ট্রেনিং সেন্টারের আটককৃত দু’কর্মকর্তাকে নিয়ে প্রশাসনের বৈঠক!

greenAsiaSirajdikhanসিরাজদিখানে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া
মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের কেয়াইন ইউনিয়নের নিমতলা এলাকায় গ্রীন এশিয়া ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার নামে এক কোম্পানির বিরুদ্ধে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। গত কয়েকদিন আগে পালিয়ে গেছে কোম্পানির কর্মকর্তা-কর্মচারিরা। এতে প্রায় ৩শতাধিক শিক্ষার্থী পথে বসেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দিকে ট্রেনিং সেন্টারের ম্যানেজার আব্দুল কাদের (৪২) ও ট্রেজারার তুষার (২৬)-কে পুলিশ আটক করেছে। পরে তাদের সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহমেদের জিম্মায় দেয়া হয়েছে।

এ রিপোর্ট লেখার সময় বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৭টায় সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদে সিরাজদিখান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহমেদ, উপজেলার ইউএনও আবুল কাশেম ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী ও ট্রেনিং সেন্টারের লোকজনদের নিয়ে সমঝোতা বৈঠক করছেন বলে সিরাজদিখান থানার ওসি (প্রশাসন) মো. আবুল বাসার জানিয়েছেন।


এদিকে, প্রতারণার স্বীকার বিক্ষুব্ধ গ্রাহকরা বৃহস্পতিবার সকালে গ্রীন এশিয়া ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার কার্যালয়ের সামনে দফায় দফায় বিক্ষোভ করে। প্রতারিত ছাত্র মনির হোসেন, শহীদুল ইসলাম, আসলাম, মো.কালাম, জুয়েল শেখ,মো. মিজান শিকদার, মো.নান্নু মিয়া, মঞ্জিল হোসেন,কাজী ফারুক, কাজী শহিদুল ইসলাম, দিলীপ বাড়ৈ, মো.আলীম চৌধুরী, মো.বাচ্চু শেখ, ফরহাদকাজীসহ আরো অনেকেই জানান, প্রায় পাঁচ বছর আগে সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের নিমতলায় গ্রীন এশিয়া ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার নামে একটি কার্যালয় খোলে। ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারের ওই কার্যালয় থেকে এখন শ’শ’ বিদেশগামী নি:স্ব হতে চলেছে । শেখ রহমান আলী কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমার ছেলে মামুন হোসেনের বিদেশে যাওয়ার জন্য আমার পালের গাভী বিক্রি করে এবং সুদ করে টাকা এনে ম্যানেজার আব্দুল কাদেরের কাছে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা নগদ দেই। কিন্তুু এক বছর যাবৎ বিদেশে না পাঠিয়ে তালবাহানা করছে।

একই উপজেলার চালতিপাড়া গ্রামের ময়না বেগম বলেন, ট্রেনিং সেন্টারে আমার ছেলে মনির হোসেনের বিদেশ যাওয়ার জন্য ২লাখ টাকা জমা দেই। এখন আমি ছেলেকে না পাঠাতে পারলে সব টাকার সুধ গুনতে হবে। এখন আমার মরণ দশা। স্কিল করতে আসা ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা থানার আনোয়ার মাদবরের ছেলে মো. মঞ্জিল হোসেন বলেন, অনার্সে ভর্তি হয়ে পড়াশোনা শেষ না করে এই ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার স্কিল করতে আসি। আমি লেখাপড়া না করে কিদেশ যাওয়ার আশায় তাদের ৮৫ হাজার টাকা জমা দিয়েছি।


কেয়াইন ইউনিয়নর পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক জানান, মুন্সীগঞ্জ জেলাসহ বেশ কয়েকটি জেলার ছাত্র এই গ্রীন এশিয়া ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারে স্কিল করছে। কিন্তুু আমার কাছে আসা শতাধিক লোকের লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ রয়েছে । সাধারণ মানুষের টাকা আত্মসাতের জন্য এ ট্রেনিং সেন্টারের মালিক, কর্মকর্তা-কর্মচারিদের শাস্তি হওয়া দরকার। এশিয়া ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার ম্যানেজার আব্দুল কাদের বলেন, আমরা কোন প্রতারণা করিনি,নিমতলায় আমাদের ভাকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারের মাসিক ভাড়া ৫৫ হাজার টাকা ছিল। বিন্তু মালিক পক্ষ চলতি মাস থেকে ১ লাখ টাকা নতুন ভাড়া করেছে। তাই আমরা আমাদের নিজস্ব সেন্টার টংগীবাড়ির শুবচনীতে নিয়ে যাচ্ছি। কোন প্রতারণা করছি না। ট্রেনিং সেন্টার মালিকের সঙ্গে তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।
greenAsiaSirajdikhan
ঢাকা নিউজ এজেন্সি

Leave a Reply