লঞ্চ ধর্মঘটে অচল মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুট

মোজাম্মেল হোসেন সজল: মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে তৃতীয় দিনের মতো যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। আলোচনার উদ্যোগ না থাকায় লঞ্চ চলাচল বন্ধের সৃষ্ট অচলাবস্থার কোন সুরাহা হয়নি।

এদিকে, এ অবস্থায় শনিবার সকাল ১০টার দিকে যাত্রী পারাপারের সুবিধার্থে বিআইডব্লিউটি এর মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন সী-ট্রাক চলাচলের ব্যবস্থা করলে লঞ্চ মালিক ও শ্রমিকদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এ সময় বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন লঞ্চ মালিক ও শ্রমিকদের হাতে লাঞ্ছিত হয়। এ ঘটনায় ওই নৌরুটে ৪টি যাত্রীবাহী লঞ্চের রুট পারমিট স্থগিত করা হয়েছে।

মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, গত বৃহস্পতিবার থেকে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় যাত্রী পারাপারের সুবিধার্থে শনিবার সকাল থেকে নৌরুটে বিআইডব্লিউটিএ সী-ট্রাক চলাচলের উদ্যোগ নেয়। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মাওয়া ঘাটে মাসুম, পিনাক-৬, আমজাদ ও হানজালা নামের ৪টি লঞ্চের মালিক ও প্রতিনিধিরা তার সঙ্গে অশোভন আচরণ ও তাকে গালিগালাজ করে।


বিষয়টি বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান মো. সামসুদ্দোহা খন্দকারকে অবগত করা হলে তিনি ওই ৪ লঞ্চের রুট পারমিট স্থগিত করার নির্দেশ দিয়েছেন। পরবর্তী সিদ্ধান্ত না নেওয়া পর্যন্ত সী-ট্রাক চালানো বন্ধ রাখার পরামর্শ দিয়েছেন।

এদিকে, মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে চলাচলরত যাত্রী সাধারণ অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে সিবোট ও ইঞ্জিন চালিত ট্রলারে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছেন। অনেক যাত্রী নিরুপায় হয়ে ফেরিতে চড়ে দাঁড়িয়ে অনেক কষ্টে পারাপার হচ্ছে।

মাওয়া ঘাটের একাধিক লঞ্চ মালিক জানান, বৃহস্পতিবার কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে পড়লেও মাওয়া ঘাট থেকে লঞ্চ চলাচল করছিলো। তবে মাওয়া থেকে যাত্রী নিয়ে কাওড়াকান্দি গেলে সেখানে বাধা দেওয়া হয়েছে। আর শুক্রবার সকাল থেকে মাওয়া থেকে ছেড়ে যাওয়া সবগুলো লঞ্চ কাওড়াকান্দি ঘাট এলাকায় আটকে রাখা হয়েছে।

কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে ফিরে আসার সময় যাতে করে লঞ্চে যাত্রী নিতে না পারে সেজন্য পন্টুনে নোঙর করতে দেওয়া হয়নি লঞ্চগুলোকে। এতে করে কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে লঞ্চগুলো যাত্রী শূন্য ফিরে আসায় শুক্রবার বেলা ১১টা থেকে মাওয়া ঘাট থেকেও লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ পরিস্থিতি শনিবার পর্যন্ত অব্যাহত রয়েছে। মাওয়া প্রান্তের লঞ্চগুলো মাওয়া লঞ্চ ঘাটের পন্টুনে নোঙর করে রাখা হয়েছে। অপরদিকে, কাওড়াকান্দি প্রান্তের মালিকানাধীন লঞ্চগুলো কাওড়াকান্দি ঘাটে পন্টুনের সাথে নোঙর করে রাখা হয়েছে।


মাওয়া লঞ্চ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ভাস্কর চৌধুরী বলেন, নিয়ম বহির্ভূতভাবে শাহপরান নামের লঞ্চ চলাচলে বাধা দেওয়ায় ওই লঞ্চ মালিক ইয়াকুব বেপারী ও তার লোকজন কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে লঞ্চ চলাচলে বাধা দেওয়ার বিষয়টি শনিবার পর্যন্ত নিরসন হয়নি।

তিনি আরও জানান বৃহস্পতিবার এই নৌরুটে মাওয়া থেকে যাত্রী নিয়ে লঞ্চ চলাচল করলেও অনুমোদনহীন ওই লঞ্চের মালিক ইয়াকুব বেপারীর লোকজন প্রভাব খাটিয়ে মাওয়া ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া লঞ্চগুলো কাওড়াকান্দি ঘাটে আটকে রেখেছে। এতে করে ওই নৌরুটে লঞ্চ চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে। এদিকে, লঞ্চ চলাচল বন্ধের ৩ দিন অতিবাহিত হলেও সরকার, সরকারের ঊর্ধ্বতন মহল কিংবা স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সৃষ্ট অচলাবস্থা নিরসনে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

এ ব্যাপারে লৌহজং থানার সেকেন্ড অফিসার মো. জুলহাসউদ্দিন বলেন, যত উৎপাত চলছে কাওড়াকান্দি ঘাটে। ওই ঘাটে গেলেই লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। আবার দেখা যায় কিছু সময়ের জন্য চলছে। আজ পুরোপুরি লঞ্চ বন্ধ চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সমাধানেরও কোন উদ্যোগ নেয়ার বিষয়টি লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। তবে,মাওয়া থেকে শরীয়তপুরের মাঝিবান্দি-মাওয়া নৌরুটে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে বলে তিনি দাবি করেছেন।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে সিরিয়াল ভঙ্গ করে শাহপরান নামের একটি ফিটসেন ও অনুমোদনবিহীন লঞ্চ নিয়ম বহির্ভূতভাবে মাওয়া ঘাটে পৌছলে তা চলাচলে বাধা দেয় মালিক সমিতি। এর জের ধরে কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে আকস্মিক লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয় লঞ্চ মালিক সমিতি।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর
==============

মাওয়ায় লঞ্চ মালিকদের হাতে বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তা লাঞ্ছিত

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় যাত্রী পারাপারের সুবিধার্থে সী-ট্রাক চলাচলের ব্যবস্থা করায় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডবিউটিএ) মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিনকে লাঞ্ছিত করেছে লঞ্চ মালিক ও তাদের প্রতিনিধিরা।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মাওয়া ঘাটে এ ঘটনা ঘটে।

এর ফলে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে চালু হওয়ার এক ঘণ্টা পর বিআইডব্লিউটিএর সী-ট্রাক চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এছাড়া দুর্বব্যহারের কারণে চারটি যাত্রীবাহী লঞ্চের রুট পারমিট স্থগিত করা হয়েছে।

এদিকে, এ ঘটনার পর থেকে মাওয়া ঘাট থেকে দুই থেকে তিনটি লঞ্চ কাওড়াকান্দি ঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেলেও তা দুপুর পর্যন্ত মাওয়া ঘাটে পৌঁছেনি বলে জানা গেছে।

বিআইডব্লিউটিএর মাওয়া বন্দর কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বাংলানিউজকে জানান, গত দুই দিন ধরে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় যাত্রী পারাপারের সুবিধার্থে শনিবার সকাল থেকে নৌরুটে বিআইডব্লিউটিএর সী-ট্রাক চলাচলের উদ্যোগ নেওয়া হয়।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মাওয়া ঘাটে আমজাদ লঞ্চ, মাসুম লঞ্চ, পিনাক-৬ ও হানজালা নামের চারটি লঞ্চের মালিক ও প্রতিনিধিরা তার সঙ্গে দুর্বব্যবহারসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।

তিনি জানান, বিষয়টি বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান মো. সামসুদ্দোহা খন্দকারকে অবগত করা হলে তিনি ওই চার লঞ্চের রুট পারমিট স্থগিত করার নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া পরবর্তী সিদ্ধান্ত না নেওয়া পর্যন্ত সী-ট্রাক চালানা বন্ধ রাখার পরামর্শ দিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে মাওয়া লঞ্চ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ভাস্কর চৌধুরী জানান, শনিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মাওয়া ঘাট থেকে ছয়টি লঞ্চ ছেড়ে গেলেও কাওড়াকান্দি ঘাটে তা আটক রেখেছে ইয়াকুব বেপারীর লোকজন।

তিনি অভিযোগ করে জানান, তিন দিন অতিবাহিত হলেও সরকারের মন্ত্রী, এমপি ও প্রশাসনের লোকজন সৃষ্ট অচলাবস্থা নিরসনে কোনো উদ্যোগ নেয়নি। বিষয়টি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। এর ফলে লঞ্চের চালক ও শ্রমিকরা আতঙ্কে লঞ্চ চালাতে চাচ্ছে না।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার কাওড়াকান্দি ঘাট থেকে সিরিয়াল ভঙ্গ করে শাহ পরান নামের একটি লঞ্চ নিয়ম বর্হিভূতভাবে মাওয়া ঘাটে পৌঁছলে তা চলাচলে বাধা দেয় মালিক সমিতি। এর জের ধরে লঞ্চ মালিক ইয়াকুব বেপারীর লোকজন কাওড়াকান্দি থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয়। ফলে বাধ্য হয়ে বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ শনিবার থেকে নৌরুটে সী-ট্রাক চলাচল করার ব্যবস্থা করে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply