থেকে মাওয়ায় দীর্ঘ সময় শত শত যাত্রীবাহী পরিবহনকে অপেক্ষা করতে হয় ফেরিতে ওঠার জন্য। ঈদের আগের দিনটিকে ভেবে অসংখ্য বাস প্রাইভেটকারসহ শত শত ছোট গাড়ি হুমড়ি খেয়ে পড়ে ফেরিঘাটে।

এ সময় যাত্রীবোঝাই যানবাহনের ভিড়ে হিমশিম খেতে হয় মাওয়া ফেরিঘাট কর্তৃপক্ষকে। রাজধানী থেকে ছেড়ে আসা দূরপাল্লার অধিকাংশ যানবাহনই ফেরি পারাপারের জন্য অপেক্ষায় থাকতে হয়। ফেরিঘাটে ১৮ টি ফেরি চলাচল করলেও বিকেল পর্যন্ত ফেরিঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় ৫ শতাধিক যানবাহন দীর্ঘ লাইনে থাকলেও সন্ধ্যার পর পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে আসে।

তবে সকাল থেকে মাওয়া-কাওড়াকান্দি ও মাওয়া-মাঝিকান্দি নৌপথে লঞ্চ, ট্রলার ও সি-বোটসহ প্রতিটি নৌযানে ছিল যাত্রীদের আগে ওঠার প্রতিযোগিতা। এসব নৌযানগুলো অভারলোডিং ভাবে যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে। তবে পদ্মা নদী পাড় হওয়ার আগে ও পড়ে ভাড়ার নৈরাজ্যে পড়ছেন শেষ মুহূর্তের বাড়ি ফেরা এসব যাত্রী।

এ ব্যাপারে হাইওয়ে পুলিশের সার্জেন্ট সাহাদত জানান, বুধবার রাত সাড়ে ১২ টা থেকে পোনে ২ টা পর্যন্ত মাওয়া ঘাটে একটিও ফেরি ছিল না। এছাড়াও দুপুর ১২ টার দিকে বেশ কিছু সময় ২ টি ফেরি চলেনি। যার কারণে সকালের দিকে তীব্র যানজট দেখা দিলেও বিকেলের দিকে স্বাভাবিক হতে শুরু হয়।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply