মৃত্যুঞ্জয়ী হুমায়ুন আজাদ

Humayun-azad-sm20130117094746রাশেদ রউফ
১.
সমগ্র দেশের আকাশ আজ ভরে গেছে কালো মেঘে। গোটা জাতি আজ সংকটে ক্ষত-বিক্ষত। সারা বাংলাদেশের দীপ্তপ্রাণ প্রগতিবাদী মানুষের মতো আমার হৃদয়ের ভেতরেও চলছে রক্তক্ষরণ। এ অবস্থায় আমি স্মরণ করছি আমার এক প্রিয় ব্যক্তিত্বকে, যাঁর মৃত্যুবার্ষিকী ১২আগস্ট। আমার বিশ্বাসই হয় না যে, আমার অস্থিমজ্জার সাথে যে নামটি জড়িয়ে আছে, আমার রক্তকণিকায় যিনি মিশে আছেন অকৃত্রিমভাবে এবং আমার শিরা-উপশিরার রন্ধ্রে রন্ধ্রে যাঁর সৃষ্টি-আভা প্রোজ্জ্বল হয়ে আছে তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই! তিনি চলে গেছেন অন্যলোকে সবার হৃদয়ে হাহাকারের ঝড় তুলে। তাঁর মৃত্যু মানে এক ‘জাদুকরের মৃত্যু’। তাঁর মৃত্যু মানে আমাদের এগিয়ে যাওয়ার, প্রগতিশীলতার, উজ্জ্বল আলো প্রসারিত করার প্রশস্থ রাস্তার গতিরোধকতা। দার্শনিক সরদার ফজলুল করিমের ভাষায়, “এমন মৃত্যু কি আছে, যে মৃত্যু ব্যক্তিকে, সমাজকে, রাষ্ট্রকে, সরকারকে আÍজিজ্ঞাসা, জবাবদিহিতা এবং দীনতায় একাকার করে?” হুমায়ুন আজাদের মৃত্যু মানে সে রকমই মৃত্যু। হুমায়ুন আজাদ মৃত্যুর পরও মৃত্যুঞ্জয়ী। তাঁর আমৃত্যু ঋজু-ব্যক্তিত্বের প্রতিচ্ছায়া আমাদের চোখের সামনে ভাসবে, অবিরাম-অবিরল। তাঁর সৃষ্টি সম্ভার আমাদের নিয়ে যাবে আলোর পথে। তাঁর দৃঢ়তাপূর্ণ চরিত্র, জীবনযাপন ও পাণ্ডিত্য আমাদের প্রভাবিত করবে নিরন্তর।


২.
হুমায়ুন আজাদ এক বিরল প্রতিভা। ‘বহুমাত্রিক লেখক’, ‘জ্যোতির্ময়ী ব্যক্তিত্ব’, ‘প্রথাবিরোধী লেখক’ ইত্যাদি বিশেষণে তাঁকে ভূষিত করা হলেও আমি জানি এসব বিশেষণ থেকে তিনি অনেক ঊর্ধ্বে। তাঁর মতো জ্ঞানী, সৃষ্টিশীল, মননশীল, উদার, নীতিবোধসম্পন্ন ব্যক্তিত্ব এ বাংলায় দ্বিতীয়টি পাওয়া যাবে কিনা আমার সন্দেহ। সাম্প্রতিক বাংলা কবিতা, কথাসাহিত্য, প্রবন্ধ, গবেষণা, কিশোরসাহিত্য, ভাষাচিন্তা ও সমালোচনা-সাহিত্যে তিনি যে অবদান রেখেছেন, তা এক-কথায় অতুলনীয়। তাঁর অসামান্য অবদানের কথা জাতি কখনো ভুলবে না। তাঁর সমগ্র সৃষ্টিকর্মের মধ্যে মানবিকতা, আদর্শবোধ ও সত্যপরায়নতা যেমন প্রচ্ছন্ন হয়ে ধরা দেয়, তেমনি অন্ধবিশ্বাস, কুসংস্কার ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে একটা স্পষ্ট প্রতিবাদ ধ্বনিত হয়-কখনো উচ্চৈঃস্বরে, কখনো নীরবে। তাঁর অকুণ্ঠচিত্ত মনোভাব তাঁকে ‘অদ্বিতীয়’র মর্যাদা দিয়েছে, তাঁর ভাষাজ্ঞান ও পাণ্ডিত্য তাঁকে পরিণত করেছেন ‘মহীরূহে’, সুন্দরের প্রতি তাঁর মুগ্ধতা, তাঁর আবেগ, তাঁর প্রকাশ তাঁকে করে তুলেছে প্রিয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে। যুক্তিহীনতার যুগে বিজ্ঞানমনস্ক হয়ে ওঠার অকৃত্রিম পাঠ আমরা আর কার কাছ থেকে পাবো? কে জানাবে ‘যত উপরে যাই নীল আর যত গভীরে যাই মধু?’ ‘লাল নীল দীপাবলী’র দেশে কে বোঝাবে ‘কতো নদী সরোবর?’ ‘অলৌকিক স্টিমারে’ চড়ে তিনি চলে গেলেন সেই শহরে, যে ‘শহরে একদল দেবদূত’ তাঁর সঙ্গী হয়ে আছেন।

৩.
হুমায়ুন আজাদ তাঁর প্রবচনগুচ্ছের জন্যও একসময় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন। তাঁর অনেকগুলো প্রবচনের মধ্যে আলোচিত প্রবচন ছিল : ‘সেদিন শামসুর রাহমানকে দেখা গেছে টেলিভিশনে এক অভিনেত্রীর সঙ্গে। শামসুর রাহমান জানেন না-কার সাথে পর্দায় যেতে হয়, আর কার সাথে শয্যায় যেতে হয়’। প্রবচনটি প্রকাশের পর পাঠকমহলে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। যে হুমায়ুন আজাদ শামসুর রাহমানকে বাংলাদেশের ‘প্রধানতম কবি’ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার জন্য অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন, যিনি ‘শামসুর রাহমান : নিঃসঙ্গ শেরপা’ বই লিখে অতুলনীয় কর্মটি সম্পাদন করেছেন, সেই হুমায়ুন আজাদ তাদের প্রিয় কবি সম্পর্কে এ কি মন্তব্য করলেন! সবাই অবাক হয়ে তাকিয়ে ছিলেন শামসুর রাহমানের দিকে : ‘শামসুর রাহমান কী জবাব দেবেন!’ কিন্তু না, শামসুর রাহমান ছিলেন চুপচাপ। তিনি বুঝে নিয়েছেন এখানে তাঁর নামটি প্রতীকী অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে।

এর কিছুদিন পর হুমায়ুন আজাদের আরেকটি প্রবচন সারা দেশে বিতর্কের ঝড় তোলে। প্রবচনটি হচ্ছে : ‘আগে কাননবালারা আসতো পতিতালয় থেকে, এখন আসে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে’। এটি প্রকাশিত হবার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর বিরুদ্ধে ছাত্ররা মিছিল করে, শিক্ষকরা পত্রিকায় বিবৃতি দেন। এমন কি তৎকালীন উপাচার্য তাঁকে ‘উন্মাদ’ আখ্যায়িত করে পাবনা মানসিক হাসপাতালে পাঠানোর পরামর্শ দেন। সকলের বক্তব্যের সারসংক্ষেপ এই: বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হয়ে হুমায়ুন আজাদ কীভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের সম্পর্কে এমন ন্যক্কারজনক মন্তব্য করতে পারলেন? তাঁর শাস্তি হওয়া উচিত। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাঁকে বহিষ্কার করা হোক। তাদের এ বক্তব্যের সমর্থনে কলম ধরলেন আমাদের আরেক সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। সংবাদ পত্রিকায় তাঁর ‘হৃদকলমের টানে’ কলামে হুমায়ুন আজাদের এই প্রবচনের বিরুদ্ধাচরণ করেন।

অবশ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকুরি থেকে অব্যাহতি দেয়ার ব্যাপারটি তিনি সমর্থন করেন নি। এতো মিছিল, এতো বিবৃতি, এতো বিরোধিতা সত্ত্বেও হুমায়ুন আজাদ ছিলেন দৃঢ়। তাঁর বক্তব্যের ব্যাপারে তিনি যেমন অটল ছিলেন, তেমনি ছিলেন আপসহীন। বক্তব্য প্রত্যাহার দূরে থাক, বক্তব্যের সমর্থনেও কোনো কথা বলতে চাননি। কিন্তু ‘হৃদকলমের টানে’ কলামে সৈয়দ শামসুল হকের মন্তব্য প্রকাশের পর সাংবাদিকরা গেছেন ড. আজাদের প্রতিক্রিয়া জানতে। তাঁরা প্রশ্ন করেন, ‘আপনাকে নিয়ে চারিদিকে হই চই, কিন্তু আপনি নীরবতা পালন করছেন। আপনার বন্ধু সৈয়দ শামসুল হকও আপনার বিরুদ্ধে লিখলেন’। তখন ড. আজাদ বললেন, ‘হ্যাঁ, লেখাটা পড়লাম। সৈয়দ হকের মস্তিষ্ক যে এতো নিষ্ক্রিয় তা আগে জানতাম না’। এবার তিনি তাঁর প্রবচনের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন : ‘ঐ প্রবচনে আমি তো প্রগতির কথা বলেছি। উত্তরণের কথা বলেছি। সফলতার কথা বলেছি। আগে সিনেমার নায়িকা করার জন্য কাউকে খুঁজে পাওয়া যেতো না। কাননবালাকে ধরে আনতে হয়েছে পতিতালয় থেকে। কিন্তু এখনকার সময়ে সিনেমার নায়িকা হওয়ার জন্য মেয়েরা আসে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। উচ্চতর শ্রেণীতে পড়ালেখা করা মেয়েরা লাইন ধরে নায়িকা হওয়ার জন্য। এই অগ্রগতির চিত্রটি তুলে ধরা হয়েছে আমার প্রবচনে’।
হুমায়ুন আজাদের এ ব্যাখ্যার পর সব হই চই থেমে গেলো, বন্ধ হলো ঝড়ের তাণ্ডব।
এ রকম স্পষ্টচিন্তার মানুষ হুমায়ুন আজাদ। তাঁর মৃত্যু মানে অগ্রচিন্তার অগ্রনায়কের প্রস্থান।

৪.
আজ এই মুহূর্তে ময়ুখ চৌধুরীকে মনে পড়ছে। আশির দশকের মাঝামাঝি সময়ে আবিদ আজাদ সম্পাদিত ‘শিল্পতরু’ পত্রিকায় একটি চিঠি ছেপেছিলেন তিনি। সংখ্যাটি হাতের কাছে নেই বলে হুবহু উদ্ধৃতি এখানে দিতে পারছি না। তিনি বলেছিলেন, ‘বাঙলা ভাষা ও সাহিত্যের পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস তৈরি করা জরুরি’। যেই মুহূর্তে এ কঠিন কাজটি সম্পাদন করার ক্ষেত্রে দু’জন অনিবার্য মানুষের নাম তিনি উলে¬খ করেছেন। তাঁদের একজন আবু হেনা মোস্তফা কামাল, অন্যজন হুমায়ুন আজাদ। ময়ুখ চৌধুরী বলেন, ‘যদি এই কাজটি তাঁরা করতে না চান, তাহলে বন্দুক ধরিয়ে যেন তাঁদের কাছ থেকে এ কাজটি আদায় করে নেয়া হয়’। কিন্তু হায়! এর কিছুদিন পর আমাদের কাছ থেকে বিদায় নিলেন ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল এবং অতি সম্প্রতি চলে গেলেন ড. হুমায়ুন আজাদ। ড. ময়ুখ চৌধুরীর নির্বাচিত দুই বিশিষ্ট ব্যক্তির একজনও এখন নেই। তাই তাঁর প্রত্যাশা যেমন পূরণ হলো না, তেমনি ক্ষতিগ্রস্ত হলো পুরো জাতি।

৫.
হুমায়ুন আজাদ তাঁর বক্তব্য প্রকাশে যেমন সাহসিকতার পরিচয় দিতেন, তেমনি যে কোনো বিষয়ে মত প্রকাশে ছিলেন দৃঢ় ও নির্ভীক। ধর্ম, সমাজ, রাষ্ট্র-কাউকে তোয়াক্কা না করে অবলীলায় উত্থাপন করতেন তাঁর বক্তব্য। তিনিই একমাত্র লেখক-যিনি চলায়, বলায়, লেখায় সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম। তাঁর দুর্বলতা কেবল মনুষ্যত্ব ও মানবতার প্রতি। মানুষের উন্নয়নেই তাঁর সকল জয়গান।

হুমায়ুন আজাদ আজ আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু আছে তাঁর সৃষ্টি সম্ভার। জাতির নানা দুর্যোগপূর্ণ সময়ে এতোদিন দিক-নির্দেশনা দিতেন ড. আজাদ, এখন থেকে দেবে তাঁর রচনাসম্ভার। তাঁর সৃষ্টিকর্ম আমাদের আলোক সন্ধানে যেমন সাহায্য করবে, তেমনি সহযোগিতা করবে আলো বিতরণে। আমরা তাঁর অনুসারী হতে চাই, হতে চাই আলোকিত মানুষ।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply