যানবাহন নিয়ে পদ্মায় আটকে থাকা ফেরি উদ্ধার

ঈদে ঘরমুখো দক্ষিণবঙ্গের শতাধিক যাত্রী নিয়ে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের লৌহজং-হাজরা চ্যানেলে রো রো ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন আটকে পড়ার ৮ ঘণ্টা পর উদ্ধার করা হয়েছে।

বুধবার রাত ১২টার দিকে ২৬টি যাত্রীবাহী গাড়ি নিয়ে কাওড়াকান্দি যাওয়ার পথে ড্রেজিং চ্যানেলে আটকে যায়। পরে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে আটকে থাকা ফেরিটি টাগ জাহাজ আইটি-৩৯৫ উদ্ধার করে।

এতে আটকে থাকা ফেরির ২৬ যানবাহনের যাত্রীরা বুধবার মধ্য রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত পদ্মার মধ্যখানে থেকে চরম দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন।

এর আগে বুধবার ভোরে যানবাহন নিয়ে একইভাবে ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর প্রায় ৩ ঘণ্টা ড্রেজিং চ্যানেলে আটকা পড়েছিল। পরে টাগ জাহাজ আইটি -৩৯৫ ফেরিটি উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।


পাহাড়ি ঢলের সঙ্গে স্রোতে ভেসে আসা পলি মাটি জমে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের বিভিন্নস্থানে ছোট ছোট ডুবোচরসহ নদীর তলদেশের গভীরতা কমে যাওয়া এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে, এ সমস্যা নিরসন করতে ও বিপুল সংখ্যক মানুষের নির্বিঘ্নে পারাপারের লক্ষে জরুরি ভিত্তিতে নাব্যতা সঙ্কট কাটাতে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটের পদ্মায় ড্রেজিং শুরু হয়েছে। এর ফলে চলাচলরত ফেরিগুলো চলছে মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে।

এ ব্যাপারে মাওয়া বিআইডব্লিটিসির মাওয়া কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক এস এম আশিকুজ্জামান বাংলানিউজকে জানান, নৌরুটে জরুরি ভিত্তিতে পলি অপসারণ কাজ শুরু হলেও লৌহজং টার্নিংয়ে স্রোতর কারণে রানিং ফেরিগুলো একপাশে চরের দিকে নেমে যাচ্ছে।

এতে করে ঝুঁকি নিয়ে ফেরি চলাচল করছে। পরপর দুইদিন দুটি রো রো ফেরি আটকা পড়ে এ চ্যানেলে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply