পুলিশ কর্মকর্তা খুনের ২দিনেও উদঘাটন হয়নি ক্লু

fazlul karimসিআইডি’র সাবেক কর্মকর্তা ফজলুল করিম খান হত্যাকাণ্ডের ২ দিন পেরিয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডের কোনো কূলকিনারা করতে পারেনি পুলিশ। এ ঘটনায় কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও কিলিং মিশনে অংশ নেয়া ৩ পেশাদার খুনিকে গ্রেফতার করতে পারেনি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

গোয়েন্দা সূত্র জানায়, শনিবার সকাল ১১টার দিকে নিহতের ভাতিজা রুবেল ও শান্তকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এছাড়া শুক্রবার বাসায় এসে ফজলুল করিমের স্ত্রী আফরোজা করিম খান স্বপ্না, শ্যালক তৌহিদ প্রিন্স ও ভাগনিদের সঙ্গে কথা বলেন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। গাড়ি চালক লিটন ঘটনার দিন থেকেই ডিবি হেফাজতে রয়েছে। তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তার কথায় অসংলগ্নতা রয়েছে। তার দেয়া তথ্য যাচাই বাছাই করা হচ্ছে।


গোয়েন্দা সূত্র আরও জানায়, রামপুরা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের ধরতে অভিযান চালাচ্ছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। ইতিমধ্যে কলা সেলিম নামে একজনকে শুক্রবার আটকও করা হয়। তার কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে।

তার দেয়া তথ্যে, শুক্রবার রাতেই র‌্যাব-পুলিশের সমন্নয়ে সাঁড়াশি অভিযান চালানো হয়। এ সময় বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়। তবে রাসেল নামে একজনকে ধরতে ব্যর্থ হয় পুলিশ।

স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীদের অভয়ারণ্য পশ্চিম রামপুরার ওয়াপদা রোড। সেখানেই নিহত পুলিশ কর্মকর্তা ফজলুল করিমের বাড়ি। কিছুদিন আগে নামায শেষে বাসায় ফেরার পথে মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে তার বিরোধ হয়। বিষয়টি সামনে রেখে তদন্ত করছে ডিবি।

ফজলুল করিমের শ্যালক তৌহিদ কাশেম খান প্রিন্স বলেন, শুক্রবার গোয়েন্দা পুলিশ বাসায় এসে তাকেসহ তার আপা (স্বপ্না) ও ভাগনিদের কাছ থেকে বিভিন্ন তথ্য নিয়েছে। তার আপার কাছ থেকে ঘটনার সময়ের বিভিন্ন খুঁটিনাটি বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে তারা। গ্রামের বাড়িতে জমিজমা নিয়ে বিরোধ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে ভাতিজা রুবেল ও শান্তকে শনিবার সকালে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

রামপুরা থানার এসআই জামাল হোসেন জানান, ফজলুল করিমের পারিবারিক ও পেশাগত বিষয়কে সামনে রেখে তিনি তদন্ত করছেন। এছাড়া স্থানীয় মাদক সংক্রান্ত বিষয়কেও প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে। এ জন্য শনিবার বিকেলে তিনি নিহতের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি আরো জানান, এ হত্যা মামলাটি ডিবিতে স্থানান্তর করা হয়েছে। এখন থেকে মামলাটি ডিবি পুলিশ তদন্ত করবে।

এছাড়া সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ফরেনসিক) ডা. মামুন জানান, ঘটনাস্থল থেকে সংগৃহীত আলামত পরীক্ষা করা হচ্ছে। তদন্তের স্বার্থে এর বেশি কিছুই বলা যাচ্ছে না।

সন্দেহের তীর লিটনের দিকে : ঘটনার দিনেই ফজলুল করিমের গাড়ি চালক লিটনকে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। তার আচরণ ও বক্তব্যে অমিল পাওয়া যাচ্ছে।

নিহতের স্ত্রী স্বপ্না করিম সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ঘটনার সময় চালক লিটন বাসার নিচে গাড়ি পরিষ্কার করছিল। খুনিরা তার সামনে দিয়েই বাড়িতে ঢুকে এবং বের হয়ে যায়। খুনিরা চলে যাওয়ার পরপরই লিটন তৃতীয় তলায় উঠে স্বপ্না করিমকে জানায়, খালাম্মা ওরা চলে গেছে, আপনি বের হোন, স্যারকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। তাছাড়া নিহতের বাসার সামনে মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের আনাগোনা ছিল। এদেরকে তিনি বাধা দিতেন বলে জানা গেছে। অন্যদিকে গ্রামের বাড়ির জমি সংক্রান্ত বিরোধকেও প্রাধান্য দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নিহত ফজলুল করিমের আগের গাড়ি চালক সম্প্রতি সিঙ্গাপুরে চলে যান। পরে ঈদের পরপরই তাদের চালকের দরকার হয়। এ জন্য স্বজনদের অনেককেই বলে রেখেছিলেন। যুৎসই চালকও পাচ্ছিলেন না তারা। পরে এক আত্মীয়ের রেফারেন্সে ১৭ দিন (ঈদের ক’দিন পর) আগে লিটনকে গাড়ি চালক হিসেবে অন ট্রায়ালে নিয়োগ দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর পশ্চিম রামপুরার ওয়াপদা রোডের ৭৫/২ নম্বরের নিজবাড়ির তৃতীয় তলার বাসায় খবরের কাগজ পড়া অবস্থায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে খুন হন পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) সাবেক সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) ফজলুল করিম খান।

পরদিন নিহতের মেয়ের জামাই ব্যারিস্টার মুকিম উদ্দিন খান জাহান আলী চৌধুরী বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় অজ্ঞাত তিনজনকে আসামি করা হয়েছে।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply