ভুয়া ঠিকানায় ভাই বোনের সরকারী চাকরি

ভুয়া পরিচয়ে ভাই-বোন চাকরি করছেন মুন্সীগঞ্জের দুটি সরকারী স্কুলে! তাদের আপন ভাই জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের অফিস সহকারী মোঃ পান্নু দেওয়ান প্রতারণার মাধ্যমে তাদের মুন্সীগঞ্জের স্থায়ী বাসিন্দা বানিয়েছেন। মোঃ পান্নু দেওয়ান জনকণ্ঠের কাছে সত্যতা স্বীকার করে সংবাদ প্রকাশ না করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। ভুয়া ঠিকানার কারণে বঞ্চিত হয়েছে মুন্সীগঞ্জের সন্তানরা। তাদের স্থায়ী ঠিকানা ফরিদপুর সদরের হারুকান্দি গ্রামে।


অনুসন্ধানে জানা গেছে, বোন সুলতানা পারভীন টঙ্গীবাড়ি উপজেলার বেশনাল গ্রামের ঠিকানায় কামারখারা ইউপি চেয়ারম্যানের সনদ নিয়ে চাকরি নিয়েছেন। বাস্তবে গিয়ে দেখা গেছে এ ঠিকানায় তার কোন অস্তিত্ব নেই। ২০১১ সাল থেকে সেরাজাবাদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে কর্মরত রয়েছেন। ভাই মোঃ নান্নু দেওয়ান উত্তর পাইকপাড়া গ্রামের বাসিন্দা পরিচয়ে আব্দুল্লাপুর ইউপি চেয়ারম্যানের সনদপত্র ব্যবহার করে পুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে ২০১২ সাল থেকে কর্মরত। এ ঠিকানায়ও তার কোন অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। আব্দুল্লাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম জানান, কোন প্রতারণার মাধ্যমে এ ভুয়া সনদ নিয়ে থাকতে পারে। তদন্তসাপেক্ষে এব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


বর্তমানে তিন ভাই-বোন শহরের দেওভোগে একই বাসা থেকে চাকরি করছেন। আপন এই তিন সহোদরের স্থায়ী ঠিকানা ব্যবহার করা হয়েছে তিন স্থানে। মোঃ পান্নু দেওয়ানের ঠিকানা সঠিক থাকলেও অন্য দুটি ঠিকানাই ভুয়া। ফরিদপুরের কোতোয়ালি থানার হারুকান্দির মৃত মোঃ রহমান দেওয়ানের পুত্র মোঃ পান্নু দেওয়ান প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের এমএলএসএস হিসেবে প্রথমে চাকরি শুরু করেন। পরে পদোন্নতি পেয়ে অফিস সহকারী হিসেবে যোগদান করেন মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসে। পরবর্তীতে বদলি হয়ে ২০০৬ সাল থেকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে কর্মরত রয়েছেন। এ গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে তিনি প্রতারণার মাধ্যমে ভাই বোনের চাকরি দিয়েছেন। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামসুন্নাহার এ খবরে বলেন ‘তদন্তসাপেক্ষে নিয়ামানুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

জনকন্ঠ

Leave a Reply