জাপান প্রবাসীদের বার্ষীক বনভোজন ২০১৩

JapanPicnic5রাহমান মনি
টোকিও বৈশাখী মেলা আয়োজক কমিটি গত বেশ কয়েক বছর যাবত বৈশাখী মেলা পরবর্তী বনভোজন এর আয়োজন করে আসছে নিয়মিত ভাবে। স্বাভাবিক ভাবেই টোকিওর অদুরে বিশেষ করে সাইতামা এবং চিবা প্রিফেকচারে এ আয়োজন হয়ে থাকে প্রাকৃতিক ও নৈশর্গিক মনোরম পরিবেশে। বৈশাখী মেলা কমিটি মূল আয়োজক হলেও বনভোজন আয়োজনটি সার্বজনীন , দল-মত, র্ধম-বর্ণ, আঞ্চলিকতা নির্বিশেষে সকলেই অংশগ্রহণ করে থাকে। স্বতর্স্ফূত স্বপরিবারে অংশগ্রহণ বনভোজন কোলাহর মুখর হয়ে থাকে। বনভোজন হলেও এ আয়োজনে ছোট , বড় সকলের জন্য বিভিন্ন বিনোদনের ব্যবস্থা রাখা হয়।

গত ১১ আগষ্ট রোববার টোকিওর অদুরে সাইতামা কেন এর মিসাতো পার্কে ২০১৩ বৈশাখী মেলা পরবর্তী মেলা কমিটি কর্তৃক আয়োজিত বার্ষীক বনভোজন শেষ হয়েছে। বনভোজনে যথারীতি আপামর জাপান প্রবাসীরা অংশ নেয়। গ্রীষ্মের প্রচন্ড দাবদাহ (আয়োজন প্রাঙ্গনের তাপমাত্রা ছিল ৩৭ক্ক সে:) সত্বেও প্রবাসীরা পরিবারবর্গ নিয়ে বনভোজনে অংশ নিয়েছেন। মান্যবর রাষ্ট্রদুত মাসুদ বিন মোমেন বনভোজনে অংশ নিয়ে এবং বিভিন্ন ইভেন্টে অংশ নিয়ে আয়োজন কে আনন্দময় করে তুলেন। জাপান সফররত সইওরোপিয় বাংলাদেশ এসোসিয়েশন এর সম্মানিত সাধারন সম্পাদক জনাব কাজী এনায়েত উল্লাহ্ এবং বাংলাদেশস্থ জাপান দূতাবাসের মেডিক্যাল এট্যাসে জনাব ড. মাসায়ুকি সাইকি উপস্থিত থেকে প্রবাসীদের আনন্দের অংশীদার হন।


বনভোজন আয়োজনে বিভিন্ন বিনোদনের মধ্যে ছিল ফুটবল খেলা, শিশুদের বিস্কুট দৌড়, শিশু কিশোরদের রশি টানাটানি, চোখ বাঁধা অবস্থায় মহিলাদের তরমুজ ভাঙ্গা এবং উন্মুক্ত বিঙ্গো খেলা। প্রতিটি ইভেন্টে ছিল আকর্ষনীয় পুরস্কার। আকর্ষনীয় পুরস্কার ছিল খাবারের কুপন লটারীতেও। এছাড়াও বিভিন্ন কোম্পানী ঘোষিত আকর্ষনীয় লটারীর পুরস্কার দেওয়া হয় খাবারের কুপনের উপর।

রাষ্ট্রদূত ফুটবল খেলায় অংশ নিয়ে , ফুটবল খেলায় অংশগ্রহণ কারীদের সবার স্মৃতিকে অম্লান করে রাখেন। লাল ও সবুজ দলের মধ্যে ফুটবল খেলা রাষ্ট্রদূত প্রথমার্ধে সবুজ জার্সি পড়ে মাঠে নামেন এবং লাল দলের ডিউক এর দেওয়া গোল হজম করে। দ্বিতীয়ার্ধে তিনি লাল জার্সি পরে মাঠে নামেন এবং সবুজ দলের ছালেহ্ মোঃ আরিফের করা গোল হজম করেন। খেলার শেষ সময়ের কিছু পূর্বে লাল দলের সৌম একটি গোল করলে লাল দল ২/১ গোলে জয়ী হন। ডিউক , মোল্লা এবং সৌম শ্রেষ্ঠ খেলোয়ারের পুরষ্কার লাভ করেন। রাষ্ট্রদূতের অংশগ্রহণ খেলা এবং খেলোয়ারদের আনন্দ ও মনোবল বৃদ্ধি পায়।
JapanPicnic1

JapanPicnic2

JapanPicnic3

JapanPicnic4

JapanPicnic5
দুপুরের খাবার পরিবেশনের মধ্যে ছিল, সাদা ভাত, খাসীর মাংস, গরুর মাংস, সবজী, সালাদ এবং ঈদে বাঙ্গালীর চির ঐতিহ্য সেমাই। খাবার রন্ধণ ও পরিবেশনায় দায়িত্বে ছিলেন জনাব বাদল চাকলাদারের নেতৃত্বে এক ঝাঁক তরুন। মূলত বিক্রমপুর সোসাইটি জাপান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাদল চাকলাদার এই সোসাইটির সভাপতি।

গ্রীস্মের পড়ন্ত বিকেলে এক পশলা বৃষ্টি অনুষ্ঠান পরিচালনায় কিছুটা বিঘœ সৃষ্টি হলেও আনন্দে ভাটা পড়েনি সামান্য পরিমানেও। বৃষ্টির মধ্যেও শিশু-কিশোররা বড়দের সাথে বৃষ্টিতে ভেজার আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে বৃষ্টি থেমে গেলে আবার শুরু হয় হৈ হল্লা।

প্রতি বছর এ আয়োজন হয়ে থাকে এবং স্ব-পরিবারে সকলে অংশ নিয়ে থাকে। প্রবাসীদের এই আনন্দে শরীক হন স্থানীয় জাপানীজ সুহৃদ এবং প্রবাসীদের বিয়ে করা এদেশীয় বধুরা।

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply